সদ্য সংবাদ

বিভাগ: সিলেট বিভাগ

শ্রীমঙ্গলে আন্তর্জাতিক বন দিবস পালিত

শ্রীমঙ্গল সংবাদদাতা

বন বনানী জানি জানাই, ভালোবেসে বনকে বাঁচাই, এই প্রতিপাদ্যের মধ্য দিয়ে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে পালিত হলো আন্তর্জাতিক বন দিবস ২০১৯।

বৃহস্পতিবার (২১ মার্চ) সকাল ১০ঘটিকায় বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ মৌলভীবাজার এর আয়োজনে ও পাহাড় রক্ষা উন্নয়ন সোসাইটির সহযোগিতায় এক পথ শোভাযাত্রা শ্রীমঙ্গল শহরে বের করা হয়।

শোভাযাত্রায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আবু মুসা শামসুল মোহিত চৌধুরী।

এতে আরও উপস্থিত ছিলেন পাহাড় রক্ষা উন্নয়ন সোসাইটির সভাপতি সালাউদ্দিন আহমেদ, সহকারী রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. আলী,লাউয়াছড়া বিট কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন, ইকো ট্যুর গাইড সাজু মারছিয়াং, দ্বীপ শিখা প্রি ক্যাডেট এ্যান্ড হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক সুরঞ্জনা সিনহা ও স্কুলের শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক বৃন্দ।

কমলগঞ্জে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যানকে ফুলেল শুভেচ্ছা

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

Pic-K1
তৃতীয়বারের মতো মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হওয়ায় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক মো: রফিকুর রহমানকে বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টা থেকে দিনভর কমলগঞ্জ পৌর এলাকার নছরতপুরস্থ উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক রফিকুর রহমানের বাসভবনে গিয়ে সৌজন্য স্বাক্ষত করেন কমলগঞ্জ উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ, বৃহত্তর সিলেট আদিবাসী ফোরাম, বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন,  বাংলাদেশ মণিপুরী আদিবাসী ফোরাম, বিভিন্ন ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, মহিলা আওয়ামীলীগ. স্বেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগ, শ্রমিকলীগ, পরিবহন শ্রমিকসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা ।
উল্লেখ্য, গত ১৮ মার্চ ২য় ধাপে অনুষ্ঠিত ৫ম উপজেলা পরিষদ  নির্বাচনে নিকটতম প্রার্থীর চেয়ে প্রায় ৩০ হাজার ভোট বেশী পেয়ে নির্বাচিত হন অধ্যাপক মো: রফিকুর রহমান।

কমলগঞ্জে দৈনিক ভোরের ডাক পত্রিকার ২৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

দৈনিক ভোরের ডাক

দৈনিক ভোরের ডাক

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে দৈনিক ভোরের ডাক পত্রিকার ২৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়েছে। বুধবার (২০ মার্চ) দুপুরে শমশেরনগরস্থ সাংবাদিক সমিতির অস্থায়ী কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কেক কাটার মধ্য দিয়ে দৈনিক ভোরের ডাক পত্রিকার ২৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করা হয়। দৈনিক ভোরের ডাক পত্রিকার কমলগঞ্জ উপজেলা প্রতিনিধি মো: জয়নাল আবেদীন এর সভাপতিত্বে ও সাংবাদিক প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের সদস্য অধ্যক্ষ ম. মুর্শেদুর রহমান, শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির অফিসার ইনচার্জ অরূপ কুমার চৌধুরী, কমলগঞ্জ সাংবাদিক সমিতির সভাপতি আব্দুল হান্নান চিনু, কবি শহীদ সাগ্নিক। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দৈনিক ইত্তেফাক কমলগঞ্জ প্রতিনিধি  নুরুল মোহাইমীন মিল্টন, দি বাংলাদেশ টুডে কমলগঞ্জ প্রতিনিধি পিন্টু দেবনাথ, বাংলাদেশ বেতার প্রতিনিধি আর কে সোমেন প্রমুখ।

12
উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক এম.এ. ওয়াহিদ রুলু, ফটিকুল ইসলাম রাজু, আলমগীর হোসেন, মো: মোনায়েম খান, সজীব দেবরায়, হৃদয় ইসলাম, সমাজসেবক আনোয়ার খান, সিদ্দিকুর রহমান, হাজী সুলেমান আহমদ প্রমুখ।
বক্তারা দৈনিক ভোরের ডাক পত্রিকার দীর্ঘায়ু ও সমৃদ্ধি কামনা করে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে আরও এগিয়ে যাবে এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

মৌলভীবাজার জেলার ৭টি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হলেন যারা—

 

 

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

মৌলভীবাজার জেলার ৭টি উপজেলায় শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে।  চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন বড়লেখা উপজেলায় সুয়েব আহমদ (স্বতন্ত্র), জুড়ী উপজেলায় এম এ মুহিদ ফারুক (স্বতন্ত্র), কুলাউড়া উপজেলায় অধ্যক্ষ একে এম শফি আহমদ সলমান (স্বতন্ত্র), কমলগঞ্জ উপজেলায় অধ্যাপক রফিকুর রহমান (আ’লীগ), শ্রীমঙ্গল উপজেলায় রনধীর কুমার দেব (আ’লীগ), রাজনগর উপজেলায় শাহাজান খান (স্বতন্ত্র) বেসরকারী ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। বিনা প্রতিদন্ধিতায় বিজয়ী হন মৌলভীবাজার সদর উপজেলায় কামাল হোসেন (আ’লীগ)।

কুলাউড়া উপজেলা চেয়ারম্যান সলমান, ভাইস চেয়ারম্যান সাহেদ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পপি বেসরকারী ভাবে নির্বাচিত

 কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

কুলাউড়া উপজেলা চেয়ারম্যান সলমান, ভাইস চেয়ারম্যান সাহেদ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পপি বেসরকারী ভাবে নির্বাচিত

 মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আনারস প্রতীকে সফি আহম্মদ সলমান ৫৪ হাজার ২শত ৩৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।ভাইস চেয়ারম্যান ফজলুল হক খাঁন সাহেদ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোছাঃ ফাতেহা ফেরতৌস চৌধুরী পপি বেসরকারী ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

কুলাউড়ায় ৫ম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে উপজেলার ৯৭ টি ভোট কেন্দ্র প্রাপ্ত ফলাফল অনুসারে আনারস প্রতিক নিয়ে শফি আহমদ সলমান পান ৫৪ হাজার ৭০০ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি নৌকার কান্ডারি আসম কামরুল ইসলাম পান ২৪ হাজার ১০০ ভোট। আর নবাব আলী নকি খান পেয়েছেন ১৯ হাজার ৫৩ ভোট। ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হলেন মোঃ ফজললু হক খাঁন সাহেদ বই মার্কায় এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হলেন মোঃ পপি চৌধুরী হাসঁ মার্কায় বিজয়ী হয়েছেন।

কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন : অধ্যাপক মো: রফিকুর রহমান চেয়ারম্যান (আওয়ামীলীগ), রামভজন কৈরী ভাইস চেয়ারম্যান, বিলকিস বেগম মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

Pic-K
পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার নির্বাচন ভোট সম্পন্ন হয়েছে। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী নৌকা প্রতীকের অধ্যাপক মো. রফিকুর রহমান ৪৯,১৮৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি  স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকের মো: ইমতিয়াজ আহমেদ বুলবুল ১৯,৪৫০ ভোট ও ওয়ার্কার্স মনোনীত প্রার্থী হাতুড়ী প্রতীকের আব্দুল আহাদ মিনার ভোট ৩৬৫ পান।
ভাইস চেয়ারম্যান পদে টিউবওয়েল প্রতীকের রামভজন কৈরী ৩১,০১২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি তালা প্রতীকের মো: সিদ্দেক আলী ১৮,৭৭৯ ভোট, চশমা প্রতীকের শাব্বির এলাহী ৯,৭৬৮ ভোট ও মাইক প্রতীকের আব্দুল মুয়ীন ফারুক ৮,১৮২ ভোট পান।

Kamalgonj Pic-4
মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে পদ্মফুল প্রতীকের বিলকিস বেগম ৩৮,৭৭৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি ও বল প্রতীকের পারভীন আক্তার লিলি ২৮,৩৫৪ ভোট পান।
কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চাবাগানের কয়েকটি ভোট কেন্দ্র ব্যতীত অন্যান্য ভোট কেন্দ্র সমুহে ভোটারের উপস্থিতি ছিল খুবই নগন্য। সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হলেও কেন্দ্র সমুহে দায়িত্বরত সংশ্লিষ্টরা বসে অলস সময় পার করেছেন। দু’একটি কেন্দ্রে বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া শান্তিপূর্ণ ভোট অনুষ্ঠিত হয।

Kamalgonj Pic-2
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, একটি পৌরসভা ও নয়টি ইউনিয়ন নিয়ে সীমান্তবর্তী এ উপজেলায় মোট ভোটারের সংখ্যা ১,৭৯,৪শ’ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৮৯ হাজার ৫৬৪ ও মহিলা ৮৯ হাজার ৮৩৬ জন। ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৭২টি ও ভোট কক্ষের সংখ্যা ৪৫৬টি। তবে সকাল থেকেই ভোট কেন্দ্র সমুহে ভোটারের উপস্থিতি চোখে পড়েনি। চা বাগানের কিছু কেন্দ্র সমুহে ভোটার উপস্থিতি ছিল সন্তোষজনক। উপজেলা সদর, পতনঊষার, শমশেরনগর, রহিমপুর ও মুন্সীবাজার ইউনিয়নের ভোট কেন্দ্র ঘুরে এমন চিত্র পাওয়া যায়। বিকেলে কর্মী সমর্থকেরা বাড়ি বাড়ি থেকে কিছু ভোটার এনে ভোট প্রদান করেন। বেলা ১১টায় পতনঊষার মাইজগাঁও প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আনারস ও নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এছাড়া রহিমপুর ইউনিয়নের ধর্মপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পৌণে ১২টায় জাল ভোটের অভিযোগে প্রিসাইডিং অফিসারের সাথে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী রফিকুর রহমানের সাথে বাকবিতন্ডার ঘটনা ঘটে। ইসলামপুরের বাঘাছড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৬২টি ব্যালেট পেপার ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়া পুরো উপজেলায় শান্তিপূর্ণ ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

কমলগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর বঙ্গবন্ধুর ৯৯তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস পালন

কমলগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর বঙ্গবন্ধুর ৯৯তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস পালন

কমলগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর বঙ্গবন্ধুর ৯৯তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস পালন

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে রাববার (১৭ মার্চ) মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে পালন করা হয়। সকাল ১০টায় উপজেলা সদরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহনে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে বিভিন্œ সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার উপজেলা প্রশাসন চত্তরে শেষ হয়। পরে শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহনে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। পরে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হকের সভাপতিত্বে ও স্কাউট সম্পাদক প্রধান শিক্ষক মোশাহিদ আলীর সঞ্চালনায় পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শামছুন নাহার পারভীন, এডভোকেট মো. সানোয়ার হোসেন, কমলকুঁড়ি পত্রিকার সম্পাদক পিন্টু দেবনাথ, কমলগঞ্জ প্রেসক্লাব সম্পাদক মো: মোস্তাফিজুর রহমান, সাংবাদিক আব্দুল বাছিত খান, মোনায়েম খান প্রমুখ।

শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস

কমলকুঁড়ি ডেস্ক

image_1589_197194-1

আজ সেই ১৭ মার্চ। শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস।

১৯২০ সালের ১৭ মার্চ বাঙালির জন্য আশীর্বাদের একটি দিন। আনন্দের দিনও বটে। এদিন হাজার বছরের শৃঙ্খলিত বাঙালির মুক্তির দিশা নিয়ে জন্ম নিয়েছিল মুজিব নামের এক দেদীপ্যমান আলোক শিখা। মহাকালের আবর্তে অনেক কিছুই হারিয়ে যায়। হারিয়ে যাওয়া এ নিয়মের মধ্যেও অনিয়ম হয় কিছু স্মৃতি, গুটিকয়েক নাম। বাংলা ও বাঙালির কাছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নামটি যেমন। যতদিন বাংলাদেশ থাকবে ততদিন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ এ বাঙালির অবদানের পাশাপাশি তাঁর জন্মের তিথিও চিরজাগরূক থাকবে বাঙালির প্রাণের স্পন্দনে।
এ আলোক শিখা ক্রমে ক্রমে ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র, নিকষ কালো অন্ধকারের মধ্যে পরাধীনতার আগল থেকে মুক্ত করতে পথ দেখাতে থাকে পরাধীন জাতিকে। অবশেষে বাংলার পূব আকাশে পরিপূর্ণ এক সূর্য হিসেবে আবির্ভূত হয়, বাঙালি অর্জন করে মুক্তি। স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু আজ নেই, কিন্তু সে সূর্যের প্রখরতা আগের চেয়েও বেড়েছে অনেকগুণ। তাঁর অবস্থান এখনও মধ্যগগনে। সেই সূর্যের প্রখরতা নিয়েই বাঙালি জাতি আজ এগিয়ে চলেছে সামনের দিকে। তাই বাংলা, বাঙালি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব একবৃন্তে তিনটি চেতনার ফুল। বিশ্বের মুক্তিকামী মানুষের মাঝে বঙ্গবন্ধু চির অম্লান, চিরঞ্জীব। বাংলার শোষিত-বঞ্চিত-নির্যাতিত-মেহনতি জনতার হৃদয়ে বঙ্গবন্ধুর চিরভাস্বর, অমর।
সেই ঐতিহাসিক দিন আজ। স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মবার্ষিকী, জাতীয় শিশু দিবস। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ১৭ মার্চ ২০২০ থেকে ২০২১ সালের ১৭ মার্চ পর্যন্ত সময়কে ‘মুজিব বর্ষ’ হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।
১৯২০ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জের অজ-পাড়াগাঁ মধুমতি আর বাঘিয়ার নদীর তীরে এবং হাওর-বাঁওরের মিলনে গড়ে ওঠা বাংলার অবারিত গ্রাম টুঙ্গিপাড়ায় শেখ পরিবারে জন্ম নেয়া খোকা নামের শিশুটিকালের আবর্তে হয়ে উঠেছিলেন নির্যাতিত-নিপীড়িত বাঙালির ত্রাণকর্তা ও মুক্তির দিশারী। গভীর রাজনৈতিক প্রজ্ঞা, নিঃস্বার্থ আত্মত্যাগ এবং জনগণের প্রতি মমত্ববোধের কারণে পরিণত বয়সে তিনি হয়ে ওঠেন বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা। বর্ণাঢ্য সংগ্রামবহুল জীবনের অধিকারী এই নেতা বিশ্ব ইতিহাসে ঠাঁই করে নিয়েছেন স্বাধীন বাংলাদেশের রূপকার হিসেবে।

জন্মদিন উপলক্ষে জাতীয় ও স্থানীয়ভাবে বিভিন্ন কর্সূমচি নেয়া হয়েছে

কমলগঞ্জের মুন্সীবাজারে অধ্যাপক মো. রফিকুর রহমানের সমর্থনে নির্বাচনী জনসভা অনুষ্ঠিত

20190316_211625-1কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

কমলগঞ্জের মুন্সীবাজারে বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক মো. রফিকুর রহমান (নৌকা) সমর্থনে  শনিবার (১৬ মার্চ) সন্ধ্যায় মুন্সীবাজার খাদ্য গোদাম মাঠে নির্বাচনী পদসভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ এর কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য বদর উদ্দিন কামরান।

মুন্সীবাজার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি ইকবাল হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও রহিমপুর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক হামিদুল হক চৌধুরী বাবরের পরিচালনায় পথসভায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক এড. আজাদুর রহমান, মুন্সীবাজার ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোতালিব তরফদার, রহিমপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি জুনেল আহমেদ তরফদার সহ জেলা,  উপজেলা, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতৃবৃব্দ। পথসভা বিশাল জনসভায় রুপান্তরিত হয়।

সভায় বক্তারা আগামী ১৮ মার্চ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকার পক্ষে ভোট দেয়ার আহবান জানান।

 

 

 

কমলগঞ্জে আব্দুল মতিন চৌধুরী ট্রাস্টের উদ্যোগে রিক্সা, ঢেউটিন, নলকূপ ও সেলাই মেশিন বিতরণ

54
কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার পতনউষার ইউনিয়নে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন চৌধুরী কল্যাণ ট্রাস্টের উদ্যোগে দরিদ্র ও দুঃস্থ লোকদের মাঝে রিক্সা, ঢেউটিন, নলকূপ, সেলাই মেশিন ও নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়।  শনিবার (১৬ মার্চ) বিকাল ৪ টায় পতনঊষারস্থ নিজ বাড়িতে আনুষ্ঠানিকভাবে এসব সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

58
আব্দুল মতিন চৌধুরী কল্যাণ ট্রাষ্টের সভাপতি আব্দুর রশীদ ফুল এর সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব মুজিবুর রহমান চৌধুরী শেফুল এর সঞ্চালনায় বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাজ্য প্রবাসী ট্রাষ্ট্রের ট্রাষ্টি আতিকুর রহমান চৌধুরী। এসময় উপস্থিত ছিলেন অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পতনউষার ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ট্রাষ্টি সেলিম আহমদ চৌধুরী, কমলকুঁড়ি পত্রিকার সম্পাদক পিন্টু দেবনাথ, দৈনিক ইত্তেফাক কমলগঞ্জ প্রতিনিধি সাংবাদিক নুরুল মোহাইমিন, ট্রাষ্টের সদস্য মহসীন আহমদ, রুহিন চৌধুরী ও কবি জয়নাল আবেদীন। অনুষ্ঠানে ১শ’জন দরিদ্র ও দুঃস্থ পরিবারের মাঝে ৬টি রিক্সা, ৬০ বান্ডিল ঢেউ টিন, ৫টি নলকূপ, ২টি সেলাই মেসিন ও নগদ প্রায় ২০ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়।

542

উল্লেখ্য, আব্দুল মতিন চৌধুরী কল্যাণ ট্রাষ্ট ২০০৪ সাল থেকে আর্তমানবতার সেবায় কাজ নিরলসভাবে কাজ করছে। প্রতিবছর গরীবদের সাহায্য সহযোগিতা করে যাচ্ছে।

অনুষ্ঠানে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন চৌধুরীর শারীরক সুস্থতার জন্য দোয়া কামনা করা হয়।