সদ্য সংবাদ

বিভাগ: মৌলভীবাজার

সরকারি কলেজ শিক্ষক সমিতির মৌলভীবাজার জেলা কমিটি গঠন

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
 মৌলভীবাজারে সদ্য সরকারিকৃত কলেজ শিক্ষকদের সরকারি কলেজ শিক্ষক সমিতি (সকশিস) গঠন করা হয়েছে। গত শুক্রবার মৌলভীবাজার প্রেসক্লাবে বিকাল ৫টায় মৌলভীবাজার জেলার পাঁচটি সদ্য সরকারিকৃত কলেজ শিক্ষকদের এ কমিটিতে সহকারী অধ্যাপক রজত কান্তি গোস্বামীকে সভাপতি ও প্রভাষক মো. জসীম উদ্দিনকে সাধারণ সম্পাদক করে ২১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। বড়লেখা সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক মো. আব্দুস সবুরের সভাপতিত্বে এই সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সরকারি কলেজ শিক্ষক সমিতি (সকশিস) কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহসভাপতি কামরুল ইসলাম সবুজ, বিশেষ অতিথি ছিলেন সকশিস কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক দিপু কুমার গোপ।
সভায় রাজনগর সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক রজত কান্তি গোস্বামীকে সভাপতি, কুলাউড়া সরকারি কলেজের প্রভাষক মো. জসীম উদ্দিনকে সাধারণ সম্পাদক, বড়লেখা সরকারি কলেজের প্রভাষক ঋষিকেশ দাশকে সাংগঠনিক সম্পাদক এবং রাজনগর সরকারি কলেজের প্রভাষক সৈয়দা শাহ লতিফা আক্তারকে মহিলা বিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত করে ২১ সদস্য বিশিষ্ট সরকারি কলেজ শিক্ষক সমিতি (সকশিস) মৌলভীবাজার জেলা কমিটি গঠন করা হয়।
প্রধান অতিথি কামরুল ইসলাম সবুজ জানান, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আসন্ন জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে সকশিস-এর উদ্যোগে আগামী শীতে ঢাকায় ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু অলিম্পিয়াড’ আয়োজনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

কমলগঞ্জে কাল বৈশাখী ঝড়ে দু’শতাধিক ঘর বিধ্বস্ত ॥ রেল ও সড়ক যোগাযোগ বন্ধ ॥ বিদ্যুৎ ব্যবস্থা লন্ডভন্ড

 কমলকুঁড়ি রিপোর্ট


মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কাল বৈশাখী ঝড়ে উপজেলার পতনউষার, শমশেরনগর, মুন্সিবাজার ও পৌরসভার এলাকায় দুইশতাধিক ঘর বিধস্ত হয়েছে। উপড়ে পড়েছে হাজারো গাছ পালা। ১১ কেভির প্রায় ১০০টি স্থানে গাছ ভেঙে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা লন্ডভন্ড হয়ে পড়েছে। কমলগঞ্জ-কুলাউড়া সড়কে শমশেরনগর এয়ারপোর্ট রোডে ব্যাপক পালা গাছ পড়ায় সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। এছাড়া লাউয়াছড়া পাহাড়ে রেল লাইনের উপর গাছ পড়ায় রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। ঢাকাগামী পারাবত এক্সপ্রেস ও সিলেটগামী আন্তনগর পাহাড়িকা এক্সপ্রেস ট্রেন শ্রীমঙ্গল ও কুলাউড়া ষ্টেশনে আটকা পড়েছে। বিদ্যুৎ লাইন লন্ডভন্ড হয়ে যাওয়ার করণে বিদ্যুৎহীন ছিল পুরো কমলগঞ্জ। এছাড়া বজ্রপাতে পতনঊষার ইউনিয়নে এক কৃষকের ৪০ হাজার টাকার মহিষ মৃত্যু হয়েছে। ঝড়ের সাথে ছিল বিকট শব্দের বজ্রপাত। এতে উপজেলাবাসী আতঙ্কিত হয়ে পড়েন।


জানা যায়, রোববার (২৮ এপ্রিল) দুপুরে কাল বৈশাখীর ঝড়ে পতনউষার ইউনিয়নে পতনউষার, শ্রীরামপুর, চন্দ্রপুর, ধোপাটিলা, রসুলপুর, বৃন্দাবনপুর, দক্ষিনপল্কীসহ ১০টি গ্রামের বাড়িঘর ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। রাস্তার গাছপালা উপড়ে পড়ে। পতনউষারের বিভিন্ন এলাকায় পল্লী বিদ্যুৎ এর ১১ কেভি লাইন ছিড়ে পড়েছে। এছাড়া পতনউষার গ্রামের আলাল মিয়া, দক্ষিনপল্কী গ্রামের বিধবা মহিলা আগুরী বিবিসহ প্রায় ২০টি ঘর সম্পূর্ণ বিধস্ত হয়। অপরদিকে একই সময় শমশেরনগর, মুন্সিবাজার ও কমলগঞ্জ পৌরসভায় ঝড়ে দু’শতাধিক ঘর সম্পূর্ণসহ শতাধিক বাড়িঘর বিধস্ত হয়। কমলগঞ্জ আব্দুল গফুর চৌধুরী মহিলা কলেজে আধাপাকা একাডেমিক ভবনের টিন ছাউনিসহ পৌরসভার ৫, ১, ২ নং ওয়ার্ডের ঘরের টিন উড়িয়ে নিয়েছে। কয়েক শতাধিক গাছ পালা উপড়ে পড়েছে। গ্রামঞ্চলের বিদ্যুত এর তার ছিড়ে পড়েছে। ৩টি ইউনিয়নে শতাধিক ঘর আংশিক বিধস্ত হয়েছে। এছাড়া প্রায় শতাধিক স্থানে বিদ্যুৎ লাইনের তার ছিড়ে পড়েছে। ঝড়ে বেশি গাছপালা বিধস্ত হয়েছে শমশেরনগর এলাকায়। বিমান ঘাটি এলাকার কুলাউড়া সড়কের উপর অধর্শতাধিক গাছ পালা ভেঙ্গে পড়ে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।
পতনউষার ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান নারায়ন মল্লিক সাগর জানান, তার ইউনিয়নে ঝড়ে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। প্রায় দুই শত বসতঘর ক্ষতিগ্রস্ত ও কোটি টাকার গাছপালার ক্ষতিসাধন হয়েছে। তিনি সরেজমিনে পরিদর্শন করেছেন। বিধস্ত ঘর হওয়ায় খোলা আকাশে বসবাস করছেন ক্ষতিগ্রস্তরা।


বাংলাদেশ রেলওয়ে শ্রীমঙ্গল জোনের উপসহকারী প্রকৌশলী মনির হোসেন ট্রেন আটকা পড়ার বিষয়টি স্বীকার করেন।
কমলগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম মোবারক হোসেন জানান, ঝড়ে ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। প্রায় শতাধিক স্থানে তার ছিঁড়ে গেছে। বিদ্যুৎ ব্যবস্থা স্বাভাবিক করতে ১ দিন লেগে যাবে।
কমলগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমর্কতা মো. আছাদুজ্জামান বলেন, তিনি সরেজমিনে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করছেন। ঘরের তালিকা দেয়ার জন্য চেয়ারম্যানদের বলা হয়েছে।
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) সুমি আক্তার বলেন, বিষয়টি তিনি জানেন। তবে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা আসলে পরে ব্যবস্থা করা হবে।

প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ॥ কুলাউড়ায় স্কুলছাত্রীকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে জখম

আহত স্কুলছাত্রী ও আটক বখাটে।

কুলাউড়া থেকে সংবাদদাতা :
কুলাউড়ায় প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় স্কুলছাত্রীকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে জখম করেছে এক বখাটে। স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে বখাটের বর্বর হামলার শিকার হয় ৮ম শ্রেণির ছাত্রী ছামিরা আক্তার (১৪)। সে জয়চন্ডী ইউনিয়নের মীরশংকর এলাকার মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী সরফ উদ্দিনের মেয়ে।
শনিবার (২৭ এপ্রিল) কুলাউড়া উপজেলার ঘাটেরবাজারের পাশে বিকাল ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
আশঙ্কাজনক অবস্থায় শিক্ষার্থীকে প্রথমে কুলাউড়া হাসপাতালে ও পরে সিলেটে ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। হামলাকারী বখাটে জুয়েল (১৯)কে গণধোলাই দিয়ে পুলিশের নিকট সোপর্দ করেছে স্থানীয় লোকজন।
আহত শিক্ষার্থী ছামিরার চাচা মুজিবুর রহমানসহ প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উপজেলা সদরের আল-হেরা ইসলামী ক্যাডেট স্কুল এন্ড কলেজের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী ছামিরা আক্তার স্কুলে ক্লাস শেষে বাড়ি ফেরার পথে সাদিপুর গ্রামের বকুল মিয়ার বখাটে পুত্র জুয়েল বটি দা (স্থানীয় ভাষায় আইদা) দিয়ে পূর্বপরিকল্পিতভাবে অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় ছামিরার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে কুলাউড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় সিলেট ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।
এদিকে ঘটনাস্থলে এগিয়ে আসা লোকজন বখাটে জুয়েলকে দাসহ আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশের নিকট সোপর্দ করে। পুলিশ জুয়েলকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।
ছামিরার চাচা আরো জানান, ছামিরাকে আগে থেকেই জুয়েল উত্যক্ত করতো। সে স্থানীয় সপ্তগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করতো। কিন্তু জুয়েলের কারণে তাকে স্কুল পরিবর্তন করে কুলাউড়া আল-হেরা ইসলামী ক্যাডেট স্কুল এন্ড কলেজে ভর্তি করা হয়। সে সময় জুয়েলের বিরুদ্ধে থানায় একটি সাধারণ ডায়রিও করা হয়েছিলো।
কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নুরুল হক জানান- ‘মাথার ডান থেকে পেছনের দিকে কোপ মেরেছে। এতে শিক্ষার্থীর ডান কান অর্ধেকটা ঝুলে গেছে। পেছন দিকে কোপের গভীরতা ২ ইঞ্চি পরিমাণ। আহত শিক্ষার্থীর অবস্থা আশঙ্কাজনক।’
কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ ইয়ারদৌস হাসান বখাটে জুয়েলের আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান- ‘তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। শিক্ষার্থীর পরিবার থেকে অভিযোগ পাওয়ার পর মামলা দায়ের করা হবে।

মৌলভীবাজারে পুলিশের সঙ্গে বন্দুক যুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নিহত আহত ৩ পুলিশ

মৌলভীবাজারে পুলিশের সঙ্গে বন্দুক যুদ্ধে নিহত মাদক ব্যবসায়ী ও আহত একজন।

মৌলভীবাজার থেকে সংবাদদাতা :
মৌলভীবাজারে গোয়েন্দা সংস্থা ডিবি পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুক যুদ্ধে মুহিবুর রহমান জিতু (২৭) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে।
শনিবার (২৭ এপ্রিল ) ১২টার দিকে মৌলভীবাজার ও কুলাউড়া সড়কের রায়শ্রী নামক এলাকায় এই ‘বন্দুক যুদ্ধে’র ঘটনা ঘটে।
এ ঘটনায় ৩ ডিবি পুলিশ আহত হয়েছেন। এ সময় ইয়াবাসহ বেশ কিছু দেশীয় অন্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ।
নিহত জিতু তার বাড়ি চাঁদনীঘাট ইউনিয়নে নিমারাই গ্রামে বাসিন্দা। বর্তমানে মৌলভীবাজারের শহরের বেরিরচড় এলাকায় বাসা নিয়ে বসবাস করেন।
আহত তিন পুলিশ হলেন, উপ-পরিদর্শক মুবিন উল্লাহ (৪৫), কনস্টেবল কবির আহমদ (৪৪), কনস্টেবল সোহেল মিয়া (৪০)।
মৌলভীবাজার মডেল থানার ওসি মো.আলমগীর হোসেন এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন,ঘটনাস্থল একটি পাইপগান, এক রাউন্ড গুলি, তিনশতাধিক ইয়াবা, রাম দা উদ্ধার করা হয়েছে।

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ

গত  ১৮ এপ্রিল ২০১৯ খ্রিঃ তারিখের দৈনিক শ্যামল সিলেট ও বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকায় “কমলগঞ্জে বিদ্যালয়ে কোচিং, সাংবাদিক দেখে শিক্ষকের পলায়ন” শীর্ষক  সংবাদটি আমাদের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। আমাদের স্বনামধন্য বিদ্যাপীঠ দয়াময় সিংহ উচ্চ বিদ্যালয়ে কোন কোচিং করানো হয়নি। প্রকাশিত সংবাদে শহিদুল ইসলাম খান নামে ইসলাম ধর্মশিক্ষার একজন শিক্ষককে সাংবাদিক দেখে পালিয়ে গেছেন বলে উল্লেখ করলেও তিনি ঐদিন বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত ছিলেন। তিনি এইচএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রের ডিউটিতে কমলগঞ্জের আব্দুল গফুর চৌধুরী মহিলা কলেজে ছিলেন। সংবাদটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। প্রতিদিন বিদ্যালয় ছুটি শেষে বিষয়ের উপর বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষেই কোচিং করান বলে যে তথ্য প্রকাশিত হয়েছে তা সম্পূর্ণ বানোয়াট। বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক মাহমুদুল হাসান মাসুদকেও কোচিং চালিয়ে যেতে দেখা যায় বলে যে অভিযোগ প্রকাশ হয়েছে তা সঠিক নয়। মূলত ঐ শিক্ষক শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অনুমতিক্রমে পাঁচজন দুর্বল শিক্ষার্থীকে গণিত বিষয়ে ধারণা দিচ্ছিলেন। আমাদের বিদ্যালয়ে কখনো কোচিং বাণিজ্য হয়নি। এছাড়া প্রকাশিত সংবাদে যে ছবিগুলো ব্যবহার করা হয়েছে তা কিছুটা কম্পিউটার ম্যাকানিজম করা। যা প্রকৃত ছবির সাথে মিল নয়। এ বিদ্যালয়টি একটি ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয় হিসাবে সুনাম রয়েছে।

প্রকাশিত সংবাদে আরও উল্লেখ করা হয়েছে যে, শিক্ষকরা বিভিন্ন বিষয়ের উপর নোট না দিয়ে কোচিং ক্লাসে পড়ান বলে যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে তা সম্পূর্ণ মনগড়া। শ্যামল সিলেট ও অন্যান্য অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদে আমাদের প্রতিষ্ঠানের দীর্ঘদিনের সুনাম ও ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে। তাই আমরা প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছি।

রুপেন্দ্র কুমার সিংহ                                                                      প্রভাত কুমার সিংহ

সভাপতি                                                                                   প্রধান শিক্ষক/সম্পাদক

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি                                                            দয়াময় সিংহ উচ্চ বিদ্যালয়, কমলগঞ্জ, মৌলভীবাজার

দয়াময় সিংহ উচ্চ বিদ্যালয়, কমলগঞ্জ, মৌলভীবাজার

 

বন্যপ্রাণীর বিচরণে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের ভেতরদিয়ে প্রবাহিত সড়কপথ অন্যত্র সরিয়ে নেয়া উচিত। – জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান

 

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট


মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার হীড বাংলাদেশ কনফারেন্স রুমে ‘ইকোলজি এন্ড কনজারভেশন অব হুল্লুক গিবন ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় তিন দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালার শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে কর্মশালার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. আব্দুল আলীম এর সভাপতিত্বে ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. হাবিবুন নাহার এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. সেলিম ভূঁইয়া, বন্যপ্রাণি ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আবু মুছা শামসুল মোহিত চৌধুরী, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে হুল্লুক গবেষণা ও প্রকল্প বিষয়ে সচিত্র উপস্থাপনা করেন সংযুক্ত আরব আমিরাত বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ও প্রকল্প উপ-পরিচালক ড. সাবির বিন মুজাফ্ফর। কর্মশালা উদ্বোধনের মধ্যদিয়ে অধ্যাপক ড. হাবিবুন নাহার এর নেতৃত্বে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৪ সদস্যের একটি দল লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান এলাকায় হুল্লুকের উপর গবেষণা পরিচালনা করবে।
প্রধান অতিথির বক্তৃতায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলেন, বিলুপ্তপ্রায় উল্লুকসহ বন্যপ্রাণীর বিচরণে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত সড়কপথ অন্যত্র সরিয়ে নেয়া উচিত। তাছাড়া প্রাচীন আমল থেকে সিলেট-আখাউড়া সড়কে প্রবাহিত রেলপথের লাউয়াছড়া উদ্যানের ভেতরের রেলপথকে আন্ডারপাস ও ঘন বনাঞ্চল এলাকার রেলপথকে স্থানান্তর করা যেতে পারে।
ড. সাবির বিন মুজাফ্ফর গবেষণা বিষয়ে উপস্থাপনায় বলেন, বন ফাঁকা হলে বন্যপ্রাণি খাবার ও আবাসস্থল সংকটে ছড়িয়ে পড়ে। ২০০১ সনে হুল্লুক নিয়ে গবেষণা বিষয়ে কাজ শুরু করার পর ২৮২টির সন্ধান পাওয়া যায়। অথচ ১৯৮০ সনে ধরা হতো ১ লাখ ৭০ হাজার ও ২০১০ সালে নেমে আসে ৩ থেকে ৫ হাজারে।

কমলগঞ্জে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত


মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে যথাযোগ্য মর্যাদা ও বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন করা হয়। মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) প্রত্যুষে ৩১ বার তোপধ্বনির পর কমলগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে দিবসটির কর্মসূচী শুরু হয়। ভোর সাড়ে ৬টায় শমশেরনগর, কামুদপুর ও দেওড়াছড়া বধ্যভূমিতে পুষ্প স্তবক অর্পণ করা হয়। সকাল সাড়ে ৭টায় বীর শ্রেষ্ঠ সিপাহী হামিদুর রহমানের স্মৃতিসৌধে পুষ্প স্তবক অর্পণ করা হয়। সকাল ৮টায় কমলগঞ্জ সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক মো: রফিকুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক ও কমলগঞ্জ থানার ওসি মো: আরিফুর রহমান। পরে সারাদেশের সাথে একযোগে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন, কুচকাওয়াজ, স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহনে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।


দুপুর ১২টায় কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হকের সভাপতিত্বে এবং এডভোকেট মো: সানোয়ার হোসেনের সঞ্চালনায় বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের তাৎপর্য্য এবং উন্নয়ন অগ্রগতি বিষয়ে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ সদস্য অধ্যক্ষ মো: হেলাল উদ্দিন, মুন্সীবাজার ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোতালিব তরফদার, সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল মোমিন তরফদার, অধ্যক্ষ মো: নুরুল ইসলাম। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা নির্মল কান্তি দাস, রিয়াজ উদ্দিন, জয়নাল আবেদীন, কমলগঞ্জ সাংবাদিক সমিতির সভাপতি আব্দুল হান্নান চিনু, কমলগঞ্জ প্রেসক্লাবের সহ- সভাপতি প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের আহবায়ক আজিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মন্জুর আহমদ আজাদ মান্না প্রমুখ। সভায় বক্তারা চাকুরীক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধা কোটার যথাযথ বাস্তবায়ন ও সকল ইউনিয়ন পরিষদের সামনে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামের তালিকা টানানোর দাবী জানান।
এদিকে দিবসটি উপলক্ষে মঙ্গলবার দুপুরে কমলগঞ্জ থানার আয়োজনে কমলগঞ্জ সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এক কাবাডি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। পরে কমলগঞ্জ থানার ওসি মো: আরিফুর রহমানের সভাপতিত্বে ও প্রধান শিক্ষক মোশাহীদ আলীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার (শ্রীমঙ্গল সার্কেল) মো: আশরাফুজ্জামান। মঙ্গলবার বিকালে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে এক প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। সন্ধ্যায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশত হয়।

মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষেকমলগঞ্জের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে মুক্ত হলো ১১টি বন্যপ্রাণী


কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে বিপন্ন ১১টি বন্যপ্রাণী অবমুক্ত করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ১১টায় লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের আমতলী নামক স্থানে ৩টি অজগর সাপ, ১টি মেছো বাঘ, ১টি বন বিড়াল, ১টি গন্ধ গোকুল, ১টি তক্ষক, ২টি সরালি হাঁস, ২টি বেগুনী কালিম পাখি অবমুক্ত করা হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রাণীগুলো অবমুক্ত করেন বিজিবি শ্রীমঙ্গল সেক্টরের সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল মো. জোবায়ের হাসনাৎ পিএসসি। এসময় উপস্থিত ছিলেন ৪৬ বিজিবি অধিনায়ক লে. কর্ণেল মো. আরিফুল হক, মৌলভীবাজার সহকারী বন সংরক্ষক (বন্যপ্রাণী) মো. আনিসুর রহমান, সহকারী বন সংরক্ষক জিএম আবু বকর সিদ্দিক, লাউয়াছড়া বিট অফিসার মো: আনোয়ার হোসেন, বাংলাদেশ বন্যপ্রানী সেবা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সিতেশ রঞ্জন দেব, পরিচালক সজল দেব, শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বিকুল চক্রবর্তী, বৃহত্তর আদিবাসী ফোরামের মহাসচিব ফিলা পত্মি প্রমুখ। এসময় লাউয়াছড়ায় একটি বটবৃক্ষের চারা রোপন করেন অতিথিরা।
বাংলাদেশ বন্যপ্রানী সেবা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সিতেশ রঞ্জন দেব বলেন, অবমুক্ত করা প্রাণীগুলো বিভিন্ন সময় এতদ্ অঞ্চলের লোকালয়ে মানুষের হাতে ধরা পড়ে। আমরা এগুলোকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে সুস্থ করে আবার তার আবস্থলে অবমুক্ত করেছি। প্রতিবছরই আমরা স্বাধীনতা দিবসে বন্যপ্রাণীদের স্বাধীন জীবনে ফিরিয়ে দেই।

মৌলভীবাজারে ইয়াবা সহ (ডিবি) পুলিশের হাতে আটক ২

মৌলভীবাজার জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশের বিশেষ অভিযানে ১১৫ পিছ ইয়াবা সহ ২ জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়। (২৫ শে মার্চ) মঙ্গলবার বিকাল ৪:৪৫ মিনিটের সময় শ্রীমঙ্গল থানাধীন ভলুচড়া গ্রীন গ্যালস টি রিসোর্ট এর গেইটের সামনের রাস্তা থেকে জেলা গোয়েন্দা শাখার  ওসি বিনয় ভূষণ রায়ের নেতৃত্বে মাদক ব্যবসায়ীদের আটক করা হয়।

মাদক ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম (৩০) কাছ থেকে ৬০ পিছ ইয়াবা সহ আটক করা হয়। তার  পিতা মো: আব্দুল খালেক, সাং আলীসারফুল, শ্রীমঙ্গল মৌলভীবাজার। মো: শরীফ মিয়া (২২) কাছ থেকে ৫৫ পিছ ইয়াবা সহ আটক করা হয়। তার পিতার নাম, শায়েস্তা মিয়া সাং উওরসুর, শ্রীমঙ্গল মৌলভীবাজার। মৌলভীবাজার জেলা গোয়েন্দা শাখার এসআই মুমিন উল্ল্যাহ জানান, গোপন সংবাদের বিত্তিতে ঘটনাস্থল থেকে নজরুল ইসলাম ও মো: শরীফ মিয়াকে ১১৫ পিছ ইয়াবা সহ আটক করা হয়। দীর্ঘ দিন ধরে তারা মাদক ব্যবসায় জড়িত।

শ্রীমঙ্গলে আন্তর্জাতিক বন দিবস পালিত

শ্রীমঙ্গল সংবাদদাতা

বন বনানী জানি জানাই, ভালোবেসে বনকে বাঁচাই, এই প্রতিপাদ্যের মধ্য দিয়ে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে পালিত হলো আন্তর্জাতিক বন দিবস ২০১৯।

বৃহস্পতিবার (২১ মার্চ) সকাল ১০ঘটিকায় বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ মৌলভীবাজার এর আয়োজনে ও পাহাড় রক্ষা উন্নয়ন সোসাইটির সহযোগিতায় এক পথ শোভাযাত্রা শ্রীমঙ্গল শহরে বের করা হয়।

শোভাযাত্রায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আবু মুসা শামসুল মোহিত চৌধুরী।

এতে আরও উপস্থিত ছিলেন পাহাড় রক্ষা উন্নয়ন সোসাইটির সভাপতি সালাউদ্দিন আহমেদ, সহকারী রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. আলী,লাউয়াছড়া বিট কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন, ইকো ট্যুর গাইড সাজু মারছিয়াং, দ্বীপ শিখা প্রি ক্যাডেট এ্যান্ড হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক সুরঞ্জনা সিনহা ও স্কুলের শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক বৃন্দ।