সদ্য সংবাদ

পুরাতন সংবাদ: May 2019

ট্রেনে হিজড়াদের অত্যাচার সীমা ছাড়িয়েছে

 

সালাহ্উদ্দিন শুভ

 

হিজড়াদের দ্বারা হয়রানির শিকার হয়নি, এমন মানুষ খুব কম আছে। এটা জানা কথা যে, হিজড়ারা সাধারণ মানুষকে কম-বেশি হয়রানি করে থাকে। ইদানীং হিজড়ারা বেশি আক্রমণাত্মক হয়ে উঠেছে।

হঠাৎ করেই এসে টাকা দাবি করে। না দিতে চাইলে অশ্নীল ভাষা, ধাক্কাধাক্কি, সবার সামনে নগ্ন হতে চাওয়াসহ বিভিন্ন অশ্নীল আচরণ ও তুমুল হট্টগোল সৃষ্টি করে। সিলেটের সহ সারা দেশের সাধারণ মানুষ এভাবেই হিজড়াদের দ্বারা নিপীড়িত হয়ে আসছে। ব্রিজমোড় ও বাস ট্রেন বিভিন্ন রেল ষ্টেশনে এদের বেশি দেখা যায়। ফলে বিভিন্ন গন্তব্যের যাত্রীরা এদের দ্বারা সবচেয়ে বেশি অত্যাচারিত হচ্ছে।

রেল ষ্টেশনে ট্রেন থামলেই হিজড়ারা ট্রেন উঠে এবং টাকা দাবি করে। ২০ টাকা চাইলে ২০ টাকাই দিতে হবে, কম নেবে না। এভাবে সাধারণ মানুষের ওপর তারা জুলুম চালায়। মান-সম্মানের ভয়ে সাধারণ মানুষ তাদের টাকা দিতে বাধ্য হয়। ছাত্ররাও এদের হাত থেকে রেহাই পায় না।

হৃদয় ইসলাম নামে এত যাত্রী অভিযোগ করে বলেন,আমি আমার পরিবারের সবাইকে নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাই,শায়েস্তাগঞ্জ ষ্টেশনে ট্রেন দাড়া করায় তখন দেখি আমার পরিবারের সবার সাথে এই হিজরাদের দেখি আমার পরিবারের সাথে খারাপ আচরন করছে,আমি প্রথমে তাদের অবস্হটা দাড়িয়ে দেখি,যখন দেখলাম ওরা একটু বেশি করে ফেলছে,তখন আমি বাদা দেই,তখনই আমার শরীলে হাত দিয়ে খারাপ আচরন শুরু করে,বলে তুই টাকা দিবে কি না বল,তখন সম্মানের দিকে তাকিয়ে আমি বাধ্য হয়ে তাদেও টাকা দিতে হয়েছে।

সরকার হিজড়াদের বসবাসের জন্য ঘরবাড়ি নির্মাণ ছাড়াও অর্থিকভাবে সহায়তা করছে। তারপরও এদের অত্যাচার ও চাঁদাবাজি থামছে না।এক শ্রেণীর মানুষ হিজড়াদের এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে হিজড়া সেজে বড় অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।

সাধারণ মানুষের ভোগান্তি কমাতে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করে কর্তীপক্ষ কার্যকর পদক্ষেপ নেবেন, এটাই প্রত্যাশা করেন সাধারন মানুষ।

শোক সংবাদ॥ ম্ুিক্তযোদ্ধা মনিন্দ্র বাউরী ॥

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার আলীনগর চা বাগানের বড়লাইন এলাকার বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা মনিন্দ্র বাউরী (৭২) গত বুধবার (২২) মে দিবাগত রাত ২ টা ২০ মিনিটের সময় বার্ধক্যজনিত কারণে তিনি নিজ বাড়ীতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৩ ছেলে, ১ মেয়ে, নাতি নাতনীসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন ও গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। বৃহস্পতিবার বেলা ১ টায় আলীনগর চা বাগান নাচ ঘর প্রাঙ্গনে মনিন্দ্র বাউরীর মরদেহে কমলগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলী প্রদান করা হয়। পরে তাকে পুলিশের পক্ষ থেকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. রফিকুর রহমান, কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক, কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান রামভজন কৈরী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বিলকিস বেগম, কমলগঞ্জ থানার ওসি (তদন্তÑ সুধীন চন্দ্র দাস, মুক্তিযোদ্ধা আরশাদ আলী, কমলগঞ্জ সাংবাদিক ফোরাম সাধারণ সম্পাদক শাহীন আহমেদ, আলীনগর চা বাগান সহকারী ব্যবস্থাপক মনির হোসেন প্রমুখ। পরে বেলা ২ টায় আলীনগর চা বাগানস্থ ইটখলায় মনিন্দ্র বাউরীকে সমাহিত করা হয়।—– কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি।

কমলগঞ্জে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দায়ে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায়

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি:
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিযনেরর পদ্মছড়া চা বাগানে পাহাড়ি ছড়া থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করায় প্রায় ৩০০ ঘনফুট বালু জব্দ করা হয়েছে। অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দায়ে মছব্বির মিয়া এক ব্যক্তিকে নগদ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন নির্বাহী হাকিম ও কমলগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুমী আক্তার। বৃহস্পতিবার বেলা ১টায় বালু জব্দ করে জরিমানা করা হয়।
কমলগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, বেশ কিছু দিন ধরে কমলগঞ্জে ধলাই নদীসহ বিভিন্ন পাহাড়ি ছড়া থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের গুঞ্জন চলছিল। গত ২ সপ্তাহ আগেও ধলাই নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে পরিবহনের সময় বালু ভর্তি একটি ট্রাক জব্দ করা হয়েছিল। বৃহস্পতিবার নির্বাহী হাকিম সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুমী আক্তার আকস্মিকভাবে পদ্মছড়ায় ভ্রাম্যমাণ আদারত পরিচালনা করে অবৈধভাবে উত্তোলিত ৩০০ ঘনফুট বালু জব্দ করেন। সাথে সাথে বালু উত্তোলনকারী মছব্বির মিয়াকে নগদ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।
কমলগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুমী আক্তার বালু জব্দ ও নগদ জরিমানার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

কমলগঞ্জে বিদ্যুতায়িত হয়ে ওয়েল্ডিং শ্রমিকের মৃত্যু

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি:
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুরে বিদ্যুতায়িত হয়ে কামরুল ইসলাম (১৮) নামে এক ওয়েল্ডিং শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। সে ভানুবিল গ্রামের মছদ্দর মিয়ার ছেলে। বৃহস্পতিবার বেলা আড়াইটায় আদমপুরের উত্তরগাঁওয়ের সুভাস সিংহের বাড়িতে এ ঘটনাটি ঘটে।
জানা যায়, উত্তরগাঁও এর সুভাস সিংহের বাড়িতে ওয়েল্ডিং -এর মাধ্যমে একটি রড কাটতে গেলে বিদ্যুতায়িত হয়ে গুরুতরভাবে আহত হয় কামরুল। সাথে সাথে তাকে উদ্ধার করে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে স্বজনরা তার মৃত দেহ নিয়ে বাড়ি ফিরে যান।
আদমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবদাল হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

কমলগঞ্জে ইফতারের বাজার :মেয়ের বাড়ির ইফতার নিয়ে ব্যাপক বেচাকেনা, চাহিদা মুম্বাই জিলাপি, বিরিয়ানি ও আর খিচুড়ির

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি:
বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলে বিয়ের পর থেকে প্রতি বছরই বাবার বাড়ি থেকে বেশ আয়োজন করে মেয়ের বাড়ি ইফতার সামগ্রী পাঠানো হয়। যুগ যুগ ধরে এ প্রথা চলে আসছেই। মেয়ের বাবার বাড়ি স্বচ্ছল হোক আর অস্বচ্ছল হোন রমজান মাসে বিভিন্ন উপাদান সামগ্রী দিয়ে ইফতার পাঠাতেই হবে। এসময় পুরো রমজান মাস জুড়ে গড়ে উঠে মৌসুমী ইফতার সামগ্রী বিক্রেতাদের দোকান। এখন মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে মেয়ের বাড়ির ইফতার নিয়ে ব্যাাপক বেচাকেনা চলছে।
ইফতার সামগ্রীর মাঝে বিভিন্ন মুখরোচক খাবারের সাথে বেশী চাহিদা দেখা গেছে মুম্বাই জিলাপি,বিরিয়ানি ও বুনা খিচুড়ির। ইফতারের দোকানে বসে খেতে আবার নরম খিচুড়ির চাদিা বেশী লক্ষ্য করা গেছে।
কমলগঞ্জর বড় বাজার শমশেরনগর বাজারের স্থানীয় দোকান মৃদুল হোটেল রেস্তুরা, ভাই ভাই হোটেল, আলী ফুডস, জয়গুরু ফুডস, কুমিল্লা হোটেলসহ বিভিন্ন মৌসুমী ইফতার সামগ্রীর দোকানে মালিক ও কর্মচারীরা বেস্ত ইফতার সামগ্রী বিক্রি নিয়ে। বৃহস্পতিবার বেলা ২টায় মৃদুল হোটেল রেস্তুরায় গিয়ে দেখা যায় শুধুমাত্র মেয়ের বাড়ির ইফতার বিক্রিতে তারা ব্যস্ত।
দোকানের টাঙানো মূল্য তালিকায় দেখা যায় সাদা মিষ্টি প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৭০ টাকা,লাল ও সাদা মিলে ১৫০ টাকা, ১নং নিমকি ১২০ টাকা, সাধারণ নিমকি ১০০ টাকা, জিলাপি বড় (মুম্বাই জিলাপি) ১০০ টাকা, জিলাপি ছোট) ৮০ টাকা, দই ১৬০ টাকা, বিরিয়ানি ১৬০ টাকা, খিচুড়ি (বুনা খিচুড়ি) ১০০ টাকা ভাজি চানা (ছোলা ভাজি) ১২০ টাকা, কাঁচা চানা ১২০ টাকা,পিয়াজু ১২০ টাকা, শাক বড়া ১৪০, আলুর চপ ১২০ টাকা বেগুনি ২০০ টাকা ও জালি বড়া ১৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
দোকানী হাজী আকমল হোসেন বলেন রমজানের প্রথম দিকে সাধারণ রোজাদাররা ইফতার কিনে বাড়ি নিয়েছেন। এখন রমজান যতই বাড়ছে মেয়ের বাড়ির ইফতার সরবরাহের কাজে তারা এখন ব্যস্ত। তিনি আরও বলেন, দোকানে বসে যারাই ইফতার করেন তাদের চাহিদা বেশী নরম খিচুড়ির। আর মেয়ের বাড়ির ইফতারে মিষ্টি নিমকি, মুম্বাই জিলাপি আর বিরিয়ানির চাহিদা বেশী। প্রতিদিন গড়ে এ দোকানে দেড়’শ থেকে দুই’ শ কেজি মিষ্টি বিক্রি করছেন। কোন দিন ৫০০ কেজিও বিক্রি করতে হয়।
একই অবস্থা দেখা যায় শমশেরনগর স্টেশন রোডের ভাই ভাই হোটেল, কুমিল্লা হোটেল, আলী ফুডস ও মৌসুমী দোকান গুলিতে। আর শুধু মাত্র মিষ্টি, নিমকি,লবঙ্গ ও প্যাড়া মিষ্টি বিক্রি করছেন জয়গুরু ফুডস।
কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদ এলাকায় শাহজালাল হোটেল, ভানুগাছ বাজারে গ্রামের বাড়ি, রাজমহল, পানাহার, রাধুনী ও আল আকাবায়ও ইফতার সামগ্রী বিক্রিতে এখন ব্যস্ত দোকান মালিক ও কর্মচারীরা। কমলগঞ্জের আদমপুর, পতনউষার ও মুন্সীবাজারেও ইফতারের বাজার জমজমাট। ইফতার সামগ্রীর সাতে আরও যুক্ত রয়েছে খেজুর, আঙ্গুর আপেল ও আম।
মেয়ের বাবা জয়নাল আবেদীন বলেন, বিয়ে দিলেই মেয়ের সাথে সম্পর্ক শেষ হয় না। তার সাথে ও তার শ্বশুর বাড়ির সাথে সম্পর্ক আরও দৃঢ় হয় রমজানে ইফতার ও মধু মাসে আম কাঁঠালি দিয়ে। দেওয়া কোন বাধ্যবাধকতা না হলেও দিতে হয় আন্তরিকতার কারণে। আর বছরের পারিবারিক বাজেটে এর হিসেব ধরে রাখতে হয়।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিন চৌধুরী আর নেই

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার ০২নং পতনঊষার ইউনিয়নের ০৬ নং ওয়ার্ডের নোয়াগাঁও গ্রামের বাসিন্দা ৭১ এর রনাঙ্গনের বীর মুক্তিযোদ্ধা অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য আব্দুল মতিন চৌধুরী সোমবার (২০ মে) সন্ধ্যা ৭:৩০ মিনিটে নিজ বাড়িতে মৃত্যু বরণ করেছেন। তিনি দীর্ঘ দিন ধরে বার্ধক্য জনিত রোগে ভোগছিলেন।
তিনি পতনঊষার ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো: সেলিম আহমেদ চৌধুরী, যুক্তরাজ্য প্রবাসী আতিকুর রহমান চৌধুরী ও যুক্তরাজ্য প্রবাসী শওকত চৌধুরীর পিতা।
মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৩ ছেলে, ১ মেয়ে, নাতী, নাতনী অসংখ্য আত্মীয় স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তাঁর মৃত্যুতে এলাকায় গভীর শোকের ছায়া নেমে আসে।

কমলগঞ্জে আফরোজ উদ্দীন ট্রাষ্টের উদ্যোগ ইফতার বিতরণ

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে আফরোজ উদ্দীন ট্রাষ্টের উদ্যোগে এলাকার গরীব ও দরিদ্র ৫শত পরিবারের মধ্য ইফতার সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। শনিবার সকাল ১১টায় নছরতপুর গ্রামের বাড়িতে ট্রাষ্টের পরিচালক মিসবা উদ্দীনের পরিচালনায় ইফতার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্টানে প্রধান অতিথি ছিলেন কুলাউড়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ কামরুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মোঃ জুয়েল আহমেদ। বক্তব্য রাখেন ট্রাষ্টি আফরোজ উদ্দীন, কাউন্সিলর জামাল হোসেন প্রমুখ। অনুষ্টানে সেমাই, তেল, পেয়াজ ও চিনিসহ প্রায় ৫শত পরিবারকে ইফতার সামগ্রী প্রদান করা হয়।

প্রচন্ড গরমে কমলগঞ্জে জনজীবন অতিষ্ঠ ॥ডায়রিয়া আমাশয়সহ নানা রোগ

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি:
গত কয়েকদিনের প্রচন্ড গরমে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে জনজীবন অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। উপজেলার চা বাগান সহ বিভিন্ন এলাকায় ডায়রিয়া, আমাশয় নিউমেনিয়াসহ নানা রোগের প্রকোপ দেখা দিয়েছে। তাপমাত্রা বৃদ্ধির সাথে সাথে বিদ্যুৎ সমস্যায় কমলগঞ্জের জনজীবনে দুর্ভোগ বয়ে আনে। দিনের খরতাপে আর রাতে ভ্যাপসা গরমে কমলগঞ্জে সাধারন মানুষ ভোগান্তির সম্মুখিন হয় । বিরুপ এ আবহাওয়ায় দেখা দিয়েছে ডায়রিয়া, আমাশয়, নিউমোনিয়া, ভাইরাস জ্বরসহ পানিবাহিত নানা রোগ।
গত কয়েকদিনে তাপমাত্রা ৩৫ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস উঠানামা করে। কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ প্রাইভেট চিকিৎসকদের চেম্বারে এ ধরনের রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। গরম আবহাওয়ায় পানি শূণ্যতার কারণে ডায়রিয়ার প্রকোপ দেখা দিয়েছে। কমবেশি সব বয়সের মানুষ ডায়রিয়া আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন আছেন। একই কারণে আমাশয় রোগেরও প্রকোপ দেখা দিয়েছে। শিশুরা ডাইরিয়াসহ নিউমোনিয়া, সর্দি, কাশিসহ শ্বাসকষ্ট রোগে ভোগছে।
কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র সেবিকা সীমা জানান, কয়েক সপ্তাহ ধরে প্রতিদিন ৮ থেকে ১০ জন করে ডায়রিয়া, আমাশয়, নিউমোনিয়া, শ্বাসকষ্ট রোগ নিয়ে প্রায় দেড় শতাধিক রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন । তবে এসকল রোগীদের মধ্যে শিশু ও মহিলা রোগীর সংখ্যা বেশী রয়েছে। অনেকে চিকিৎসা সেবা নিয়ে বাড়িতে ফিরে গেছেন। অনেকে বাড়ি থেকে পুনরায় হাসপাতালে ফিরেও আসছেন। প্রাইভেট চিকিৎসকরা জানান, আবহাওয়ার তারতম্যের কারনেই এসব রোগের প্রকোপ দেখা দিয়েছে।
কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ডা. সাজেদুল কবির বর্তমানে ডায়রিয়া, আমাশয়, নিউমোনিয়া ও শ্বাসকষ্ট রোগের প্রকোপের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সার্বক্ষনিক নজরদারী করছে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। তাই আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।

কমলগঞ্জে বিশ্ব মা দিবসে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে বিশ্ব মা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা রোববার (১২ মে) সকাল ১১টায় উপজেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। কমলগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়ের আয়োজনে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুমী আক্তার। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. রফিকুর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রামভজন কৈরী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বিলকিছ বেগম। রাইয়ান চৌধুরীর সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মধু ছন্দা দাস। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কমলগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি ও কমলকুঁড়ি পত্রিকার সম্পাদক পিন্টু দেবনাথ, দি এশিয়ান এইজ প্রতিনিধি মোনায়েম খান, ফরিদা পারভীন।

কমলগঞ্জে রৌপ্যকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলা অনুষ্টিত

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট


মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার রহিমপুর ইউনিয়নের কালেঙ্গা গ্রামে রৌপ্যকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ২০১৯ (সিজন২) গ্র্যান্ড ফাইনাল ও পুরুস্কার বিতরনী অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে। শুক্রবার বিকালে কালেঙ্গা বাজার সংলগ্ন মাঠে সাকু এফসিকে ৪-১ গোলে পরাজিত করে রুয়েজ ইউনিটি চ্যাম্পিয়ন হয়। খেলা শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামিলীগ নেতা মামুনুর রশীদ, প্রধান তত্বাবধায়ক ছিলেন কালেঙ্গা ১নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ রাসেল আলম। উক্ত ফুটবল টুর্নামেন্টে রেফারীর দায়িত্ব পালন করেন কে পি এস বিজয়। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেন ডিএফএ সদস্য মৌলভীবাজারের পরিচালক স্বাদ এন্ড কোং এর মোঃ জাহেদ আহমদ চেšধুরী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কালেঙ্গা ঈদগাহ জামে মসজিদের সভাপতি এম এ মুকিত, ১নং রহিমপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের সদস্য মুজিবুর রহমান (মুজিব), মেনজ ক্লাব. হোয়াইট সউল. কিডস জোন মৌলভীবাজার এর স্বত্তাধীকারী মোবারক হোসেন মজুমদার, মৌলভীবাজার অনলাইন প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল বাছিত খান, গাজী মামুনুর রশিদ, হাবিল আহমদ, পাপ্পু আহমেদ নিরব, শাকিল আহমদ, মিল্লাদ হোসেন, জুয়েল রানা, কাউসার আহমদ,শফিক আহমেদ, ইমন আহমেদ প্রমুখ।