সদ্য সংবাদ

পুরাতন সংবাদ: May 2019

নির্বাচনী আসনে সীমানা পরিবর্তন

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
2018-04-30--15_18_42

২৪ সংসদীয় আসনের সীমানায় পরিবর্তন এনে তিনশ সংসদীয় আসনের সীমানা চূড়ান্ত করেছে নির্বাচন কমিশন-ইসি।সোমবার কমিশন সভায় এ সীমানা চূড়ান্ত করা হয়। পরিবর্তিত আসনে একাদশ জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সভা শেষে নির্বাচন কমিশানর মো. রফিকুল ইসলাম সাংবাকিদের এ তথ্য জানান।

যেযব আসনে পরিবর্তন আসছে: নীলফামারি ৩ ও ৪, রংপুর ১ ও ৩, কুড়িগ্রাম ৩ ও ৪, সিরাজগঞ্জ ১ ও ২, খুলনা ৩ ও ৪, জামালপুর ৪ ও ৫, নারায়ণগঞ্জ ৪ ও৫, সিলেট ২ ও ৩, মৌলভীবাজার ২ ও ৪, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ৫ ও ৬, কুমিল্লা ৯ ও ১০ এবং নোয়াখালী ৪ ও ৫।

তবে ঢাকার সংসদীয় আসন অপরিবর্তিত রয়েছে।

আদমপুরে গরু চড়াতে গিয়ে বজ্রপাতে ৩টি গরুসহ ১ জন নিহত

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

unnamed

কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের উত্তরভাগ এলাকায় মাঠে গরু চড়াতে গিয়ে সোমবার দুপুরে বজ্রপাতে তিনটি গরু সহ হাজী আব্দুল মতলিবের পুত্র তমিজ উদ্দিন (২৩) নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

বিস্তারিত আসছে…

ছাত্রলীগ নেতা পান্নাকে জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি পদে পূণর্বহালের দাবিতে কমলগঞ্জে ছাত্রলীগের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

0002

সম্প্রতি ঘোষিত মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটিতে সহ-সভাপতি পদে স্থান হয়েছিল কমলগঞ্জের নির্যাতিত ছাত্রলীগ নেতা জাকির হোসেন পান্নার। ছাত্রদলের এক  নেতার সাথে থাকা একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোষ্ট হওয়ার পর জাকির হোসেন পান্নাকে জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। এ ঘটনার প্রতিবাদে জাকির হোসেন পান্নাকে স্বপদে পূন:বহালের দাবিতে শনিবার বেলা দেড়টায় কমলগঞ্জ উপজেলা চৌমুহনায় উপজেলা, কলেজ ও পৌর ছাত্রলীগের উদ্যোগে এক বিরাট মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।
কমলগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাকের আলী সজীবের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধন কর্মসুচীতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোশাহীদ আলী, উপজেলা শ্রমিকলীগের আহবায়ক হেলাল আহমদ, সদস্য সচিব মছব্বির মিয়া, নির্যাতিত ছাত্রলীগ নেতা জাকির হোসেন পান্না, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি আনোয়ার পারভেজ আলাল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহেদুল আলম, উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা ফয়ছল আহমদ,  সুমন আহমদ, রাসেল আহমদ, পৌর ছাত্রলীগ সভাপতি মিনহাজ নাসির, কলেজ ছাত্রলীগ সম্পাদক হাসান আহমদ, জাকের হোসেন প্রমুখ।

0001

মানববন্ধন কর্মসূচী পালনকালে কমলগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক সাকের আলীসহ বক্তারা বলেন, জাকির হোসেন পান্না আওয়ামী পরিবারের মানুষ। সে কখনো ছাত্রদলের সাথে যুক্ত ছিল না। স্থানীয় সামাজিকতায়  সে হয়তো জেলা ছাত্রদল আহবায়ক জাকির হোসেনের সাথে ছবি উঠতে পারে। সম্প্রতি ঘোষিত মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগের কমিটিতে কমলগঞ্জের এই মেধাবী ও ত্যাগী ছাত্রলীগ নেতা জাকির হোসেন পান্নাকে জেলা ছাত্রলীগের নবগঠিত কমিটিতে সহ-সভাপতি পদে নির্বাচিত করা হয়। এ সংবাদ প্রকাশের পরই আভ্যন্তরিন কোন বিরোধে কে বা কারা ছাত্রদল নেতার সাথে পান্নার পুরাতন এ ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে পোষ্ট করে। এ ছবি প্রকাশের পর মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটির সহ-সভাপতির পদ থেকে জাকির হোসেন পান্নাকে অব্যাহতি প্রদান করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। বক্তারা আরও বলেন, সরেজমিন তদন্তক্রমে পান্নাকে জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতির পদে পূন:বহাল করার দাবি জানান। বক্তারা ষড়যন্ত্র করে বাদ দেয়া সহ সভাপতি পদ অবিলস্বে ফিরিয়ে দিয়ে ছাত্রলীগের ঘাটিখ্যাত কমলগঞ্জের ছাত্র সমাজের প্রতি সন্মান জানানোর জন্য কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের প্রতি অনুরোধ করেন। অন্যতায় তারা আরও আন্দোলন কর্মসূচী ঘোষণা করবেন। সবশেষে ছাত্রলীগের একটি বিশাল বিক্ষোভ মিছিল কমলগঞ্জ উপজেলা সদরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

কমলগঞ্জে পুকুরে পড়ে শিশুর মৃত্যু

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

Pic 230

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে পুকুরে ডুবে দেড় বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার বিকালে উপজেলার রহিমপুর ইউনিয়নের লীপুর গ্রামে।
জানা যায়, ১নং রহিমপুর ইউনিয়নের লীপুর গ্রামের রনজিত মলিকের একামাত্র পুত্র দেড় বছরের শিশু ঋতিক মল্লিক বাড়ীর সকলের অজান্তে পুকুরে পড়ে যায়। অনেক খোঁজাখুজির পর পুকুরে ভেসে উঠলে সাথে সাথে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করেন। একমাত্র শিশু মৃত্যুবরণ করায় পিতা মাতা ও স্বজনরা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

কমলগঞ্জে জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস পালন

অঞ্জন প্রসাদ রায় চৌধুরী

02

“উন্নয়ন আর আইনের শাসনে এগিয়ে চলছে দেশ, লিগ্যাল এইডের সুফল পাচ্ছে সারা বাংলাদেশ” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে শনিবার সকাল ১১টায় কমলগঞ্জ উপজেলা লিগ্যাল এইড কমিটি ও সিলেট যুব একাডেমীর  আয়োজনে ইউসএআইডির জাস্টিস ফর অল প্রোগ্রাম-মৌলভীবাজার এর অর্থায়নে বর্ণাঢ্য র‌্যালি শেষে উপজেলা পরিষদ সভাকে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
কমলগঞ্জ উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুমি আক্তারের সভাপতিত্বে ও ইউসএআইডির জাস্টিস ফর অল প্রোগ্রাম-মৌলভীবাজার এর উপজেলা ব্যবস্থাপক কৃষান তালুকদার (সন্তু) এর সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশ নেন উপজেলা স্যানেটারী ইন্সপেক্টর মো: দুলাল মিয়া, সাংবাদিক প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ, কমলগঞ্জ প্রেসকাবের যুগ্ম আহবায়ক শাহীন আহমেদ, উপজেলা গ্রাম আদালতের উপজেলা সমন্বয়কারী আহম্মদ কয়েছ রাসেল, গ্রাম আদালত সহকারী মো: জুনেদ মিয়া, উপকারভোগী নারী জ্যোৎ¯œা বেগম, রুবিনা বেগম প্রমুখ।
আলোচনা সভায় বক্তারা গরিব দুঃখীদের আইন সহায়তায় সম্ভাব্য সমস্যা ও সমস্যা দূরীকরণ নিয়ে আলোচনা করেন। সভায় সরকরি/বেসরকারি কর্মকর্তা, সাংবাদিকসহ নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে : আদমপুরে গৃহবধুর গায়ে এসিড নিক্ষেপের অভিযোগ ॥ আটক-১

 

Pic acid-1

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে জমি সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধের জের ধরে দেবর কর্তৃক পাঁচ সন্তানের জননী ভাবী রোকেয়া বেগম (৪৩)-এর গায়ে এসিড নিপে করার অভিযোগ করা হয়। কমলগঞ্জ থানার পুলিশ এ ঘটনায় গৃহবধূর দেবর ময়ুর মিয়া (৪৫)কে আটক করেছে। এসিডদগ্ধ গৃহবধূকে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত শুক্রবার দিবাগত রাত ১টার দিকে কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের ভানুবিল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
এসিডদগ্ধ রোকেয়া বেগমের ছেলে রোমান আহমদ অভিযোগ করে বলেন, শুক্রবার দিবাগত রাত ১টার দিকে তার মা প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিয়ে ঘরের বাইরে বের হলে পূর্ব থেকে ওঁৎ পেতে থাকা চাচা ময়ুর মিয়া (৪৫) ও তার সহযোগী মিলাদ মিয়া (২৭) গৃহবধুর উপর এসিড নিক্ষেপ করে। এসিডে গৃহবধুর গলা, কপাল, হাত ও বুকের কিছু অংশ ঝলসে যায়। গৃহবধুর চিৎকারে এসিড নিক্ষেপকারীরা পালিয়ে গেলে পরে বাড়ির লোকজন তাকে (রোকেয়া বেগমকে) উদ্ধার করে রাতেই প্রথমে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে চিকিৎসকরা তাকে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। বর্তমানে তিনি হাসপাতালের ২য় তলায় সার্জারী বিভাগের মহিলা ওয়ার্ডের ২২নং বেডে ডা: সুব্রত রায়ের তত্ত্বাবধানে আছেন।
মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালের ডা: সুব্রত রায় জানান, রোকেয়া বেগম চিকিৎসাধীন আছেন। মেডিক্যাল বোর্ডের পরীক্ষা নিরীক্ষার পর বোঝা যাবে এটি আসলে এসিডদগ্ধ কি না ?
এসিডের শিকার গৃহবধুর স্বামী হুছন মিয়া জানান, জমিজমা সংক্রান্ত পূর্ব শক্রতার জের ধরে আমার ছোট ভাই ময়ুর মিয়া ও তার সহযোগী মিলাদ মিয়া এসিড নিপে করে পালিয়ে যায়। আদমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: আবদাল হোসেন ও স্থানীয় সদস্য কে মনিন্দ্র সিংহ জানান, জমি সংক্রান্ত বিষয়ে দীর্ঘদিন ধরে তাদের পারিবারিক বিরোধ চলছিল। তাদের ধারনা এ বিরোধেই এসিড নিেেপর এ ঘটনাটি ঘটেছে। এলাকাবাসী আব্দুর রহমান, শামীম মিয়াসহ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন এলাকাবাসী জানান, রোকেয়া বেগমের স্বামী  হুছন মিয়ার সাথে তার ভাই ময়ুর ও আত্মীয় মিলাদের দীর্ঘদিন ধরে জমিজমা নিয়ে ঝগড়া বিবাদ রয়েছে। শনিবার দুপুরে কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মোকতাদির হোসেন পিপিএম ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) নজরুল ইসলাম, উপ-পুলিশ পরিদর্শক কৃষ্ণমোহন দেব নাথসহ পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। অভিযুক্ত মিলাদ মিয়াকে পাওয়া না গেলেও ময়ুর মিয়ার স্ত্রী ইয়ারুন বেগম তার স্বামী কর্তৃক রোকেয়া বেগমকে এসিড নিক্ষেপের কথা অস্বীকার করে বলেন, এটি সম্পূর্ণ ষড়যন্ত্র।
তবে কমলগঞ্জ থানায় আটক ময়ূর মিয়া পারিবারিক বিরোধের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সম্প্রতি তিনি তাদের উপর আদালতে একটি মামলা করেছেন। আর এ মামলা করার কারণে ভাই হুছন মিয়া ও তার স্ত্রী রোকেয়া নিজেরাই পরিকল্পিতভাবে এসিড নিক্ষেপের ঘটনা ঘটিয়েছে। সাথে সাথে পুলিশ দিয়ে তাকে আটকও করিয়েছে।
কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: মোক্তাদির হোসেন পিপিএম মৌখিকভাবে অভিযোগ গ্রহন ও অভিযুক্ত ময়ুর আলীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তবে এখন পর্যন্ত থানায় কোন লিখিত অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে তদন্তক্রমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

মুন্সীবাজারে গৃহবধূর আত্মহত্যা

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

atohotta1

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে ৩ সন্তানের জননীর আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার বিকালে উপজেলার মুন্সীবাজার ইউনিয়নের রূপসপুর গ্রামে।
জানা যায়, মুন্সীবাজার ইউনিয়নের রূপসপুর গ্রামের সুলতান মিয়া স্ত্রী ৩ সন্তানের জননী মিনা বেগম (২২) গত শুক্রবার বাড়ির সকলের অজান্তে বিষপান করে। সাথে সাথে তাকে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। সেখান থেকে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কিছু সময় পর কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত বলে ঘোষণা করেন। পরে কমলগঞ্জ থানা পুলিশকে জানিয়ে মিনা আক্তারের লাশ ময়নাতদন্ত করা হয়। এ ব্যাপারে কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা মোঃ মোকতাদির হোসেন পিপিএম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন ঘটনাটি হাসপাতাল থেকে জানানো হয়েছে। কেউ অভিযোগ করলে তদন্ত সাপেে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে একটি সূত্রে জানা যায়, পারিবারীক বিরোধের কারণেই গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছে।

শমশেরনগরে ময়লার স্তুপে নালার মুখ বন্ধ, বর্ষায় পানি নিষ্কাশনে প্রতিবন্ধকতার আশঙ্কা

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

Kamalgonj Pic Drane

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর বাজারে ময়লার স্তুপে বাজারের পানি নিষ্কাশনের প্রধান নালার মুখ বন্ধ হয়ে গেছে। বাজারের বিভিন্ন ছোট নালাসহ চা বাগানের টিলা থেকে নেমে আসা  পানি নিষ্কাশনে বর্ষায় বড় ধরনের প্রতিবন্ধকতার আশঙ্কা করা হচ্ছে। বাজার পরিচ্ছন্নকারীরা প্রতিদিনকার ময়লা ফেলে এ অবস্থার সৃষ্টি করেছেন বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।
মৌলভীবাজার জেলার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ একটি জনপদ হচ্ছে শমশেরনগর। কমলগঞ্জ, কুলাউড়া ও রাজনগর উপজেলার ২৫ টি ইউনিয়নবাসীর দৈনন্দিন হাটবাজার হচ্ছে এখানে। ফলে  অতিরিক্ত ক্রেতাবিক্রেতার চাপে প্রতিদিনই প্রচুর পরিমাণে ময়লা আবর্জনা জমে। ভোর রাতে পরিচ্ছন্নতাকারীরা এসব আবর্জনা ফেলছে বাজারের দক্ষিণ দিকে শমশেরনগর-কমলগঞ্জ সড়কের হাজী মো: উস্তওয়ার বারিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনের বড় নালার মুখে। ময়লা আবর্জনা জমে নালাল মুখ সম্পূর্ণরুপে বন্ধ হয়ে গেছে।
শমশেরনগর-কমলগঞ্জ সড়কের দুই দিকেই এ বাজারের দুটি বড় কাঁচা বাজার। এ দুটি বাজার থেকে ও আরও দুটি সড়ক থেকে বেশ কয়েকটি ছোট নালা এসে মিশেছে হাজী মো: উস্তওয়ার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনের বড় নালায়। মাছ বাজার এলাকা ঘুরে দেখা গেছে সেখানে গবাদি পশুর মাংস বিক্রির দোকানের পিছনেও দীর্ঘ দিন থেকে ময়লা আবর্জনা ফেলে বিশাল আকারের আবর্জনার স্তুপে পরিণত হয়ে এখন আর  সেখানে ময়লা রাখারও স্থান নেই। এ সুযোগে পরিচ্ছন্নতাকারীরা গত মাস দুয়েক ধরে ময়লা আবর্জনা এ নালার মুখে ফেলছেন। ফলে বড় নালাটির মুখ বন্ধ হয়ে এখনই পিছনের ধানি জমিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে।
হাজী মো: উস্তওয়ার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি আইয়ূব আলী, শিক মো: সালাহ উদ্দীন তফাদারসহ এলাকাবাসী আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, এখন যদি নালার মুখ থেকে আবর্জনা অপসারণ না করা হয় তা হলে আসন্ন বর্ষায় পিছনের ধানি জমিতে বড় ধরনের জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হবে। সাথে সাথে বাজারের ছোট ছোট অন্যান্য নালার পানি এসে সড়ক নিমজ্জিত করবে। বাজারের পরিচ্ছন্নতাকামীরা বলেন, আসলে শুধু তারা নন বাজারের অনেক দোকানদাররাও নালার মুখে আবর্জনা ফেলেন। তাছাড়া ময়লা আবর্জনা ফেলার নির্ধারিত স্থান করে দিলে তারা সেখানেই আবর্জনা ফেলবেন।
শমশেরনগর বণিক কল্যাণ সমিতির সভাপতি আব্দুল মালিক ও সাধারন সম্পাদক এম এ আউয়াল ময়লা আবর্জনার স্তুপে নালার মুখ বন্ধের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আসলে এখানে আবর্জনা ফেলার কোন নির্দিষ্ট স্থান না থাকায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। দ্রুত নালার মুখ থেকে আবর্জনা অপসারণের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে বলে তারা আরও বলেন, বিকল্প একটি স্থান খোঁজা হচ্ছে যেখানে স্থায়ীভাবে ময়লা আবর্জনা ফেলা যাবে। এ ব্যাপারে তারা মৌলভীবাজার- ৪ আসনের সাংসদ উপাধ্য ড. মো: আব্দুস শহীদ ও মৌলভীবাজার-২ আসনের সাংসদ আব্দুল মতিনের সহায়তা কামনাও করেছেন।

কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার অভাবে শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ

 কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

Kamalgonj Pic Child 1 copy

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার অভাবে ইসলামপুর ইউনিয়নের মুজিব আলীর ৪ মাসের বয়সের মেয়ে মিম এর মৃত্যুও অভিযোগ পাওয়া গেছে। শ্বা¦াসকষ্ট জনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে গত বৃহস্পতিবার সে ভর্তি হয়েছিল। শুক্রবার সকালে একটি ইনজেকশন প্রয়োগের পর এ শিশুটির অবস্থা অবনতি হলে এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে গিয়ে উপস্থিত চিকিৎসকের কাছ থেকে কোন সেবা না পেয়ে চিকিৎসার অবহেলায় বিকাল ৩টা ২০ মিনিটে শিশুটি মারা যায় বলে তার মা অভিযোগ করেছেন। পরবর্তীতে লাশ হস্তান্তর নিয়ে জটিলতা করে অবশেষে সন্ধ্যা ৬টায় শিশুর লাশ তার মায়ের কাছে দিলেও তিনি লাশ নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বসে থাকেন দায়িত্বশীল কারো কাছে অভিযোগ দিয়েই লাশ নিতে যাবেন বলে।
শিশু মিমের মা মিরজান বেগম শুক্রবার বিকাল ৫টায় এ প্রতিনিধির কাছে অভিযোগ করে বলেন, শিশুটি শ্বাসকষ্ট জনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে সীমান্তবর্তী ইসলামপুর ইউনিয়নের গুলের হাওর গ্রাম থেকে বৃহস্পতিবার রাত ৮টায় কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছিল। ভর্তির পর রাতেও তেমন কোন চিকিৎসা সেবা পাওয়া যায়নি। শুক্রবার সকালে শিশুটিকে একটি ইনজেকশন প্রয়োগ করার পর অবস্থার কিছুটা অবনতি হলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নিচ তলার জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রশান্ত পালের কাছে এসে কাকুতি মিনতি করেও প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা পাওয়া যায়নি। এক পর্যায়ে শিশুটিকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে স্থানান্তরের অনুরোধ করলেও তাকে স্থানান্তর করা হয়নি। অবশেষে শুক্রবার বিকাল দুপুর ২টায় জরুরী বিভাগেই শিশু মিম মারা যায়। শিশুর মা মিরজান বেগম আরও বলেন, চিকিৎসকরা সঠিকভাবে সেবা দিলে হয়ত সে মারা যেত না। তাছাড়া মৃত্যুর পর লাশ তার কাছে দিলেও এ মৃত্যুর জন্য অভিযোগ দিয়ে লাশ নিয়ে ফিরবেন বলে দায়িত্বশীল একজন চিকিৎসকের অপোয় বসে রইলেন।
চিকিৎসক প্রশান্ত পাল বলেন, শিশুটি এ আর ই (একুইট রেসপেটরী ইনফেকশন) (শ্বাসকষ্ট জনিত রোগে) বৃহস্পতিবার রাতে ভর্তি হলেও শুক্রবার সকালে আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা: সাজেদুল কবির তাকে দেখেছেন। বেলা ২টায় শিশুটিকে মুমূর্ষূ অবস্থায় জরুরী বিভাগে নিয়ে আসার ৫ মিনিটের মধ্যে সে মারা যায়। এখানে তার(ডা: প্রশান্তের) করার কিছু নেই।
কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা: সাজেদুল কবির শিশুর মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন এটি একটি অনাকাঙ্খিত ঘটনা। সকালে শিশুটিকে দেখে একজন শিশু বিশেষজ্ঞকে দেখানোর জন্য তিনি পরামর্শ দিয়েছিলেন। আসলে এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যেমন চিকিৎসক সংকট তার মাঝে কোন শিশু চিকিৎসক নেই।
কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: মোহাম্মদ ইয়াহিয়া ছুটির কারণে মৌলভীবাজার জেলা সদরে নিজ বাসায় অবস্থানকালে মুঠোফোনে বলেন, এত বড় একটি ঘটনা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে তাকে কেউ জানায়নি। তিনি খোঁজ নিয়ে বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন বলেও জানান।

রাজনগরে বসতঘরে আগুন, মা-মেয়ের মৃত্যু

04

  মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলায় বিদ্যুতের শর্টসার্কিট থেকে বসতঘরে আগুন লেগে মা ও মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় দগ্ধ হয়েছেন ছেলেও। বুধবার রাত সোয়া ২টার দিকে রাজনগর সদর ইউনিয়ন ভুজবল গ্রামের ওয়াছির মিয়ার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- মা রোকেয়া বেগম (৫৫) ও মেয়ে শাহিনা বেগম (২৪)। তাদের বাড়ি একই এলাকায়। ছেলে মুন্না মিয়াকে (২৭) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রাজনগর থানার ওসি শ্যামল দত্ত জানান, রাতে বিদ্যুতের শর্টসার্কিট থেকে বসতঘরে আগুন লাগে। এতে ঘটনাস্থলেই একই পরিবারের তিনজন দগ্ধ হন। তাদের প্রথমে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল নিলে দায়িত্বরত চিকিৎসক মেয়ে শাহিনাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় মা রোকেয়া ও ছেলে মুন্না মিয়াকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে যাওয়ার পথে মা রোকেয়ার মৃত্যু হয়। ছেলে ঢামেকে চিকিৎসাধীন বলে জানান ওসি।