সদ্য সংবাদ

পুরাতন সংবাদ: May 2019

কমলগঞ্জের মাধবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্টিত

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

2018-03-29--05_15_47

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী ও মহান স্বাধীনতা দিবসের আলোচনা সভা বুধবার সকাল ১০টায় বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্টানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কমলগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি, বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী এম, মোসাদ্দেক আহমেদ মানিক। গেষ্ট অব অনার হিসাবে ছিলেন কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মো. জুয়েল আহমেদ।

স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি সৈয়দ শফিকুর রহমান (জহুর) এর সভাপতিত্বে ও সহকারী প্রধান শিক্ষক আব্দুল মুমিনের সঞ্চলনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন মাধবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি মো. আশিদ আলী, সাংবাদিক আসহাবুর ইসলাম শাওন, উপজেলা প্রজন্মলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, সমাজ সেবক আবদাল হোসেন, ইমন আহমেদ, স্কুল পরিচালনা কমিটির সদস্য মো. তাজ উদ্দিন, স্কুল পরিচালনা কমিটির সদস্য দিপ্তী রাণী সিনহা। স্বাগত বক্তব্য রাখেন রাখেন মাধবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সোবহান।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিবৃন্দ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।#

কমলগঞ্জে রেল লাইন থেকে শিক্ষার্থীর খন্ডবিখন্ড মরদেহ উদ্ধার

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

2018-03-29--05_03_01-1

কমলগঞ্জ উপজেলার গোপল নগর রেল ক্রসিং এলাকা থেকে তাসকিরা হক তান্নি (২২) নামে এক শিক্ষার্থীর খন্ডবিখন্ড মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
বুধবার (২৮ মার্চ) রাত ১১টার দিকে শ্রীমঙ্গল রেলওয়ে থানার পুলিশ তানিয়ার মরদেহ উদ্ধার করে।
শিক্ষার্থী তান্নি কুলাউড়া উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের পাবই গ্রামের আনোয়ারুল হকের মেয়ে ও কমলগঞ্জের পতনউষার গ্রামের রাসেল আহমদের স্ত্রী। সে মৌলভীবাজার সরকারী কলেজের অনার্স ফাইনাল ইয়ারের পরীক্ষার্থী বলে জানা গেছে।
পুলিশ জানায়,বুধবার রাতে গোপালনগর রেল ক্রসিংয়ের পাশে রেল লাইনের উপর এক নারীর খন্ডবিখন্ড মরদেহ ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে থাকার সংবাদ পেয়ে প্রথমে কমলগঞ্জ থানার এসআই আব্দুস শহীদ ও পরে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে। পরে থানা পুলিশ ও শ্রীমঙ্গল রেলওয়ে পুলিশ নিহতের সুরতহাল তৈরী করে শ্রীমঙ্গল রেলওয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মৌলভীবাজার মর্গে প্রেরন করে।
সরজমিন দেখা যায় নিহতের দেহ, দুই পা এবং মাথা রেল লাইনের উপর পড়ে রয়েছে। রেল লাইনের পাশে তান্নির ব্যবহিৃত পরীক্ষার কাগজপত্র, বোরকা,পায়ের জুতা ও মোবাইলফোন গুছালো অবস্থায় পড়ে রয়েছিল।

প্রাথমিক ভাবে ঘটনাটি হত্যাকান্ড বলেই ধারণা করছে পুলিশ।
কমলগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) নজরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

কমলকুঁড়ি পত্রিকা ২৯ মার্চ ২০১৮

K-1

K-2

K-3

K-4

কমলগঞ্জ পৌরসভায় মশারী বিতরন

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

pic-kamalgong

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ পৌর মেয়রের ব্যক্তিগত কার্যালয়ে মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় পৌর এলাকার ৩নং ওয়ার্ডের নছরতপুর গ্রামের ৪শ হতদরিদ্র পরিবারকে ম্যালেরিয়া মুক্ত কর্মসূচীর আওতায় কীটনাশক মশারি বিতরণ করা হয়েছে। ব্র্যাক ম্যালেরিয়া কর্মসূচীর ব্যবস্থাপক শাহানা আক্তারের সভাপতিত্বে ও কয়েছ আহমেদের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মোঃ জুয়েল আহমেদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন কাউন্সিলর আনসার শোকরানা মান্না, মুসলিমা বেগম,রুশন আহমদ মাল্লু , আব্দুল আমিন, হাজের বেগম, কুলসুমআরা, সুফিয়া, আকিজা বিবি, ফুলবানু প্রমুখ।

পানির অভাবে সঙ্কটে লাউয়াছড়া ও সাতছড়ির বন্যপ্রাণিরা

 

নূরুল মোহাইমীন মিল্টন

RIVER_0120180326153457

‘পানির জন্য প্রকৃতি’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে আজ বিশ্ব পানি দিবস পালিত হচ্ছে। প্রকৃতির অতি গুরুত্বপূর্ণ উপাদানা পানি হলেও দেশের নদী অববাহিকায় পানির তীব্র সঙ্কট দেখা দিয়েছে। পানির যথাযথ প্রাপ্যতা না থাকায় প্রকৃতি তার স্বাভাবিক বৈশিষ্ট্য হারাচ্ছে এবং হুমকির মুখে পড়ছে জীববৈচিত্র্য। পানির অপ্রতুলতা ও বিশুদ্ধ পানির অভাব বাংলাদেশের পরিবেশ ও প্রকৃতিকে ভারসাম্যহীন করে তোলছে।

দীর্ঘ অনাবৃষ্টিতে প্রাকৃতিক জীববৈচিত্র্য সমৃদ্ধ নদ-নদী, ছড়া, খাল-বিল, জলাভূমিতে পানি শুকিয়ে গেছে। বিভিন্ন স্থানে নিচে নামছে পানির স্তর। খাবার পানি সঙ্কটে পড়ছে মৌলভীবাজারের লাউয়াছড়া ও হবিগঞ্জের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানের বন্যপ্রাণি। পানির তৃষ্ণা মেটাতে বন্যপ্রাণি লোকালয়ে ও দিকবিদ্বিক ছোটাছুটি করছে। মৌলভীবাজারের অনেক স্থানে সেচ সঙ্কটের কারনে চলতি মৌসুমে বোরো চাষাবাদ ব্যাহত হচ্ছে। বোরো ক্ষেতে কৃষকদের এখন ভরসা হচ্ছে গভীর নলকূপ।

অনুসন্ধানে জানা যায়, লাউয়াছড়া ও সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে বিরল প্রজাতির উল্লুকসহ বিভিন্ন ধরনের বন্যপ্রাণির আবাসস্থল। বনের ভেতরে সবক’টি ছড়া শুকিয়ে যাওয়ায় প্রাকৃতিক জীববৈচিত্র্য সমৃদ্ধ জাতীয় উদ্যান সমুহে বন্যপ্রাণির জন্য খাবার পানি তীব্র সঙ্কট দেখা দিয়েছে। পানির অভাবে লোকালয় ও দিকবিদ্বিক ছোটাছুটি করছে প্রাণী। ফলে বন্যপ্রাণির খাবার পানি যোগাতে লাউয়াছড়ায় দু’টি ও সাতছড়ি উদ্যানে তিনটি সংরক্ষণাগার তৈরি করা হয়েছে। বিশাল বনে দু’একটি স্থানে জলাধার দিয়ে বন্যপ্রাণির তৃষ্ণা মেটাতে পর্যাপ্ত নয় বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করেন।

চা বাগান, বনাঞ্চল ও কৃষি অধ্যুষিত কমলগঞ্জের নিন্মাঞ্চল ও নদী, ছড়াকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন স্থানে বোরো আবাদ চলছে। দীর্ঘ অনাবৃষ্টির কারনে মনু, ধলাই নদী শুকিয়ে বালুর চর জেগে উঠছে। পলি বালিতে ভরাট হচ্ছে এসব নদী। পাহাড়ি এলাকা থেকে বেরিয়ে আসা অসংখ্য ছড়া আর খালে পানি শুকিয়ে গেছে। বিভিন্ন স্থানে জলাভূমি শুকিয়ে যাওয়ায় সেচ সঙ্কটে পড়েছেন বোরো চাষীরা। স্থানে স্থানে ক্রসবাঁধ দিয়ে কৃষকরা পানি আটকিয়ে সেচের ব্যবস্থা করছেন। অন্যান্য স্থান সমুহে গভীর নলকূপের পানি দিয়ে বোরো ক্ষেতে সেচ প্রদান করছেন। কমলগঞ্জ উপজেলার মধ্য দিয়ে বয়ে যাওয়া একমাত্র লাঘাটা নদীতে স্লুইসগেট ও কয়েকটি বাঁধ দিয়ে কৃষকরা সেচ সুবিধা নিয়ে বোরো আবাদ করছেন।

কমলগঞ্জের গোবিন্দপুর গ্রামের কৃষক মোবাশ্বির আলী, মোশারফ হোসেন বলেন, এই এলাকা দিয়ে বয়ে যাওয়া খির নদী শুকিয়ে গেছে। ফলে গভীর নলকূপ দিয়ে প্রায় এক হাজার এক জমি বোরো চাষাবাদ হয়েছে। তারা আরও বলেন, বৃষ্টিপাত না হওয়ায় চলতি মৌসুমে আমাদের রোপিত বোরো ক্ষেতে সেচ দিতে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। শুষ্ক মৌসুম থাকায় পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ায় গভীর নলক‚পেও সেভাবে পানি পাওয়া যাচ্ছে না। ধলাই নদী থেকে রাবার ড্যাম্পের মাধ্যমে খিরনদী দিয়ে সেচ ব্যবস্থার জন্য তারা দাবি জানান।

শ্রীমঙ্গলস্থ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সীতেশ রঞ্জন দেব, পরিবেশ কর্মী সৈয়দ মহসীন পারভেজ বলেন, নদীমাতৃক এই দেশের নদ-নদী, খাল-বিল, হাওরসহ এর জীববৈচিত্র্য রক্ষায় বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে। পরিস্কার ও নিরাপদ পানি সরবরাহ জীববৈচিত্র্যের উপর নির্ভরশীল। জীববৈচিত্র্য জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় এবং দুর্যোগের ঝুঁকি হ্রাসে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। খরা, বন্যা ও সুনামির মতো চরম বিপর্যয়ের প্রভাব হ্রাসে বনভূমি, জলাভূমি ও ম্যানগ্রোভ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই প্রাকৃতিক জীববৈচিত্র্য সমৃদ্ধ নদ-নদী, বনভূমি, জলাভূমি, পাহাড় প্রতিবেশ ব্যবস্থা সংরÿণে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানান।

বন্যপ্রাণি ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের সিলেট বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মিহির কুমার দো বলেন, শুষ্ক মৌসুমে উদ্যানের ভেতরে ছড়া ও জলাশয় সমুহ শুকিয়ে যায়। লাউয়াছড়ায় দু’একটি স্থানে কিছু পানি থাকলেও সাতছড়ি উদ্যানে সমস্থ শুকিয়ে পড়ে। জাতীয় উদ্যানে বন্যপ্রাণির খাবার পানির সঙ্কট মোকাবেলায় সাতছড়ি উদ্যানে তিনটি ও লাউয়াছড়া উদ্যানে দু’টি পানি সংরক্ষণাগার তৈরি করা হয়েছে। এসব সংরক্ষণাগার থেকে পাইপের মাধ্যমে অন্যত্র পানি সরবরাহ করা হচ্ছে। তবে বন্যপ্রাণির জন্য এগুলো মোটেই পর্যাপ্ত নয়। বন্যপ্রাণির খাবারে পানি সংরক্ষণাগারের সংখ্যা আরও বৃদ্ধি করা দরকার।

মানবতাবিরোধী অপরাধ : মৌলভীবাজারের চার আসামির রায় যে কোনো দিন

 

10
ফাইল ছবি

মৌলভীবাজারের রাজানগর উপজেলার সাবেক মাদ্রাসা শিক্ষক আকমল আলী তালুকদারসহ চারজনের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার রায় যে কোনো দিন ঘোষণা করা হবে।

প্রসিকিউশন ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল মঙ্গলবার মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ (সিএভি) রাখে। আসামিদের মধ্যে আকমল আলী তালুকদার (৭৩) এ সময় আদালতে উপস্থিত থাকলেও বাকি তিন আসামি পলাতক রয়েছে। পলাতক আসামিরা হলেন- মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার আব্দুন নূর তালুকদার ওরফে লাল মিয়া, আনিছ মিয়া ও আব্দুল মোছাব্বির মিয়া। প্রসকিউশনের পক্ষে এ মামলায় যুক্তি উপস্থাপন করেন সৈয়দ হায়দার আলী। তার সঙ্গে ছিলেন শেখ মুশফিক কবীর ও সায়েদুল হক সুমন। আর আসামি আকমলের পক্ষে আইনি লড়াইয়ে ছিলেন আইনজীবী আবদুস সোবহান তরফদার। পলাতক আসামিদের পক্ষে রাষ্ট্রনিযুক্ত আইনজীবী আবুল হাসান যুক্তি উপস্থাপন করেন। আসামীদের বিরুদ্ধে হত্যা, গণহত্যা, ধর্ষণ, অপহরণ, আটক, নির্যাতন, গুম, লুণ্ঠন ও অগ্নিসংযোগের মত মানবতাবিরোধী অপরাধের দুটি ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে। গত বছরের ৭ মে অভিযোগ গঠনের মধ্যে দিয়ে এ মামলার বিচার শুরু করে ট্রাইব্যুনাল। প্রসিকিউটর মুশফিক বলেন, একাত্তরে ৫৯ জনকে হত্যা, ছয়জনকে ধর্ষণ, ৮১টি বাড়িতে লুটপাট অগ্নিসংযোগের অভিযোগ রয়েছে এ মামলার আসামিদের বিরুদ্ধে। তিনি বলেন, সাক্ষ্য-প্রমাণ ও পর্যাপ্ত নথির মাধ্যমে প্রসিকিউশন দুটি অভিযোগই প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে বলে আমি মনে করি। প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করা হয়। প্রসিকিউটর মুশফিক বলেন, এ মামলায় প্রসিকিউশনের ১৩ জন সাক্ষীর মধ্যে পাঁচজনই একাত্তরে আসামিদের মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে তিনজন ধর্ষণের শিকার। তিনি আরও বলেন, আর সাক্ষী বারীন্দ্র মালাকার ও সুবোধ মালাকার সরাসরি আসামিদের নির্যাতনের শিকার। তারা দুজনই সে সময় গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন। ফলে এ মামলায় আসামিদের ছাড় পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। ২০১৫ সালের ২৬ নভেম্বর চার আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে ট্রাইব্যুনাল। ওই দিনই রাজনগরের পাঁচগাঁও গ্রাম থেকে আকমল আলীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। মৌলভীবাজার টাউন সিনিয়র কামিল মাদ্রাসার অবসরপ্রাপ্ত এই উপাধ্যক্ষকে পরে ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা ২০১৬ সালের ২৩ মার্চ চার আসামির বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন চূড়ান্ত করে। আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিলের পর গত বছরের ৭ মে অভিযোগ গঠন হয়। সূচনা বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয় ৪ জুলাই।

কমলগঞ্জে ৩দিনব্যাপী ইন্দো-বাংলা মণিপুরী সাংস্কৃতিক উৎসব -২০১৮

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

11
আগামী  ২৯, ৩০ ও ৩১ মার্চ ২০১৮, বৃহস্পতিবার, শুক্রবার ও শনিবার কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের মণিপুরী কালচারাল কমপ্লেক্সে ৩দিনব্যাপী ইন্দো-বাংলা মণিপুরী সাংস্কৃতিক উৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ২৯ মার্চ বৃহস্পতিবার বিকাল ৪ ঘটিকায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন অর্থ-প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি। বিশেষ অতিথি  হিসাবে উপস্থিত থাকবেন মৌলভীবাজার ২ আসনের  মোঃ আব্দুল মতিন এমপি. বাংলাদেশ রেলওয়ে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শশী কুমার সিংহ, মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার  মোহাম্মদ শাহজালাল বিপিএম,  কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যারন অধ্যাপক রফিকুর রহমান,  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক, ভারতের মণিপুর রাজ্যের ডাঃ এস মনাউতন সিংহ, মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ প্যানেল চেয়ারম্যান- তফাদার রেজুয়ানা ইয়াসমিন সুমী ও আদমপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আব্দাল হোসেন ।
৩০ মার্চ শুক্রবার সকাল ১০ ঘটিকা হইতে দিনব্যাপী মণিপুরী ঐতিহ্যবাহী খেলাধূলা ও সাংস্কৃতি অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে।
৩১ মার্চ শনিবার বিকাল ৪টায় সমাপনী অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি : মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের সচিব, সমন্বয় ও সংস্কার এন এম জিয়াউল। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয় সচিব মোঃ নাসির উদ্দিন আহমেদ, বাংলাদেশ রেলওয়ে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শশী কুমার সিংহ, অতিরিক্ত সচিব ও পরিচালক, বিএসইসি কোংখাম নীল মণি সিংহ, সিলেট বিভাগীয় কমিশনার ড. মোছাৎ নাজমানারা খানম, মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক মোঃ তোফায়েল ইসলাম, ভারত মণিপুর রাজ্যের প্রেট্রিওটিক রাইটার্স ফোরামের সচিব ভারত রাকেশ নাওরেম।
প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬ ঘটিকা  হতে ইন্দো-বাংলা মণিপুরী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন : জয়ন্ত কুমার সিংহ, আহবায়ক, ইন্দো-বাংলা মণিপুরী সাংস্কৃতিক উৎসব উদযাপন কমিটি
অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করবেন : রবি কিরণ সিংহ, সদস্য সচিব, ইন্দো-বাংলা মণিপুরী সাংস্কৃতিক উৎসব উদযাপন কমিটি।

কমলগঞ্জে জীবিকা প্রকল্পের উদ্যোগে সংযোগ স্থাপন কর্মশালা সম্পন্ন

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

29572618_2013883358640726_899846360056364325_n
জীবিকা প্রকল্পের অধীনে সমবায় সমিতি ও উদ্যোক্তাদের সাথে সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানসমূহের যোগাযোগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে গত সোমবার (১৯ মার্চ) কমলগঞ্জ উপজেলার কৃষি অফিস মিলনায়তনে এক সংযোগ স্থাপন কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ সামসুদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা মো: আব্দুল হাই খান, শেভরন বাংলাদেশ কমিউনিটি এনগেইজমেন্ট কর্মকর্তা শ্রী নিবাস দেবনাথ, উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা আশুতোষ দাস, জীবিকা প্রকল্পের উপজেলা ব্যবস্থাপক শ্রীমঙ্গল, কমলগঞ্জ ও মৌলভীবাজার। মাঠকর্মীগণ ও সমবায় সমিতির সদস্যগণ।

কর্মশালায় প্রধান অতিথি বলেন, “জীবিকা প্রকল্প যেভাবে কাজ করছে তাতে অবশ্যই দারিদ্র্যতা দূরীকরণ এবং দারিদ্র্যের দুষ্টুচক্র থেকে নিম্ন আয়ের জনগনকে বের করে নিয়ে আসা সম্ভব ।” ব্র্যাক এবং শেভরন পরিচালিত জীবিকা প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের নিকট প্রয়োজনীয় সেবা সরবরাহ, উৎপাদিত পণ্য বাজারজাতকরণ এবং ন্যায্য মূল্য নিশ্চিতকরণ সম্ভব হবে।

উল্লেখ্য, ব্র্যাক-শেভরন যৌথ উদ্যোগে এবং আঞ্চলিক বাস্তবায়ন সহযোগী সংস্থা আইডিয়া’র সহায়তায় অক্টোবর ২০১৫ হতে বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলের ১১২টি গ্রাম উন্নয়ন সংগঠনের মাধ্যমে প্রায় ২০,০০০ দরিদ্র্য জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে এবং সাংগঠনিক সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে জীবিকা প্রকল্পের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। উন্নয়ন কর্মকান্ডের মধ্যে রয়েছে ভিডিও সদস্যদের প্রকল্পের অধীনে চারটি সাব-সেক্টরে (হাঁস-পালন, গরু মোটাতাজাকরণ, ছাগল-পালন ও সবজি-চাষ), সংগঠন পরিচালনা পদ্ধতি, হিসাব রক্ষণ, বিরোধ নিরসন এর উপর প্রশিক্ষণ প্রদান, ব্যবসায়ী উদ্যোক্তাদের ভ্যালু চেইন পদ্ধতির সাথে সম্পৃক্তকরন, ভিডিও সদস্যদেরকে সেবা-প্রদান প্রতিষ্ঠানসমূহের সাথে যোগাযোগ স্থাপনে সহায়তা, সরকারি ও বেসরকারি সেবাপ্রদান সংস্থা সম্পর্কে তথ্য প্রদান, ভিডিও থেকে অর্থ ঋন সহায়তা, নারী ও শিশুর স্বাস্থ্যসেবা সহায়তা এবং অধিকার প্রসঙ্গে সচেতনতা বৃদ্ধি কার্যক্রম।

কমলগঞ্জে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

received_2163949376965136

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে যথাযোগ্য মর্যাদা ও বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন করা হয়। সোমবার (২৬ মার্চ) প্রত্যুষে ৩১ বার তোপধ্বনির পর কমলগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে দিবসটির কর্মসূচী শুরু হয়। ভোর সাড়ে ৬টায় শমশেরনগর, কামুদপুর ও দেওড়াছড়া বধ্যভূমিতে পুষ্প স্তবক অর্পণ করা হয়।

FB_IMG_1522039425413

সকাল সাড়ে ৭টায় বীর শ্রেষ্ঠ সিপাহী হামিদুর রহমানের স্মৃতিসৌধে পুষ্প স্তবক অর্পণ করা হয়। সকাল ৮টায় কমলগঞ্জ মডেল বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, কোটি কন্ঠে শুদ্ধভাবে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশ, কুচকাওয়াজ, স্কুর কলেজের শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহনে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

20180326_111141
দুপুর সাড়ে ১২টায় কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হকের সভাপতিত্বে এবং জেলা পরিষদ সদস্য অধ্যক্ষ মো: হেলাল উদ্দিন ও প্রধান শিক্ষক মোসাইদ আলীর সঞ্চালনায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের তাৎপর্য্য এবং উন্নয়ন অগ্রগতি বিষয়ে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কমলগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ও কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ সদস্য অধ্যাপক মো: রফিকুর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কমলগঞ্জ থানার ওসি মো: মোকতাদির হোসেন পিপিএম, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মোসাদ্দেক আহমদ, মুন্সীবাজার ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোতালিব তরফদার, সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল মোমিন তরফদার। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা নির্মল কান্তি দাস, আনন্দ মোহন সিংহ, আর্শ্বাদ আলী, কমলগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি এম, এ, ওয়াহিদ রুলু, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মো: সানোয়ার হোসেন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সভাপতি আব্দুল আজিজ, সাধারণ সম্পাদক মন্জুর আহমদ আজাদ মান্না প্রমুখ। সভায় বক্তারা চাকুরীক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধা কোটার যথাযথ বাস্তবায়ন ও সকল ইউনিয়ন পরিষদের সামনে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নামের তালিকা টানানোর দাবী জানান।
এদিকে দিবসটি উপলক্ষে সোমবার বিকালে এক প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। সন্ধ্যায় জেলা পরিষদ মাল্টিপারপাস হলরুমে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশত হয়।

এছাড়াও কমলগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে যথাযোগ্য মর্যদায় দিবসটি পালিত হয়েছে।

কমলগঞ্জে শতভূজা বাসন্তী পূজায় ভক্তবৃন্দের ঢল

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

29512894_2011608725534856_8046478609108296856_n

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ১নং রহিমপুর ইউনিয়নের দেবীপুর সার্ব্বজনীন দেবালয় প্রাঙ্গনে শতভূজা (১০০ হাতবিশিষ্ট) ১২ তম বার্ষিক শ্রী শ্রী বাসন্তী পূজা ও মেলায় ভক্তবৃন্দ ও দর্শনার্থীদের ঢল নেমেছে। রোববার একই দিনে তিথি অনুযায়ী মহাঅষ্টমী ও মহানবমী থাকায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে হাজার হাজার ভক্ত ও দর্শকদের আগমন ঘটে।

14

রোববার দুপুর থেকে শুরু হয় পদাবলী কীর্ত্তন। সন্ধ্যায় আরতি প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, ধর্মীয় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এদিকে শতভূজা বাসন্তী পূজায় আগত ভক্তদের রোববার দুপুর ১টা থেকে মহাপ্রসাদ বিতরণ করা হয় এবং গভীর রাত পর্যন্ত চলে।
উল্লেখ্য, গত এক যুগ ধরে কমলগঞ্জ উপজেলার ১নং রহিমপুর ইউনিয়নের দেবীপুর সার্ব্বজনীন দেবালয় প্রাঙ্গনে শতভূজা (১০০ হাত) শ্রী শ্রী বাসন্তী পূজা ও মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।