সদ্য সংবাদ

পুরাতন সংবাদ: April 2019

ইউএনও হিসেবে পুরষ্কারপ্রাপ্তি ও কিছু কথা ।। মোহাম্মদ মাহমুদুল হক ।।

4

অনাবাদি জমি চাষাবাদে বিশেষ অবদানের জন্য সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে আমাকে মনোনীত করায় বিভাগীয় কমিশনার স্যারের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ । এটি একই সাথে আনন্দময় অনুভূতি সৃষ্টির পাশাপাশি দায়িত্ববোধ বাড়িয়ে দিয়েছে বহুগুণ । দীর্ঘকাল ধরে সিলেট বিভাগে হাজার হাজার হেক্টর জমি অনাবাদি রয়ে গেছে । অনাবাদি জমি চাষাবাদের আইডিয়াটা সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার জনাব মোঃ জামাল উদ্দিন আহমেদ স্যারের ।কমিশনার স্যারের এই একটি উদ্ভাবনী চিন্তা সিলেট বিভাগের খাদ্য উৎপাদনের চিত্রটাই পাল্টে দিয়েছে ।গঠন করা হয়েছে উপজেলা, জেলা ও বিভাগীয় কৃষি উন্নয়ন কোর কমিটি । সিলেটের কৃষি বিভাগ কমিশনার স্যারের এই উদ্যোগ বাস্তবায়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে । কমলগঞ্জের মাধবপুর ইউনিয়নে অনাবাদি জমি চাষাবাদের জন্য পাইলট প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছিল । ফলে একটি ইউনিয়নে খাদ্যশস্যের উৎপাদন বেড়েছে ৩০ শতাংশ।৭৩০ হেক্টর অনাবাদি জমি চাষাবাদের আওতায় আনা সম্ভব হয়েছে।এবার আরো দুটি ইউনিয়ন আদমপুর ও পতনউষারের প্রায় ৬৪৫৪ হেক্টর অনাবদি জমি চাষাবাদের আওতায় আনার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে । কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদ সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে ।গত অর্থবছরে ৯টি সেচের পাম্প কৃষকদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছিল । এবছর কৃষকদের মধ্যে ইতোমধ্যে প্রায় ৫০০ কেজি বিভিন্ন শস্যবীজ বিতরণ করা হয়েছে এবং ৩১টি এলএলপি ( সেচ পাম্প) বিতরণ করার প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে ( প্রতি ২৫ জন কৃষকের একটি গ্রুপকে একটি পাম্প দেয়া) ।কমলগঞ্জে প্রক্রিয়াটা শুরু করেছিলেন আমার আগের উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব সফিকুল ইসলাম স্যার । সুতরাং এই কৃতিত্বের দাবীদার তিনিও ।উপজেলা কৃষি অফিসার জনাব সামছুদ্দিন তাঁর টিম নিয়ে অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন এখনও করছেন ।আমি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জনাব অধ্যাপক রফিকুর রহমানসহ উপজেলা পরিষদের সকল সদস্যের প্রতি । মৌলভীবাজার জেলার প্রাক্তন জেলা প্রশাসক জনাব মোঃ কামরুল হাসান স্যার এ প্রক্রিয়াকে এগিয়ে নিয়েছেন তাই স্যারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি । আমার অনুজ সহকর্মী সহকারী কমিশনার (ভূমি)জনাব মোঃ রফিকুল আলম পুরো প্রক্রিয়ার সাথে সম্পৃক্ত থাকায় তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি ।বর্তমান জেলা প্রশাসক জনাব মোঃ তোফায়েল ইসলাম স্যারের অকুণ্ঠ ও অকৃত্রিম সমর্থন এবং দিক নির্দেশনা আমাদের কাজের গতিকে ত্বরান্বিত করে অনেকগুণ, স্যারের প্রতি অসীম কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি।

আমার দৃঢ় বিশ্বাস বিভাগীয় কমিশনার স্যারের এই উদ্ভাবনী আইডিয়া কৃষি প্রধান বাংলাদেশের ফসল উৎপাদনের ক্ষেত্রে নতুন মাত্রা যোগ করবে এবং বাংলাদেশ অচিরেই খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণ অবস্থা থেকে খাদ্য রপ্তানিকারক দেশে পরিণত হবে ।

ফেসবুক থেকে সংগ্রহ

ভিক্ষুক মুক্ত কমলগঞ্জ: একটি প্রস্তাবনা ।। আহমদ সিরাজ ।।

o
একটা সমাজ বা রাষ্ট্রে কি পরিস্থিতি বিদ্যমান থাকলে সমাজের এমন কিছু মানুষকে সাহায্যের জন্য হাত পাততে হয় অন্যের কাছে যা হয় একটা সমাজের জন্য খুবই অবমানাকর ও পীড়াদায়ক। এই ভিক্ষা যখন ব্যক্তির অবলম্বন হয়ে লাজ লজ্জাকে অতিক্রম করে বৃত্তি বা পেশার অংশ হয়ে পড়ে তখন তা হয় পরিবেশ দূষণের মতো ‘মানবিক দূষণ’। এ অবস্থা কোন বিবেকবান মানুষের জন্য কাম্য হতে পারে না, তেমনি একটি জনকল্যাণ ধর্মী রাষ্ট্রের জন্য বিবেচিত হতে পারে না।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ভিক্ষাবৃত্তির পেছণে ব্যক্তির চরম দরিদ্রতা, চরম অসহায়ত্ব, তার মান সম্মান, আত্ম সম্মান কে লাঞ্চিত  ও তুচ্ছ জ্ঞান করে তুলে তখন ব্যক্তিকে এমন পরিণতির দিকে ধাবিত করে তুলে।

এই ভিক্ষা বা বৃত্তিতে যে ভিক্ষা নেয় তার জন্য সাহায্য, যে বা যিনি দিয়ে থাকেন তার জন্য পূণ্যলাভের কারণ হয়ে দাঁড়ায় তাহলে এই ভিক্ষা একটা গ্রহণীয় মাত্রা পেয়ে যায়।

শ্রেণি বৈষম্য, লাঞ্চনা, গঞ্চনা ও ন্যায় বিচার বঞ্চিত সমাজ বা রাষ্ট্র দূষিত হয়ে পড়লে নিঃস্ব-রিক্ত মানুষের দীর্ঘশ্বাস আর্তনাদে আকাশ-বাতাস ভারী করে তুলে। এই কথাগুলো উল্লেখের কারণ হচ্ছে কমলগঞ্জ উপজেলার অনেকগুলো চমকপদ্র বিষয়ের মাঝে উপজেলা প্রশাসন তথা কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব মাহমুদুল হক এর নেতৃত্বে, কমলগঞ্জ উপজেলাকে ভিক্ষুক মুক্ত করার উদ্যোগ গ্রহণ। এই উপজেলায় কোথায় কোথায় ভিক্ষুক আছে তাদের হিসাব কোন পরিসংখ্যানে আছে বলে মনে হয় না। প্রশাসনে নিজস্ব উদ্যোগে তথ্য সংগ্রহের একটি উদ্যোগ উদ্দীপক মাত্রা চিহ্নিত করেছে।

ভিক্ষুকদের তালিকা সংগ্রহের পর উপজেলা পর্যায়ে তাদের একটা জমায়েত করে এই বিষয় অবহিত করণ একটা সভা আহ্বান করা যেতে পারে এবং এক্ষেত্রে তাদের জন্য করণীয় বিষয়ে প্রশাসনিক উদ্যোগ জানানো যেতে পারে। এক্ষেত্রে যে বিষয়টি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বিবেচ্য হতে পারে তা হলো;
ভিক্ষুকদের জন্য ১. কাজ ২. বাসস্থান  ও ভূমি ৩. শিক্ষা ৪. প্রশিক্ষণ ইত্যাদি।

তাদের বিকল্প ব্যবস্থা গ্রহণের পূর্ব পর্যন্ত এই অন্তবর্তীকালীন সময় তাদের জন্য ভাতার ব্যবস্থা করা এবং উন্নয়নমূলক সকল কর্মকান্ডে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তাদের যুক্ত করা। যদি প্রতীয়মান হয় যে, সকল ভিক্ষুকই বাস্তুভিটা জমিজমা ঠিকানা বিহীন, নিঃস্ব রিক্ত তাহলে সবাইকে নির্দিষ্ট জায়গায় আশ্রয় শিবিরের আওতায় নিয়ে ব্যক্তিগত উদ্যোগে কাজ ও সমবায়ী মানসিকতায় উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে যুক্ত করা।

পুলিশ বাহিনীকে আরো জনবান্ধব করতে আধুনিকায়নের কাজ চলছে-বড়লেখায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বড়লেখা প্রতিনিধি:

barlekha-29-1

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি বলেছেন, আগের পুলিশ আর বর্তমানের পুলিশ এক নয়। এখন পুলিশ বাহিনী আগের চেয়ে অনেক বেশি দক্ষ, মেধাবী। এ বাহিনীকে আরো জনবান্ধব ও সেবামুখি করতে আধুনিকায়নের কাজ চলছে। জনগণের নিরাপত্তায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পুলিশ সদস্যদের দায়িত্ব পালন বিশ্বব্যাপি প্রশংসা কুড়াচ্ছে। এখন আগের চেয়ে বেশি পুলিশের জবাবদিহীতা বেড়েছে। সাধারণ মানুষকে সেবা দিতে পুলিশের বিভিন্ন স্থর চালু রয়েছে। তিনি ২৯ নভেম্বর মঙ্গলবার মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখায় নবনির্মিত থানা কমপ্লেক্স ভবনের আনুষ্ঠানিক উদ্ভোধন শেষে পুলিশ প্রশাসন আয়োজিত সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
মৌলভীবাজার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহজালালের সভাপতিত্বে ও এসএসপি (সদর) শাহীন আহমদের পরিচালনায় থানা প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত সুধী সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জাতীয় সংসদের হুইপ শাহাব উদ্দিন এমপি, সৈয়দা সায়রা মহসিন এমপি, আব্দুল মতিন এমপি, কেন্দ্রিয় আ’লীগের কার্যকরী সদস্য ও কমলগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম, পুলিশের সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মিজানুর রহমান পিপিএম, মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক তোফায়েল ইসলাম, মৌলভীবাজার জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক নেছার আহমদ, মৌলভীবাজার জেলা যুবলীগের সভাপতি ও পৌরসভার মেয়র ফজলুর রহমান, বড়লেখা উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সুন্দর, উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার উদ্দিন।

কমলগঞ্জে এ্যাপিস সেরানা ও মেলিফেরা মৌচাষ প্রশিক্ষণ উদ্বোধন

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

moduchash-kamalgonj
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে আধুনিক প্রযুক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে মৌচাষ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশন (বিসিক), মৌলভীবাজার এর উদ্যোগে ১৫ দেনব্যাপী “এ্যাপিস সেরানা ও মেলিফেরা মৌচাষ প্রশিক্ষণ কোর্স” এর উদ্বোধন করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) সকাল ১১টায় কমলগঞ্জ পৌরসভার ভানুগাছ বাজারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রশিক্ষণ কর্মসুচীর উদ্বোধন করেন বিসিক, মৌলভীবাজার এর ডিজিএম এইচ, এম হামিদুল হক চৌধুরী।
কমলগঞ্জ উপজেলা ক্ষুদ্র ও কুঠির শিল্প উন্নয়ন পরিষদের উপদেষ্টা আহমদ সিরাজের সভাপতিত্বে ও উপজেলা মধুচাষী সমিতির সভাপতি আলতাফ মাহমুদ বাবুলের কর্মশালার আলোচনা পর্বে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বিসিক, মৌলভীবাজার এর প্রমোশন অফিসার মুজিবুল ইসলাম, প্রশিক্ষক খালেদ মো: মঞ্জুর আলম। কর্মলাশায় ১০ জন মধু চাষী অংশগ্রহন করেন।
সভায় বিসিক মৌলভীবাজারের ডিজিএম এ এইচ হামিদুল হক চৌধুরী বলেন, কমলগঞ্জের মধুচাষীদের আরও দক্ষ করে গড়ে শীঘ্রই কমলগঞ্জে স্থায়ীভাবে একটি মধু চাষ প্রশিক্ষণ কেন্দ্র করা হবে।

ট্রেনে কাটা পড়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট :

index
সিলেট-আখাউড়া রেলপথের মৌলভীবাজারের কুলাউড়া-শমশেরনগর রেলওয়ে স্টেশনের মাঝামাঝি ফরক ছড়া রেল সেতু এলাকায় ঢাকাগামী আন্তনগর জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ট্রেনে কাটা পড়ে করম আলী (৪৫) নামের দুই সন্তানের জনক মারা গেছে। মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় এ ঘটনাটি ঘটে।
জানা যায়, নিহত করম আলীর গ্রামের বাড়ি মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের বিলের পার গ্রামে। তার একটি ছেলে ও একটি মেয়ে সন্তান রয়েছে। গ্রাম সূত্রে জানা যায়, করম আলী আগে মস্তিষ্ক বিকৃত থাকলেও কয়েক বছর ধরে তিনি সুস্থ আছেন। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় তিনি রেলপথ ধরে হাটছিলেন। এ সময় বিপরীত দিক  সিলেট থেকে ঢাকাগামী জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ট্রেনে কাটা পরে তার মৃত্যু হয়।
কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর রেলওয়ে স্টেশন মাষ্টার আব্দুল আজিজ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। শ্রীমঙ্গল রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইখতিয়ার উদ্দীন চৌধুরী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ মৃত্যুর জন্য পারিবারিকভাবে কোন আপত্তি নেই তাছাড়া গ্রামবাসীর জোর দাবীতে লাশটি পরিবার সদস্যরের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

শমশেরনগরে ৪৪তম বিমান সেনার সমাপনী কুচকাওয়াজ : সততা, একাগ্রতা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে দেশ গড়া ও দেশ রক্ষা কাজে অংশ নিতে হবে -বিমান বাহিনী প্রধান

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট :

air-chief-pic
বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর প্রধান এয়ার চীফ মার্শাল আবু এসরার, বিবিপি, এনডিসি, এসিএসসি বলেছেন, স্বাধীন জাতির বিমান বাহিনীর মূল দায়িত্ব হচ্ছে দেশের আকাশসীমার প্রতিরক্ষা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা। বাংলাদেশের ভৌগলিক অবস্থান ও সামরিক কৌশলগত দিক বিবেচনায় রেখে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বপ্ন দেখেছিলেন একটি আধুনিক, পেশাদার ও চৌকুস বিমান বাহিনীর। জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিক প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর সাংগঠনিক অবকাঠামো উন্নয়নসহ পর্যায়ক্রমে বিমান বাহিনীতে সংযোজিত হয়েছে বিভিন্ন ধরনের অত্যাধুনিক বিমান, র‌্যাডার ও প্রয়োজনীয় যুদ্ধাপোকরণ। সততা, একাগ্রতা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে দেশ গড়া ও দেশ রক্ষার কাজে অংশ নিতে হবে। তিনি মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর ৪৪ তম নবীন বিমান সেনাদের সমাপনী কুচকাওয়াজে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগরে অবস্থিত রিক্রুটস ট্রেনিং স্কুল (আরটিএস)-এ প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথাগুলো বলেন ।
মঙ্গলবার সকাল সোয়া ১০টায় বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চীফ মার্শাল আবু এসরার, বিবিপি, এনডিসি, এসিএসসি একটি হেলিকপ্টারে করে কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর বিমান বন্দরে অবতরণ করে সাড়ে ১০টায় বিএএফ আরটিএস প্যারেড গ্রাউন্ডে এসে মনোজ্ঞ সমাপনী কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করেন। ৪৪তম বিমান সেনার কুচকাওয়াজের মাধ্যমে ৬৫২ জন রিক্রুট বাংলাদেশ বিমান বাহিনীতে অন্তুর্ভুক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে এসি-২ মো: এনায়েত উল্লাহ এবং এসি-২ আজহারুল ইসলাম যথাক্রমে শিক্ষা ও জেনারেল সার্ভিস ট্রেনিং-এ সেরা রিক্রুট বিবেচিত হয়েছে। এসি-২ মো: এনোয়েত উল্লাহ সার্বিক বিষয়ে নৈপুণ্যের জন্য শ্রেষ্ঠ রিক্রুট বিবেচিত হয়। এর আগে বিমান বাহিনী প্রধান প্যারেড গ্রাউন্ডে এসে পৌছলে বিমান বাহিনী ঘাটি বাশারের এয়ার অধিনায়ক এয়ার ভাইস মার্শাল এম আবুল বাশার, ওএসপি, এনডিসি, পিএসসি বিমান বাহিনী প্রধানকে স্বাগত জানান।
কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মাঝে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, স্থানীয় সামরিক ও বেসামরিক গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও রিক্রুটদের অভিভাবকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

কমলকুঁড়ি পত্রিকা ৩০ নভেম্বর ২০১৬

page-1-copy

page-2-copy

page-3-copy

page-4-copy

উৎসব মুখর পরিবেশে লন্ডনে আমাদের মৌলভীবাজার ইউকের তৃতীয় মিলন মেলা অনুষ্ঠিত

মকিস মনসুর, বৃটেন থেকে ॥

amader_moulvibazar-02

আমাদের মৌলভীবাজার ইউকে ওয়াটসআপ গ্রুপের উদ্দোগে অতি সম্প্রতি সেন্ট্রাল লন্ডনের ব্রিকলেনের সোনার গাঁও রেষ্টুরেন্টে তৃতীয় মিলন মেলার আয়োজন করা হয়। ব্রিটেনের বিভিন্ন শহর থেকে বিপুল সংখ্যক মৌলভীবাজার বাসীর প্রানবন্ত উপস্হিতিতে মিলন মেলা অনুষ্টানে দিয়েছে ভিন্ন মাত্রা। এই অনুষ্ঠান ছিলো ব্রিটেনে বসবাসরত আমাদের মৌলভীবাজার এর শেকড়ের টানের বিশেষ আকষণ। এ যেনো এক প্রানের বন্ধন, আত্মার আত্মীয়তা। মনে হয়েছিল লন্ডনের বুকে এক খন্ড মৌলভীবাজার। পুরো অনুষ্ঠান ছিল উৎসব মুখর। বৃটেন থেকে সাংবাদিক মকিস মনসুর আহমদ জানান প্রথমেই কোরআন তেলাওয়াত ,পরিচিতি পর্ব , কেক কাটা , দুপুরের খাবার , কবিতা আবৃত্তি, আলোচনা সভা, কৌতুক ,মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও সব শেষে ছিলো আকর্ষনীয় রাফেল ড্র অনুষ্ঠান। এই অনুষ্টানের মাধ্যমে আমাদের অতীত ঐতিহ্যকে ধরে রাখা সহ মৌলভীবাজারবাসীদের একতা আরও সুদূঢ় হবে, আমাদের সেতু বন্ধন হবে অটুট ও আর্তবানবতার সেবায় কাজ করতে বিশাল মাইলফলক হয়ে থাকবে বলে আগতরা অভিমত প্রকাশ করেছেন।
এদিকে আমাদের মৌলভীবাজার ইউকের ওয়াটসআপ গ্রুপের এডমিনদের পক্ষ থেকে বাদল আহমদ, তাজুল ইসলাম ও রাধা কান্ত ধর এবং সংগীত শিল্পী শিবলু রহমান সহ প্রমুখ এডমিনবৃন্দ অনুষ্টান সুন্দর ও সাফল্য করতে সবার আন্তরিকতার কোন কমতি ছিলনা বলে দাবী করে বলেন প্রত্যেকেই সমান ভাবে ধন্যবাদ পাওয়ার অংশীদার এবং আমরা আমাদের পক্ষ থেকে সবাইকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞা জানাচ্ছি। আগামী দিনে আমাদের মৌলভীবাজার ইউকে সকলের সাথে সুসম্পর্ক রেখে আরও সুন্দর বিশাল আয়োজন করতে পারবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন..। অনুষ্ঠানে রাফেল ড্রয়ের মাধ্যমে কালেকশনকৃত সকল পাউন্ড বাংলাদেশের একজন গরীব রুগীর চিকিৎসার জন্য পাঠানো হবে বলে আয়োজকরা জানিয়েছেন।

প্রামাণ্য চলচ্চিত্র “ঝলমলিয়া – The Sacred Water” এর প্রদর্শনী

 বিনোদন রিপোর্ট :

1

স্বাধীন ধারার প্রামাণ্যচলচ্চিত্র নির্মাতা সাইফুল ওয়াদুদ হেলাল পরিচালিত চলচ্চিত্র “ঝলমলিয়া – The Sacred Water” আগামী ৩ থেকে ১০ ডিসেম্বরে অনুষ্ঠেয় ১৪ তম আন্তর্জাতিক স্বল্পদৈর্ঘ ও মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসবে আন্তর্জাতিক প্রামাণ্য চলচ্চিত্র প্রতিযোগীতা বিভাগে প্রদর্শনের জন্য নির্বাচিত হয়েছে। ঢাকার উৎসবে এই প্রদর্শনী হবে ঝলমলিয়ার বাংলাদেশ প্রিমিয়ার। এর আগে “ঝলমলিয়া – The Sacred Water” আমেরিকার নিউইয়র্কের রাজধানী আলবেনিতে ক্যাপিটাল সিনেমা ফিল্ম ল্যব ফাইনালিষ্ট হয়ে উৎসবের সমাপনী চলচ্চিত্র হিসেবে প্রদর্শিত হয়। আমেরিকার পর চেক রিপাবলিকের বার্ণো শহরে ইউরোপের সবচেয়ে পুরোনো পরিবেশ বিষয়ক চলচ্চিত্রের আসর ৪২ তম আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব “ইকোফিল্ম ২০১৬” এর প্রতিযোগীতা বিভাগে প্রদর্শিত হয় ও উৎসবের সর্বোচ্চ পুরস্কার গ্রান্ডপ্রি ও শ্রেষ্ঠ ‘এনভায়রো’ চলচ্চিত্রের জন্য দুটি সম্মানজনক মনোনয়ন লাভ করে। এছাড়া সদ্য সমাপ্ত কোলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবে ঝলমলিয়া বাংলাদেশের একমাত্র প্রামাণ্যচলচ্চিত্র হিসেবে নির্বাচিত হয়ে প্রদর্শিত ও প্রশংসিত হয়। ৪ ডিসেম্বর ঢাকায় প্রিমিয়ার শো এর মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রথমবারের মত প্রদর্শিত হবে বাংলাদেশের জল, কাদা ও মানুষের জীবন ছবি প্রামাণ্যচলচ্চিত্র “ঝলমলিয়া – The Sacred Water”। এরপর আগামী ৮ ডিসেম্বর ঝলমলিয়া দিল্লি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের “এক্রস দ্যা বর্ডার” বিভাগে প্রদর্শিত হবে। মীরা মিডিয়ার ব্যানারে “ঝলমলিয়া – The Sacred Water” প্রযোজনা করেছেন আমিনুর রহমান, মুনীর হোসেন, কাজী মীরা ও শফিউল ওয়াদুদ। ঝলমলিয়া চিত্রগ্রহন করেছেন ফাহমিদা সুমী ও সাইফুল ওয়াদুদ হেলাল। গবেষণা, সম্পাদনা ও নির্মাণ করেছেন সাইফুল ওয়াদুদ হেলাল।

বাংলাদেশের জল, কাদা, জীবনের একটি ঘনিষ্ঠ পর্যবেক্ষণের চলচ্চিত্র, “ঝলমলিয়া – The Sacred Water “। মংলা বন্দরের অনতি দূরে দক্ষিনাঞ্চলের একটি গ্রামে ঘূর্ণিঝড় আইলা পরবর্তী ছয় বছর ধরে এই চলচ্চিত্রের চিত্রগ্রহন করা হয়েছে। এক ঘূর্ণিঝড় হতে পরবর্তী ঘূর্ণিঝড় সতর্কতা পর্যন্ত বাংলাদেশের উপকূলীয় গ্রাম, গ্রামীন জীবন এবং মানুষের জীবনযাত্রাকে নিবিড় ভাবে পর্যবেক্ষন করবার চেষ্টা করা হয়েছে এই ছবিতে।

চলচ্চিত্রের বিষয়বস্তু: বাংলাদেশের দক্ষিন-পশ্বিম উপকুল অঞ্চলের হুড়কা গ্রামে ঝলমলিয়া নামে একটি দীঘি আছে। সমুদ্রের কাছাকাছি হওয়ায় সমগ্র অঞ্চল জুড়ে সুপেয় পানির অভাব। দীঘিটি হয়ে আছে সেই অঞ্চলের মানুষের পানীয় জলের এক মাত্র উৎস। ২০০৯ সালে সাইক্লোন আইলায় সমগ্র অঞ্চল প্লবিত হলেও দীঘিটি রক্ষা পায়। এই দীঘিকে ঘিরেই এই অঞ্চলের মানুষের জীবন যাপন, লৌকিক-অলৌকিক গল্প আর কল্প কথা।

দিন যায়, বদলায় প্রকৃতি, পরিবেশ। প্রকৃতির কোলে বেড়ে ওঠা মানুষের জীবনে তার প্রভাব পড়ে। প্রকৃতির ইচ্ছায় মানুষের ঘর ভাঙ্গে, মানুষ ভীটে ছাড়া হয়। নিজের ইচ্ছায়ও মানুষ ঘর ভাঙ্গে ঘর ছাড়া হয়। মানুষ বদলালে কতটুকু বদলায়? জীবন ভাসতে ভাসতে কখনো কী কোন পথ খুঁজে পায়?

আইলা পরবর্তী ৬ বছর দক্ষিন-পশ্চিম উপকুলের একটি গ্রাম, গ্রামের মানুষ, মানুষের জীবন ও যাপন নিবিড় পর্য্যবেক্ষনের প্রামাণ্য ছবি “ঝলমলিয়া”।

পরিচালকের জীবনী: ১৯৬৭ সালে বাংলাদেশের ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন সাইফুল ওয়াদুদ হেলাল। কানাডার মন্ট্রিয়েল একজন সাংবাদিক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। মন্ট্রিয়েল থেকে সিনেমায় অধ্যয়ন ও টেলিভিশন উৎপাদনে ডিপ্লোমা প্রাপ্তির পর তিনি অনুষ্ঠান নির্মাতা ও সম্পাদক হিসেবে স্থানীয় টেলিভিশন চ্যানেলে কাজ শুরু করেন। লেখালিখি ও সাংবাদিকতার পাশাপাশি তিনি কানাডা এবং বিভিন্ন বিদেশী চ্যানেলের জন্য নির্মাণ করেছেন স্বল্প দৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র, টিভি ম্যাগাজিন এবং প্রামান্যচিত্র।

এনআরবি টিভি পেলো হেরিট্যাজ এ্যাওয়ার্ড ২০১৬

nrv-tv
সিবিএনএ কানাডা থেকে : কানাডার প্রথম ২৪ ঘন্টার বাংলা টিভি চ্যানেল এনআরবি টিভি পেলো ‌হেরিট্যাজ এ্যাওয়ার্ড ২০১৬। যাত্রা শুরুর মাত্র ১০ মাসের মধ্যে এনআরবি টিভি এই পুরস্কার অর্জন করলো। গত ১৯ নভেম্বর সন্ধ্যায় এনআরবি টিভির পক্ষে সম্মাননা প্লাক গ্রহণ করেন এনআরবি টিভির সিইও, বাংলামেইল সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মিন্টু। তার হাতে সম্মাননা প্লাক তুলে দেন শ্যন চেন এমপি এবং সালমা জাহিদ এমপি। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন আয়োজক সংগঠক হেরিট্যাজ বিয়ন্ড বর্ডারস এর সিনিয়র এ্যাডভাইজার আইরিন কেরোগলিডিস ও প্রেসিডেন্ট নীল নন্দা। কানাডিয়ান নন প্রফিট মাল্টিকালচারাল অর্গানাইজেশন হেরিট্যাজ বিয়ন্ড বর্ডারস গত নয় বছর ধরে বিভিন্ন কমিউনিটির সংবাদপত্র, টেলিভিশন, ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা পুরস্কার দিয়ে আসছে। এনআরবি টিভির সিইও শহিদুল ইসলাম মিন্টু বলেন, আমাদের সকল বিজ্ঞাপনদাতা, দর্শক এবং কলা-কুশলীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। এই অর্জনের গর্বিত অংশীদার সংশ্লিষ্ট সবাই।
উল্লেখ্য, গত ১ ফেব্রুয়ারি টরন্টো থেকে যাত্রা শুরু করে এনআরবি টিভি। সম্পূর্ণ এইচডি কোয়ালিটির এই টিভি চ্যানেল এখন বিশ্বের ৪৮টি দেশে ব্রডকাস্ট হচ্ছে। বিনোদনধর্মী টিভি চ্যানেল এনআরবি খুব অল্পসময়েই ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে