সদ্য সংবাদ

বামডো সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন হাজী মোঃ আব্দুল ওয়াহিদ

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

Wahid (1)
বাংলাদেশ মণিপুরী মুসলিম ডেভেলপমেন্ট (বামডো) এর কার্যকরী পরিষদের নির্বাচন আগামী ১৯ জানুয়ারি শুক্রবার কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর রশিদ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক, তেতইগাঁও রশিদ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি, ভান্ডারীগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক (অব:) হাজী মোঃ আব্দুল ওয়াহিদ হরিণ মার্কা নিয়ে প্রার্থী হয়েছেন। তিনি কমলকুঁড়ি পত্রিকার সাথে একান্ত সাক্ষাতে মিলিত হন। নিম্নে তা তুলে ধরা হল:
কমলকুঁড়ি : নির্বাচনে কেন প্রার্থী হয়েছে ?
হাজী মোঃ আব্দুল ওয়াহিদ : প্রার্থী হওয়ার একমাত্র কারণ এ জাতি গোষ্ঠীকে কিভাবে আর অগ্রসর করা যায় এ মনোভাব নিয়ে।
কমলকুঁড়ি : পাশ হওয়ার ব্যাপারে কতভাগ আশাবাদী ?
ওয়াহিদ : শতভাগ ইনশাল্লাহ্ ।
কমলকুঁড়ি : আপনারা ৩জন প্রার্থী। কাকে প্রতিদ্বন্ধি মনে হয়?
ওয়াহিদ : ৩ জনই আমার প্রতিদ্বন্ধি। সাজ্জাদুল হক স্বপন একজন শিক্ষক মানুষ। সম্পর্কে আমার ভাগিনা। আমার চেয়ে শিক্ষায় যোগ্যতায় বেশি। তবে বয়সে আমার ছোট। অন্যদিকে হাবীব আলী সাবেক ইউপি সদস্য ছিলেন। তাই সকলই আমার প্রতিদ্বন্ধি। কাউকে আলাদা করে দেখার অবকাশ নেই।
কমলকুঁড়ি : শুনেছি, নির্বাচনকে সামনে রেখে টাকার ছড়াছড়ি এমনটা অভিযোগ রয়েছে। আপনার মতামত কি ?
ওয়াহিদ : এটি আমার জানা নেই। তবে অন্য প্রার্থী সম্পর্কেও আমার জানার প্রয়োজন মনে করি না।
কমলকুঁড়ি: নির্বাচিত হলে সমাজ উন্নয়নে আপনার ভূমিকা বলুন।
ওয়াহিদ : একটি জাতিকে সামনের দিকে অগ্রসর করতে শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। প্রথমেই শিক্ষার জন্য কাজ করে যাব। কারণ আমি একজন শিক্ষক ছিলাম।  শিক্ষার গুরুত্ব সম্পর্কে আমি জানি। এছাড়া সমাজ উন্নয়নে যা যা করণীয় তা করে যাব।
কমলকুঁড়ি : সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ
ওয়াহিদ : আপনাকেও ধন্যবাদ।