সদ্য সংবাদ

কুয়েতের সালমিয়ায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে কমলগঞ্জ উপজেলার কান্দিগাঁও গ্রামের একই পরিবারের শিশুসহ ৫ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু

কমলকুঁড়ি ডেস্ক

stephen-radford-89716
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার কান্দিগাঁও গ্রামের কুয়েত প্রবাসী মোহাম্মদ
জুনাইদের দুই ছেলে, দুই মেয়ে ও সহধর্মিনীসহ নিহত পাঁচজনের মরদেহ মোবারক আল কবির হাসপাতালের মর্গে রয়েছে বলে জানা গেছে। জানা যায়, হাওয়ালি জেলার সালমিয়ার একটি ভবনের ৪র্থ তলায় চার সন্তান ও স্ত্রী ভাড়া বাংলাদেশি জুনাইদ আহমেদ ।
গত সোমবার (১৬ অক্টোবর) দুপুর ২টার সময় গ্যাস সিলিন্ডার থেকে আগুনের সূত্রপাত বলে জানিয়েছেন সালমিয়া ফায়ার সার্ভিসের এক কর্মকর্তা ।
অগ্নিকাণ্ডের সময় জুনায়েদ আহমেদ অফিসে ছিলেন। বাসায় অবস্থানরত অগ্নিকাণ্ডে মারা গেছেন। তারা হলেন স্ত্রী রোকেয়া বেগম, বড় মেয়ে জামিলা, বড় ছেলে ইমাদ, দিতীয় মেয়ে নাবিলা, ছোট ছেলে ফাহাদ ।
এইদিকে পুরো কুয়েত জুড়ে শোকের ছায়া বিরাজ করছে। প্রবাসী বাংলাদেশীরা শোকাহত ।
কুয়েতস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্টদূত ও কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ক্ষতিগ্রস্ত ও শোকাহত জুনাইদ আহমেদকে সব ধরনের সহযোগিতা দেওয়া হবে।
এ ব্যাপারে কমলগঞ্জের কান্দিগাঁও গ্রামের জুনেদের প্রতিবেশি মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বাড়িতে জুনেদের বৃদ্ধ মা ছাড়া আর কেউ নেই। জুনেদের অপর দুই ভাইয়ের মধ্যে এক ভাই জুবের স্বপরিবারে আমেরিকা ও অপর ভাই সোয়েব স্বপরিবারে লন্ডন বসবাস করেন।
তিনি জানান, অগ্নিকান্ডের সময় জুনায়েদ বাহিরে ছিলেন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। বর্তমানে চিকিৎসা নেয়ার পর তিনি সুস্থ আছেন। আর নিহতদের লাশ কুয়েতের মোবারক আল কাবির হসপিটালে রাখা হয়েছে।
এদিকে তাদের মুত্যু সংবাদ পেয়ে দেশের বাড়িতে অবস্থানরত জুনায়েদের মা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।