সদ্য সংবাদ

বিভাগ: সিলেট বিভাগ

কমলগঞ্জে রহিমপুরে খেলাফত মজলিসের ইফতার মাহফিল

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

screenshot2018-06-06--08_35_14

মৌলভীবাজার কমলগঞ্জ উপজেলার ১নং রহিমপুর ইউনিয়ন খেলাফত মজলিস শাখার ইফতার মাহফিল সম্পন্ন হয়েছে। গত ১৬ রমজান  স্থানীয় মুন্সিবাজার মজলিস কার্যালয়ে শাখার সভাপতি মাওঃ মাশহুদ আহমাদ এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক নাজমুল চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মুহতারাম জেলা সভাপতি অধ্যক্ষ মুহাম্মদ অাব্দুস সবুর। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জেলা সহ-সভাপতি মাওলানা নুরুল মুত্তাকিন জুনাইদ, থানা সভাপতি মুফতি শামসুল ইসলাম লিয়াকত, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসাইন কয়ছর, অফিস সম্পাদক হাফেজ মুস্তাক অাহমদ, সহ- অফিস সম্পাদক ফাত্তাহুর রশিদ চৌধুরী, ৩নং মুন্সিবাজার ইউনিয়ন সভাপতি মাওলানা অাব্দুস শহীদসহ খেলাফত মজলিস ছাত্র মজলিসের বিভিন্ন স্থরের নেতৃবৃন্দ।

কমলগঞ্জে ব্র্যাক সমন্বিত উন্নয়ন কর্মসূচির জীবিকা প্রকল্পের উদ্যোগে বিশ^ পরিবেশ দিবস পালিত

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

Pic -
পরিবেশ বিষয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ’আসুন প্লাস্টিক দূষন বন্ধ করি’- এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ব্র্যাক সমন্বিত উন্নয়ন কর্মসূচির জীবিকা প্রকল্প ও কমলগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের যৌথ উদ্যোগে র‌্যালী, আলোচনা সভা ও পুরুস্কার বিতরণের মধ্যদিয়ে বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (৫ জুন) বেলা ১১টায় উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালী শেষে উপজেলা পরিষদ হলরুমে আলোচনা সভা কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

সাংবাদিক শাহীন আহমদ এর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. শাহাদাত হোসেন, মৌলভীবাজার পরিবেশ সাংবাদিক ফোরাম এর সাধারণ সম্পাদক নূরুল মোহাইমীন মিল্টন, সাংবাদিক মুজিবুর রহমান রঞ্জু, এম.এ.ওয়াহিদ রুলু, কমলগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রনেন্দ্র কুমার দেব, প্রধান শিক্ষক মো: মোশাহিদ আলী। এসময় উপস্থিত ছিলেন ব্র্যাক জীবিকায় প্রকল্পের প্রোগ্রাম অর্গানাইজার মো: আসাদুল হক, রুমা খাতুন, সাংবাদিক শিক্ষক, শিক্ষার্থী সহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার নেতৃবৃন্দ।

সভায় বক্তারা বলেন, আমাদের পরিবেশকে দুষণ মুক্ত এবং পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করতে হলে সকলকে সমন্বিত হয়ে একযোগে কাজ করতে হবে। বনাঞ্চল উজাড় রোধ এবং প্লাস্টিক, পলিথিন বন্ধে সরকার ও প্রশাসনকে উদ্যোগী ভূমিকা পালন করতে হবে। বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে স্কুল পর্যায়ে রচনা প্রতিযোগিতায় দু’টি গ্রুপে ৬ জনকে পুরুস্কার প্রদান করা হয়।

উলে¬খ্য, ব্র্যাক-শেভরন যৌথ উদ্যোগে এবং সহযোগী সংস্থা আইডিয়া’র বাস্তাবায়নে অক্টোবর ২০১৫ হতে বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলের ১১২টি গ্রাম উন্নয়ন সংগঠনের মাধ্যমে প্রায় ২০,০০০ দরিদ্র্য জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে এবং সাংগঠনিক সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে জীবিকা প্রকল্পের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি জীবিকা প্রকল্পের অন্যতম লক্ষ্য হল নারীর উন্নয়ন, অংশগ্রহন ও ক্ষমতায়ন। জীবিকা প্রকল্পের অধীনে ভিডিওগুলোতে মোট সদস্যে ৮০ শতাংশ নারী এবং ভিডিও (গ্রাম উন্নয়ন সংগঠন)-এর পরিচালানা পর্ষদের মোট সদস্যে ৬০ শতাংশ নারী রয়েছে। প্রকল্পের অধীনে ইতোমধ্যেই ১০৫৭ জন নারী ব্যবসায়ী উদ্যোক্তা হিসেবে প্রশিক্ষণ গ্রহনের পাশাপাশি প্রশিক্ষণ পরবর্তীতে তারা ব্যবসার সাথে যুক্ত হচ্ছে। এ সকল নারীরা আয়বর্ধকমুলক কাজের সাথে সর্ম্পৃক্ত হয়েছে এবং পরিবারের আর্থিক সচ্ছলতা উন্নয়নে জোরালো অবদান রাখছে।

কমলকুঁড়ি ।। মো. আব্দুস সামাদ ।।

logo
কমলকুঁড়ি, কমলকুঁড়ি কমলগঞ্জের খবর ঝুড়ি।
ঘটনার সব টাটকা খবর,
লেখার ভাষা আর ছন্দ জবর। সাহিত্য আর খেলার খবর, পাতায় পাতায় রসের খবর। কৃষক, শ্রমিক আর মজুর যত,
পান পুঞ্জি আর বাগান তত, সমতল আর পাহাড়বাসী,
জীব জন্তু আর পশুপাখী,
শিশু কিশোর, অবলা সকল, বঞ্চিত আর শোষিত সবার, নিত্য খবর প্রচারে রত,
সত্য সঠিক প্রকাশে ব্রত। কমলকুঁড়ি, কমলকুঁড়ি, কমলগঞ্জের খবর ঝুড়ি। #

কমলগঞ্জে ট্রেনে কাটা পড়ে নারীর মৃত্যু

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
মৌলভীবাজারের কমলগগঞ্জের শমশেরনগর ও মনু রেলওয়ে স্টেশনের মাঝামাঝি ডাকবেল গ্রাম এলাকায় ট্রেনে কাটা পড়ে অজ্ঞাত পরিচয়ের ৩৫ বছর বয়স্কা এক নারীর মৃত্যু হয়। রোববার (৩ জুন) সকাল ৮টা ৪০ মিনিটের সময় এ ঘটনাটি ঘটে।
শমশেরনগর রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার কবির আহমদ জানান, রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তিনি এ দুর্ঘটনাটি জেনে শ্রীমঙ্গলস্থ রেলওয়ে থানাকে অবহিত করেন। পরে রেলওয়ে পুলিশ সদস্যরা এসে লাশের সুরতহাল তৈরী করে ঘটনাস্থল থেকে লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নিয়ে গেছে। তিনি আরও বলেন, ধারনা করা হচ্ছে ঢাকাগামী কালনি এক্সপ্রেস ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে এ ঘটনাটি ঘটে। শ্রীমঙ্গল রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক আবু বকর সিদ্দিক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এখন পর্যন্ত নিহতের পরিচয় জানা যায়নি। লাশটি ময়না তদন্তের জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

কমলগঞ্জে মসজিদের পাশে জামায়াত নেতাদের ইসলামীর মসজিদ নির্মাণ নিয়ে উত্তেজনা ॥ থানায় অভিযোগ

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর ইউনিয়নের কেছুলুটি গ্রামে দুইটি মসজিদ থাকার পরও জামায়াতে ইসলামী ও জামায়াত শিবির নেতার উদ্যোগে নতুন মসজিদ স্থাপন নিয়ে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। এলাকাবাসীর আপত্তি উপেক্ষা করে জামায়াতে ইসলামী নেতার মসজিদ নির্মাণে এলাকাবাসীর পক্ষে রবিবার কমলগঞ্জ থানা ও পুলিশ সুপার সহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।
এলাকাবাসীর লিখিত অভিযোগে জানা যায়, কেছুলুটি গ্রামের দক্ষিণাংশে ও উত্তরাংশে পৃথক দুইটি মসজিদে দুই পাশের   মসজিদদ্বয়ে মুসল্লিরা নিয়মিত নামাজ আদায় করে আসছেন। সম্প্রতি জামায়াতে ইসলাম ও ছাত্রশিবির নেতা আব্দুল মছব্বির তার নিজ বাড়ির সম্মুখে জামায়াত শিবির এর কতিপয় লোকজনকে নিয়ে একটি নতুন মসজিদ নির্মাণের কাজ শুরু করেন। তাতে এলাকার ছুন্নী মুসলমান বাঁধা প্রদান করলেও এলাকার বাঁধা উপেক্ষা করে মসজিদের কাজ চালিয়ে যান। ফলে এলাকার মুসলমান সর্বসাধারণের মধ্যে মারাত্মক উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। ফলে যেকোন সময় সংঘর্ষে রূপ নিতে পারে। অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, আব্দুল মছব্বির জামায়াতে ইসলামী শমশেরনগর আঞ্চলিক শাখার সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। সে সুযোগে বিভিন্ন সময়ে জামায়াত শিবিরের লোকেরা তার বাড়িতে আসা যাওয়া করেন এবং বিভিন্ন ঘরোয়া বৈঠক করেন। কয়েকদিন আগেও তার বাড়িতে জামায়াতে ইসলামীর ইফতার পার্টিও অনুষ্ঠিত হয়। মসজিদ নির্মাণের মাধ্যমে তিনি এলাকায় জামায়াতে ইসলামীর কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার পায়তারা করছেন। কেছুলুটি গ্রামের দুরুদ আলী, সফিক মিয়া সহ গ্রামবাসীরা বলেন, দুইটি মসজিদ থাকার পরও জামায়াতে ইসলামীর নেতা নতুন মসজিদ নির্মাণের নামে এলাকায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির পায়তারা সৃষ্টি করছেন। এজন্য কমলগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসক সহ বিভিন্ন দপ্তরে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।
অভিযোগ বিষয়ে আব্দুল মছব্বির বলেন, একান্ত পারিবারিক উদ্যোগে মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে। আমার ভাইয়েরা টাকা দিয়ে এই মসজিদ নির্মাণ করছেন। জামায়াতে ইসলামীর সাথে কোন সম্পৃক্ততা নেই।
কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোকতাদির হোসেন পিপিএম অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, শমশেরনগর ফাঁড়ির আইসিকে বিষয়টি তদন্তের জন্য বলেছি। শমশেরনগর ফাঁড়ির ইনচার্জ অরুপ রায় চৌধুরী বলেন, অভিযোগে পেয়ে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তদন্তক্রমে গুরুত্বের সহিত খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

কমলগঞ্জে শিক্ষা বৃত্তি, ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা ঋণ, ঢেউটিন ও নগদ অর্থ বিতরণ

013

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী মেধাবী ২০ জন শিক্ষার্থীকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অর্থায়নে নগদ ৫ হাজার টাকা করে ১ লাখ টাকা, ২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত কমলগঞ্জের ১৫১জন শিক্ষার্থীকে জনপ্রতি ১ হাজার টাকা করে মোট ১ লাখ ৫১ হাজার টাকা, একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের আওতায় ২২ জনকে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা হিসাবে জনপ্রতি ৫০ হাজার টাকার করে মোট ১১ লাখ টাকা ঋণ, ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত কমলগঞ্জ পৌরসভার ১১ পরিবারকে এক বান্ডিল করে টিন ও নগদ ৩ হাজার টাকা এবং পৌরসভা এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত ২০০ জনকে ১০ কেজি করে চাল আনুষ্ঠানিকভাবে বিতরণ করা হয়। গতকাল রোববার (৩ জুন) বেলা ২টায় কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে শিক্ষা বৃত্তি, ক্ষুদ্র ঋণ ও ত্রাণ বিতরণ করেন সিলেট বিভাগীয় কমিশনার (অতিরিক্ত সচিব) ড. মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম।

011
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুর হকের সভাপতিত্বে ও প্রধান শিক্ষক মোশাহিদ আলীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক মো: তোফায়েল ইসলাম, কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান পারভীন আক্তার (লিলি), ভাইস চেয়ারম্যান মো: সিদ্দেক আলী, কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো: জুয়েল আহমেদ, কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: মোকতাদির হোসেন পিপিএম, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান।

কমলগঞ্জে কমিউনিটি বেইজড পর্যটন ও জনসচেতনতা শীর্ষক কর্মশালা : পর্যটন সেবা সমৃদ্ধ হলে দেশে নতুন দিগন্ত উম্মোচিত হবে—– সিলেট বিভাগীয় কমিশনার

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

12
সিলেট বিভাগীয় কমিশনার (অতিরিক্ত সচিব) ড. নাজমানারা খানুম বলেছেন, জাপানসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ তাদের নিজস্ব কালচারকে সমৃদ্ধ করছে, আর আমরা নষ্ট করছি। আমরা বনজঙ্গল কেটে হোটেল তৈরি করছি। পাথর কেটে, টিলা কেটে প্রকৃতিকে ধ্বংস করছি। অথচ এগুলো পর্যটন কেন্দ্রের অফুরন্ত সম্ভাবনা। সিলেটের প্রত্যন্ত অঞ্চল কমলগঞ্জে কমিউনিটি ট্যুরিজমের এই উদ্যোগ সফল হলে দেশে নতুন দিগন্ত উম্মোচিত হবে। তিনি রোববার সকাল সাড়ে ১১টায় মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের আদমপুরে মণিপুরী কালচারাল কমপ্লেক্সে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড ও আজিয়ার কমিউনিটি বেইজড ট্যুরিজম আয়োজিত ‘কমিউনিটি বেইজড পর্যটন ও জনসচেতনতা’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালার শুভ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড ও আজিয়ার কমিউনিটি বেইজড ট্যুরিজম আয়োজিত কর্মশালায় আজিয়ার নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিদ হোসেন শামীম এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক মো. তোফায়েল ইসলাম, কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক, কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো: মোকতাদির হোসেন পিপিএম, আদমপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবদাল হোসেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে আজিয়ার এর নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিদ হোসেন শামীম ভিডিও প্রজেক্টের মাধ্যমে আদমপুর ইউনিয়নের মণিপুরী সম্প্রদায়ের দশটি বাড়ি ও তাদের ব্যবহৃত জিনিসপত্র, ভেষজ গুণ সম্পন্ন খাবারের মেন্যু, বাঁশের তৈরি কুটির শিল্প, তাঁত সহ বিভিন্ন উৎপাদিত পণ্য সামগ্রীর সার্বিক চিত্র তোলে ধরেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিলেট বিভাগীয় কমিশনার ড. নাজমানারা খানুম আরও বলেন, দেশের কৃষি উৎপাদন ট্যুরিস্টদের সখ্য বিষয়। কৃষি, কালচারাল ও কৃষ্টিকে যথাযথভাবে তোলে ধরতে পারলে ট্যুরিজম আরো আকৃষ্ট হবে। বৃহত্তর সিলেটের পাহাড়-টিলা, অবারিত হাওর, চা বাগান এগুলো মানুষকে আকৃষ্ট করবে। এই সম্পদ ও প্রকৃতিকে বিনষ্ট করে ট্যুরিজম নয়। আমাদের বিপুল পরিমাণ এই সম্পদ ও প্রকৃতিই ট্যুরিজমকে বাঁচিয়ে রাখবে। এই সম্পদ ও প্রকৃতিকে রক্ষায় সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। স্থানীয় বাসিন্দাদের সম্পৃক্ত করার মাধ্যমে তাদের আর্থিক উন্নয়ন ও নিজস্ব সংস্কৃতি পরিচিতির ভেতরে বিভিন্ন স্তরের মানুষকে সম্পৃক্ত ও পর্যটক বান্ধব সেবা নিশ্চিত করার লক্ষে সিলেট বিভাগে প্রথমবারের মতো কমলগঞ্জের আদমপুরে ভানুবিল মাঝের গাঁও কমিউনিটি ট্যুরিজম এর যাত্রা উপলক্ষে প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি।

শমশেরনগরে পৃথক স্থানে পুলিশের অভিযানে ১০ লিটার মদ ও ৭০ পিছ ইয়াবাসহ ২ জন আটক

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

Pic - Snogor

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে পৃথক পৃথক স্থানে অভিযান পরিচালনা করে ১০ লিটার মদ ও ৭০ পিছ ইয়াবাসহ ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার (২ জুন) উপজেলার শমশেরনগর এলাকায়। এ ঘটনায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ি সূত্রে জানা যায়, শনিবার বিকাল ৫টায় কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর ইউনিয়নের দণি ভাদাউদেউল এলাকায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ অরূপ কুমার চৌধুরীর নেতৃত্বে এসআই শাহ আলম, এএসআই আয়াছ মিয়া, এএসআই সাইদুল ইসলামসহ সঙ্গীয় ফোর্স অভিযান পরিচালনা করে মন্টু রবিদাস (৪৫) কে ১০ লিটার মদসহ আটক করা হয়। মন্টু রবিদাস দণি ভাদাউদেউল গ্রামের লছমী রবিদাসের ছেলে।
অন্যদিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ অরূপ চৌধুরীর নেতৃত্বে এসআই শাহ আলম, এএসআই আয়াছ মিয়া, এএসআই সাইদুল ইসলামসহ সঙ্গীয় ফোর্স অভিযান পরিচালনা করে শনিবার রাত ৮টায় শমশেরনগর চা বাগানের চাতলাপুর রোডস্থ স্থানীয় ইউপি সদস্য ইয়াকুব মিয়ার দোকানের সম্মুখ হতে ৭০ পিছ ইয়াবা ব্যবসায়ী আব্দুল্লাহ (২৮) কে আটক করা হয়। সে কুলাউড়া উপজেলার সঞ্জবপুর (তেলিবিল) গ্রামের আব্দুল রউফ এর ছেলে। শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ অরূপ কুমার চৌধুরী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে কমলকুঁড়িকে বলেন, এ ব্যাপারে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

দখলদার কর্তৃক দিঘীতে স্থানীয় শব্দকর সম্প্রদায়ের অধিকার হরণের অভিযোগ : কমলগঞ্জে রাজদিঘীর সরকারি জলাশয় উদ্ধারে প্রতিপক্ষের বাঁধা

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

PIC-02
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার পতনঊষার ইউনিয়নের রাজদিঘীরপার বাজার সংলগ্ন বিশাল রাজদিঘীর অর্ধেক সরকারি জলাশয় উদ্ধারে দখলদার বাহিনী বাঁধা প্রদান করছে। দখলদার কর্তৃক দিঘীরপারে গড়ে উঠা স্থানীয় শব্দকর সম্প্রদায় জলাশয়ে গোসল ও পানি ব্যবহারের অধিকার হরণ ও নানাভাবে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে। শনিবার বিকালে সরেজমিনে গেলে এ চিত্র পাওয়া যায়। এ ঘটনায় এলকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোন সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা রয়েছে।
স্থানীয় এলাকাবাসী ও পতনঊষার ইউনিয়ন পরিষদের ১, ২, ৩ ও ৪ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রিপন ইসলাম ময়নুল, আং কুদ্দুছ, এখলাছ মিয়া ও সায়েক আহমদ জানান, রাজদিঘীরপার বাজার ঘেষা ৪ একর ৪৪ শতাংশ জলাশয় নিয়ে নিয়ে বিশাল দিঘীর ৫০ শতাংশ ২ একর ২২ শতাংশ সরকারি ও অবশিষ্ট ২ একর ২২ শতাংশ ব্যক্তি মালিকানাধীন। এই সুযোগে দিঘীর আংশিক মালিক আসিকুর রহমান আসুক ও তার উত্তরাধীকারী মনসুর আহমদ, মুমিনুর রহমান দীর্ঘ প্রায় দুই যুগের অধিক সময় ধরে পুরো দিঘীর জলাশয় দখলে নিয়ে এককভাবে ভোগ করছেন। তারা প্রতিবছর সরকারকে ১১ হাজার টাকা রাজস্ব দিয়ে প্রায় তিন লাখ টাকায় সাব লিজ প্রদান করেন। এই দিঘীতে স্থানীয় শব্দকর সম্প্রদায়সহ অন্য কারো ব্যবহারে তারা বাঁধা প্রদান করেন। শনিবার বিকালে সরেজমিনে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুল কুদ্দুছ আখন্দ, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. শাহাদাত হোসেন, সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা আসাদ উল্ল্যাহ ও সাংবাদিকরা সরকারি অংশের উদ্ধার কার্যক্রম দেখতে গেলে দখলদার মনসুর আহমদ, মোমিনুর রহমানসহ তাদের অনুসারী লোকজন আক্রমনাত্মক কথাবার্তা বলে সরকারি কর্মকর্তা ও সাংবাদিকদের উপর মারমুখী হয়ে উঠেন। সরকারি কর্মকর্তা ও সাংবাদিকরা ঘটনাস্থল থেকে চলে আসার পর দখলদাররা সরকারি জলাশয়ে কর্মরত শ্রমিকদের জোর করে তাড়িয়ে দিয়ে প্রায় শতাধিক বাঁশের খুঁটি উপড়ে ফেলে দেয়। খবর পেয়ে কমলগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গেলে দখলদাররা পালিয়ে যায়। রাজদিঘীর পারের ২২টি শব্দকর ও ৩২ টি সাধারণ মুসলিম পরিবার এ ঘটনায় নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন।
রাজদিঘীর পারের শব্দকর বস্তির অনিমা শব্দকর, রবীন্দ্র শব্দকর অভিযোগ করে বলেন, দিঘীর সরকারি জলাশয়ে আমরা গোসল করতে, কিংবা পানি ব্যবহার করতে চাইলে দখলদারের লোকজন ও তাদের কেয়ারটেকার মোতালিব মিয়া আমাদের মারধর করে তাড়িয়ে দেন। আমরা পানির সুবিধার কারণে দিঘীতে গোসল করতে পারি না। রাজেন্দ্র শব্দকর বলেন, দিঘীতে বরশি নিয়ে মাছ ধরতে গেলে মোতালিব মিয়া লাঠি দিয়ে পিটিয়ে আমার স্ত্রী লক্ষ্মী শব্দকরতে গুরুতর আহত করেন। পরে দীর্ঘদিন অসুস্থ থাকার পর আমার স্ত্রী মারা যায়।
তবে অভিযোগ বিষয়ে মোতালিব মিয়া বলেন, তিনি দিঘীতে গোসল করতে কাউকে বাঁধা দেননি এবং মারধোর করেননি। একটি চক্র এ ধরণের মিথ্যা অভিযোগ তৈরি করেছে। মনসুর আহমদ ও মোমিনুর রহমান বলেন, দিঘীর জলাশয় একত্রিত থাকার কারনে আমরা সরকারকে রাজস্ব প্রদান করে লিজ নিয়ে ভোগ করছি। আমরা সরকারি অংশ দখল করিনি। এই অভিযোগ মিথ্যা। তবে এ সংক্রান্ত বিষয়ে আদালতে স্বত্ব মামলার জন্য প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নোটিশ দেয়া হয়েছে।
শব্দকর সমাজ উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি লেখক-গবেষক ও উন্নয়ন চিন্তক আহমদ সিরাজ বলেন, ঐতিহ্যবাহী রাজদিঘীটি অসাম্প্রদায়িক চরিত্র দীর্ঘদিন ধরে বহন করে আসছে। এখানে একদিকে হিন্দুদের শ্মশান ও মন্দির, অন্যদিকে মুসলমানদের কবরস্থান ও মসজিদ রয়েছে। এছাড়া দিঘী সংলগ্ন একটি বাজার রয়েছে। এই দিঘীকে কেন্দ্র করে এখানে অসাম্প্রদায়িক মানুষের একটি মেলবন্ধন তৈরী হয়েছে। রাজদিঘীর পারে বসবাসকারী ৫৪টি পরিবারের গরীব হিন্দু-মুসলমানদের জন্য এই দিঘীটি ব্যবহারের মাধ্যমে তাদের আর্থ সমাজিক উন্নয়নে কাজে লাগানো প্রয়োজন বলে আমি মনে করি।
কমলগঞ্জ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. শাহাদাত হোসেন বলেন, রাজদিঘীর পারে মৎস্য অধিদপ্তর থেকে ১২ লক্ষ ৯০ হাজার টাকার একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। প্রকল্পের কাজও শুরু হয়েছে। স্থানীয় এলাকাবাসীর অভিযোগ পেয়ে খোঁজ নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে সরেজমিনে পরিদর্শন শেষে বিশাল দিঘীর জলাশয়ের সরকারি অংশ উদ্ধারে কার্যক্রম শুরু করি। তাতে দখলদাররা বিভিন্নভাবে বাঁধা প্রদানের চেষ্টা করেন। এই প্রকল্পের সুফল পাবে স্থানীয় শব্দকরসহ দিঘীর পারে বসবাসকারী ৫৪টি পরিবার।
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক বলেন, সরেজমিন রাজদিঘীর বিশাল জলাশয় দেখে ও জলাশয়ের অর্ধেক মালিকদের ডেকে সরকারি অংশ ছেড়ে দিতে বলা হয়েছে। তারা তাতে রাজি হওয়ায় দিঘীর সরকারি জলাশয় উদ্ধারে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে কার্যক্রম শুরু হয়েছে। সার্ভে শেষ করে ইতিমধ্যে দিঘীর মাঝামাঝি বাঁশের খুঁটি স্থাপন করা হয়েছে। এখন যদি জলাশয়ের সরকারি অংশ উদ্ধারে কেউ বাঁধা প্রদান করেন তাহলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ইয়াবায় মৃত্যুদণ্ডের বিধান আসছে

  ডেস্ক রিপোর্ট :

ইয়াবায় সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ শিগগিরই সংসদে বিল আকারে তোলা হবে। এরই মধ্যে আইনের খসড়া একটি উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন কমিটি চূড়ান্ত করেছে। নতুন এই আইনে ইয়াবার গডফাদার, নির্দেশক, পরামর্শক ও মজুতকারীদের বিরুদ্ধেও সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে। একইভাবে সেবনকারী, বহনকারী ও উৎপাদনকারী প্রত্যেকের জন্য আলাদাভাবে শাস্তির বিধান থাকছে। এছাড়া আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কেউ যদি মাদক বিষয়ে কোনও অপরাধ করে তাহলে তাকেও সাধারণ অপরাধীদের মতো শাস্তির আওতায় আনা হবে।
আইনটিকে সময়পযোগী করতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একাধিকবার আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। আগামী রবিবারও (৩ জুন) একটি বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের মহাপরিচালক মো. জামাল উদ্দীন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।