সদ্য সংবাদ

বিভাগ: সিলেট বিভাগ

সিলেট শিক্ষাবোর্ডের নতুন চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুছ

54920-300x235

সিলেট: সিলেট মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুছ। বর্তমানে তিনি সিলেট মুরারিচাঁদ (এমসি) কলেজের উপাধ্যক্ষের দায়িত্বে রয়েছেন।বৃহস্পতিবার (১৫ মার্চ) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব ফাতেমা তুল জান্নাত এর স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে আব্দুল কুদ্দুসকে শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে পদায়ন করা হয়।

শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া তাপাদার অবসরে যাওয়ায় কিছুদিন ধরে এই পদটি খালি পড়েছিলো। অবশেষে নতুন চেয়ারম্যান হলেন আব্দুল কুদ্দুস।মো. আব্দুল কুদ্দুছ সপ্তম বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে ১৯৮৮ সালে সিলেট সরকারি আলিয়া মাদ্রাসায় প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৯৩ সালে প্রথম তিনি এমসি কলেজের শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। গত ৪ জানুয়ারি অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুছ এমসি কলেজে উপাধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব গ্রহন করেন।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করা অাব্দুল কুদ্দুছের গ্রামের বাড়ী মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলায়।

ভোলাগঞ্জে মাটিচাপায় নিহত শ্রমিকের সংখ্যা বেড়ে ৫ : দু’টি তদন্ত কমিটি গঠন

10

সিলেট :

সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ভোলাগঞ্জ পাথর কোয়ারিতে মাটিচাপায় নিহত শ্রমিকের সংখ্যা বেড়ে ৫ দাঁড়িয়েছে। পাঁচ শ্রমিক নিহতের ঘটনা খতিয়ে দেখতে দু’টি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।গতকাল রবিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ৯টার দিকে শ্রমিকরা জেনারেটর চালিয়ে পাথর উত্তোলন করার সময় কোয়ারির কিছু অংশ শ্রমিকদের ওপর ধ্বসে পড়লে ঘটনাস্থল থেকে দুই শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সময় আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে কোয়ারীতে পুলিশের উদ্ধার অভিযানে বেরিয়ে আসে আরো দুটি লাশ। এবং বিকেলে নিখোঁজ অপর একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। সব মিলে ভোলাগঞ্জ পাথর কোয়ারিতে নিহতের সংখ্যা পাঁচে দাঁড়িয়েছে।নিহত হলেন- সুনামগঞ্জের মুরাদপুর এলাকার আসকর আলীর ছেলে রুহুল আমিন (২২) ও একই এলাকার হযরত আলীর ছেলে মতিবুর (৩২), মঈন উদ্দিন (৩০), মতিউর রহমান (৩০), আশিসের (৩৮)।জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কোয়ারির লেবার সর্দার আব্দুর রউফকে (৫০) আটক করেছে পুলিশ। আটক আব্দুর রউফ সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা। তবে এ ঘটনায় এখনো মামলা হয়নি বলে জানান কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) দিলীপ কান্ত নাথ। এদিকে, সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে তিন সদস্যের ও পুলিশ প্রশাসনের উদ্যোগে দুই সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটির সদস্যরা ইতোমধ্যে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।সিলেটের পুলিশ সুপার (এসপি) মো. মনিরুজ্জামান এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উত্তর) আবুল হাসনাতকে প্রধান করে একটি কমিটি গঠনা করা হয়েছে। কমিটি সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করবেন। কোম্পানীগঞ্জ সার্কেল এএসপি মতিয়ার রহমানও এই কমিটিতে কাজ করবেন।অপর কমিটিতে জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রেভিনিউ) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহকে প্রধান করে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও আডিসি মো. আশরাফুল আলমকে রাখা হয়েছে। এই তদন্ত কমিটিকেও সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

গোয়াইনঘাটে রাষ্ট্রপতির ভাতিজী পরিচয়ে ইউএনওকে প্রকাশ্যে হুমকি

গোয়াইনঘাট  সংবাদদাতা

10

গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিশ্বজিত কুমার পালকে প্রকাশ্যে হুমকি দিয়ে আলোচনায় এসেছে নাসিমা নামের এক মহিলা। এ নিয়ে গণ মাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ গোয়াইনঘাটের সর্বত্র আলোচনা সমালোচনার ঝড় বইছে।গত রোববার বিকেলে সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার চেঙ্গেরখাল নদী থেকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার খবর পেয়ে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে গোয়াইনঘাটের ইউএনও বিশ্বজিত কুমার পালের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালতের একটি প্রতিনিধি দল সেখানে অভিযান চালায়। অভিযানে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার দায়ে নৌকাসহ একটি ড্রেজার মেশিন আটক ও মেশিনের মালিক শিপন আহমদকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।এ সময় নাসিমা নামের এক মহিলা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে নিজেকে মহামান্য রাষ্ট্রপতির ভাতিজী পরিচয় দিয়ে জরিমানার কারণ জানতে চায়। সেই সাথে কেন তিনি (ইউএনও) জরিমানা করলেন সেটা দেখে নিবেন বলেও হুমকি দেন। ইউএনওকে প্রকাশ্যে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করায় বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়েন ভ্রাম্যমাণ আদালতের কর্মকর্তারা।ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী এক ব্যক্তি জানান, নাসিমা নিজেকে রাষ্ট্রপতির ভাতিজী পরিচয় দিয়ে ইউএনও বিশ্বজিত কুমার পাল সহ উপস্থিত কর্মকর্তাদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করতে থাকেন। এক পর্যায়ে তিনি ইউএনওকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন। এ সময় মহিলার এমন আচরণে অনেকটা অপমানিত হয়েই ভ্রাম্যমাণ আদালতের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।এ ব্যাপারে নাসিমা বেগম’র সাথে মোবাইল ফোনে আলাপকালে তিনি ইউএনওর সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ ও হুমকির বিষয়টি অস্বীকার করেন। এছাড়া তিনি মহামান্য রাষ্ট্রপতির কোন আত্মীয় নন বলেও জানান।
এ বিষয়ে গোয়াইনঘাটের ইউএনও বিশ্বজিত কুমার পাল’র সাথে কথা বলতে চাইলে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।জানা যায়, প্রায় তিন বছর আগে সিলেট সদর উপজেলার খাদিম নগর ইউনিয়নের ছামাউরা কান্দি গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের পুত্র সৌদি প্রবাসী নজরুল ইসলামের সাথে নাসিমা বেগমের দ্বিতীয় বিয়ে হয়। এরপর থেকেই তিনি ওই এলাকায় নিজেকে রাষ্ট্রপতির ভাতিজী পরিচয় দিয়ে আসছেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। একই পরিচয়ে তিনি গোয়াইনঘাটের চেঙ্গের খাল বালু মহাল থেকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে বাধাঘাট এলাকায় বিক্রির মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

মাধবপুরে ২০ হাজার পিস ইয়াবাসহ একই পরিবারের ৫ সদস্য আটক

received_2041496692764082-600x383

হবিগঞ্জ সংবাদদাতা::

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলায় ২০ হাজার পিস ইয়াবাসহ একই পরিবারের পাঁচ সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। রোববার উপজেলার মুন্সী টাওয়ার এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়। হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরা এ খবর নিশ্চিত করেন।একটি সূত্র জানায়, চট্টগ্রাম থেকে জিপে করে ইয়াবার এ চালান সিলেটে আসছিল। আটককৃতরা হলেন-সিলেটের কোতোয়ালী থানার গোয়াইপাড়া এলাকার মৃত ছন্দু মিয়ার ছেলে আবুল কালাম (৪৮), তার স্ত্রী মোছা. ফাতেমা (৩৮), মেয়ে রহিমা কালাম রুহী (২১), ছেলে ইমন আহমেদ (২৩) ও তার স্ত্রী শামীমা আক্তার শাম্মী।   পুলিশের দাবি, তাদের কাছ থেকে জব্দ করা ইয়াবার বাজার মূল্য ৬০ লাখ টাকা। এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরা জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে একটি গাড়ি থেকে তাদের আটক করা হয়। তবে চালক পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আটক করা যায়নি। পুলিশ গাড়ি তল্লাশি করে ২০ হাজার পিস ইয়াবা পায়।

তিনি আরও জানান, আটককৃতদের দাবি, ইয়াবার ব্যাপারে তারা কিছু জানে না। তবে তাদের এ দাবির সঙ্গে কথাবার্তার কোনও মিল নেই।

মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে শুরু করবেন নির্বাচনী প্রচারণা ॥ শতাধিক নেতাকর্মী নিয়ে কাল সিলেট আসছেন খালেদা জিয়া

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদের পর এবার সিলেট সফরে আসছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। আগামীকাল সোমবার ৫ ফেব্র“য়ারি বিএনপি চেয়ারপার্সন সড়ক পথে সিলেটে আসবেন বলে জানিয়েছেন সিলেট জেলা বিএনপিরসাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম ও মহানগর বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আজমল বখত সাদেক।
আলী আহমদ জানান, গতকাল শনিবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে দলের চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সিলেট সফরসূচি চূড়ান্ত হয়েছে। খালেদা জিয়া ওই দিন হযরত শাহজালাল (রহ.) ও শাহপরান (রহ.) এর মাজার জিয়ারত করবেন। তিনি ওই দিন সিলেটে রাতযাপন করবেন। এদিকে, খালেদা জিয়ার সিলেট আগমনের সংবাদ পেয়ে উজ্জীবিত দলের নেতা-কর্মীরা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে দলের নেতা-কর্মীরা বিষয়টি ব্যাপক হারে প্রচার করছেন। তিনি সোমবার সকালে গুলশানের কার্যলয় থেকে গাড়ি বহর নিয়ে সড়ক পথে সিলেট উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিবেন। এই সফরে থাকবেন কেন্দ্রীয় নেতারাসহ শতাধিক নেতাকর্মী।
মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম ও মহানগর বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আজমল বখত সাদেক জানান, সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া সোমবার সকালে বিএনপির গুলশানের কার্যালয় থেকে গাড়ি বহর নিয়ে সড়ক পথে সিলেটের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিবেন। সিলেট পৌঁছাবেন বিকেল ৪ টার দিকে। সিলেট এসে প্রথমে তিনি শাহজালাল (রহ.) ও শাহপরান (রহ.) মাজার জিয়ারত করে রাতে সিলেট সার্কিট হাউসে রাত্রী যাপন করবেন। খালেদা জিয়ার সড়ক পথের সফরে সঙ্গে থাকা শতাধিক নেতাকর্মীরা রাত্রী যাপন করতে ইতিমধ্যেই নগরীর বিভিন্ন কমিনিউটি সেন্টার ও হোটেল গুলোতে বুকিং দেয়া হয়েছে। বদরুজ্জামান সেলিম আরো বলেন, ঢাকা থেকে সিলেট আসার পথে কয়েকটি পথসভায় বক্তৃতা করার কথাও রয়েছে। বেগম খালেদা জিয়া রাতে সিলেট সার্কিট হাউসে রাত্রী যাপন করে পরদিন ভোরে আবারও সড়ক পথে ঢাকার উদ্দেশ্য রওয়ানা দিবেন। এছাড়া খালেদা জিয়ার সিলেট আসার পেছনে আরেকটি উদ্দেশ্য হচ্ছে আগামী সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্বাচনি প্রচারণা শুরু করা। প্রতিবার তিনি সিলেট থেকেই নির্বাচনি প্রচারণা শুরু করেন। এর আগে গত ২০১৩ সালের ৫ অক্টোবর সিলেট আসেন খালেদা জিয়া।
উল্লেখ্য, গত ৩০ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং গত ১ ফেব্র“য়ারি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদ সিলেট সফর করে দুই আউলিয়ার মাজার জিয়ারত করেন। তারা ওইদিন থেকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচারণা শুরুর ঘোষণা দেন।

প্রধানমন্ত্রী তিন ওলির মাজার জিয়ারত করেছেন

1

কমলকুঁড়ি ডেস্ক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেটে পৌঁছে তিন ওলির মাজার জিয়ারত করেছেন। মঙ্গলবার সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে বিমানযোগে ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছার পর আওয়ামী লীগ সভানেত্রী একে একে হজরত শাহজালাল (রহ.), হজরত শাহপরাণ (রহ.) ও হজরত গাজী বোরহান উদ্দিনের (রহ.) মাজার জিয়ারত করেন। বেলা সোয়া ১১টার দিকে প্রধানমন্ত্রী হজরত শাহজালালের (রহ.) মাজারে পৌঁছান। তিনি মাজার জিয়ারত, ফাতিহা পাঠ ও মোনাজাত করেন। পরে দুপুর পৌনে ১২টার দিকে হজরত শাহপরাণের (রহ.) পৌঁছে মাজার জিয়ারত, ফাতিহা পাঠ ও মোনাজাত করেন তিনি। সেখান থেকে হজরত গাজী বোরহান উদ্দিনের (রহ.) মাজারে যান প্রধানমন্ত্রী। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মাজার জিয়ারত শেষ করেন তিনি। পরে দুপুরের খাবার, জোহরের নামাজ ও বিশ্রামের জন্য সিলেট সার্কিট হাউসে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী।

৩০ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেটে আসছেন : ১৮টি উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী

কমলকুঁড়ি ডেস্ক

H
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৩০ জানুয়ারি সিলেট সফরে আসছেন।   ওইদিন তিনি আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় বক্তব্য রাখবেন।  এর আগে বেলা ২টা ৪০ মিনিটের সময় তিনি সেখানে সিলেটের ১৮টি উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন।
প্রকল্পগুলো হচ্ছে- হযরত শাহজালাল (রহ.) এর মাজারের মহিলা এবাদতখানা ও অন্যান্য উন্নয়ন কার্যক্রম, শহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে বেগম ফজিলাতুন্নেসা হল নির্মাণ, গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদ ভবন নির্মাণ, সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজের ছাত্র ও ছাত্রী হোস্টেল ভবন নির্মাণ, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা হাসপাতাল নির্মাণ, সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ৪ তলা থেকে ১০তলা উর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণ কাজ ও একটি নার্সিং হোস্টেল নির্মাণ, পুলিশ লাইন্সে একটি এসএমপি ব্যারাক ভবন নির্মাণ, এসএমপির ডরমেটরি ভবন, তামাবিল ইমিগ্রেশন চেক পোস্ট ভবন নির্মাণ, আরআরএফ পুলিশ লাইন্স নির্মাণ, দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিশুদের হোস্টেল নির্মাণ, বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ, জেলা ও বিভাগীয় পরিবার পরিকল্পনা অফিসের ভবন নির্মাণ, সিলেট-গোলাপগঞ্জ-চারখাই-জকিগঞ্জ মহাসড়কের ৬৫ কিলোমিটার উন্নয়ন, গোলাপগঞ্জ-ঢাকাদক্ষিণ-ভাদেশ্বর মহাসড়ক ও চারখাই-শেওলা-বিয়ানীবাজার-বরইগ্রাম মহাসড়কের প্রায় সাড়ে কিলোমিটার অংশের উন্নয়ন।
উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী সিলেট পৌঁছেই হযরত শাহজালাল, শাহপরাণ ও সিলেটের আদি মুসলিম গাজী বুরহান উদ্দিন (রহ.) এর মাজার জিয়ারত কবরেন।  পরে সার্কিট হাউসে দুপুরের বিশ্রাম ও খাওয়া-দাওয়া শেষে আলিয়া মাদ্রাসা মাঠের জনসভায় যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী।  জনসভা শেষে সন্ধ্যায় ঢাকার উদ্দেশ্যে সিলেট ছাড়বেন তিনি।

ব্যানার-ফেস্টুন-তোরণে ছেয়ে গেছে পুরো সিলেট নগরী ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানাতে সিলেটবাসী প্রস্তুত ॥ দলীয় অন্তর্দ্বন্দ্ব থামিয়ে উচ্ছ্বসিত নেতাকর্মীরা

 AG-242x300-1


সিন্টু রঞ্জন চন্দ :

একাদশ জাতীয় সংসদ ও সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও দেশরতœ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ৩০ জানুয়ারী সিলেট সফরে আসছেন। ওইদিন তিনি সিলেটে পৌঁছে প্রথমে হযরত শাহজালাল (রহ.) ও হযরত শাহপরানেরমাজার জিয়ারত শেষে সিলেট নগরীর ঐতিহাসিক আলিয়া মাদ্রাসা মাঠের জনসভায় প্রধান অথিতির বক্তব্য রেখে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রচারণার কাজ শুরু করবেন। প্রধানমন্ত্রীর এ আগমনকে স্বাগত জানিয়ে বিভাগীয় শহর সিলেট নগরীতে আওয়ামীলীগ ও তার অঙ্গসংগঠনের সম্ভব্যপ্রার্থীরা জোরেশোরে অসংখ্য ছোট-বড় তোরণ ব্যানার-ফেস্টুন দিয়ে সাজিয়ে তুলেছেন আলীয় মাদ্রাসা মাঠের আশপাশ এলাকাসহ পুরো নগরী। এখন সিলেটবাসী প্রস্তুত রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত ও শুভেচ্ছা জানাতে।
ওইসব সম্ভাব্য প্রার্থী থেকে শুরু করে জেলা ও মহানগর নেতাকর্মীরা আলিয়া মাদ্রাসা মাঠ তথা নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে বিলবোর্ড ভাড়া নিয়ে আগামী জাতীয় নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়ার প্রত্যাশি হিসেবে ব্যানার টাঙ্গিয়ে জানান দিচ্ছেন তারা। এছাড়াও ৩০ জানুয়ারী আলিয়া মাদ্রাসার মাঠকে জনসমদ্রে পরিনত করতে আওয়ামীলীগ ও তার অঙ্গসংগঠনের কেন্দ্রীয়, জেলা ও মহানগর নেতাকর্মীরা ঘুমকে হারাম করে মাইকিং, মিছিল-মিটিংসহ ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।
ওইদিন জনসভায় বক্তব্য দেয়ার আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেটের অনেকগুলো উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও অনেকগুলোর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। এর সঙ্গে সিলেটের উন্নয়নে নতুন কোনো ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে আসবে কি না সেই প্রত্যাশায় এখন সাধারণ মানুষ জনের মধ্যে। শেখ হাসিনার সরকার উন্নয়নের সরকার এমনটাই মনে করেন সিলেটের সাধারণ মানুষ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এবারের আগমনে সিলেটবাসীর যেসব স্বপ্ন অপূর্ণ রয়ে গেছে, সেগুলো আলোর মুখ দেখবে? তারা মনে করছেন, দলের ভেতরে চলছে দ্বন্দ্ব-কলহ। এছাড়া এ দ্বন্দ্ব কলহের কারনে সিলেটে বেশ কিছু নেতাকর্মী প্রাণ হারিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর এ সফরের মধ্যে এসব খুন-খারাপি বন্ধসহ সিলেটের সাধারণ লোকজনের উন্নয়ন হবেতো?
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, সংবিধান অনুযায়ী চলতি বছরের শেষদিকে জাতীয় নির্বাচন। সে হিসাবে প্রায় এক বছর হাতে রেখেই ভোটের মাঠে নামছে শাসক দল। এর অংশ হিসেবে ৩০ জানুয়ারি থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনী প্রচার শুরু করছে আওয়ামী লীগ। তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রীর এ সফর নিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত সিলেটের আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা। সব আয়োজন প্রায় শেষ হতে চলেছে। এখন প্রধানমন্ত্রীর জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে সিলেটবাসী। তিনি আসবেন, উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করবেন। সিলেটের উন্নয়নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বারবারই আন্তরিক। যার প্রমাণ মেলে গত কয়েকবারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিলেট সফর থেকে। নির্ধারিত উন্নয়ন প্রকল্প ছাড়াও তিনি সিলেটের উন্নয়নে সিলেটবাসীর জন্য নতুন সুখবর দিয়েছেন। এবারের সফরেও তিনি অনেকগুলো উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন এবং উদ্বোধন করবেন। তবে বরাবরের মতো এবারও সিলেটবাসী রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে দারুণ কোন সুখবরের অপেক্ষায়। শেখ হাসিনা ২০১৬ সালের ২১ জানুয়ারি সিলেট আলিয়া মাদ্রাসার মাঠে জনসভায় ভাষণ দেন। এর ঠিক ১১ মাস পর একই বছরের নভেম্বর মাসে তিনি একই স্থানে ভাষণ দেন। এর প্রায় ১১ মাস পর আবারো সিলেটে আসেন প্রধানমন্ত্রী। ১৭ পদাতিক ডিভিশনের অধীনস্থ নবগঠিত সদর দপ্তর ১১ পদাতিক ব্রিগেডের পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠানে যোগ দেন তিনি। সেবারে এই আলীয়া মাদ্রাসার মাঠে বক্তব্য দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সকল প্রস্তুতি সম্পন্নও করা হয়েছিল। তবে, ঐ সময় নির্বাচন কমিশন জেলা পরিষদের নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করায় আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়টি সামনে আসায় পরবর্তীতে ওই সমাবেশ বাতিল হয়ে যায়। এদিকে গত বছর থেকেই শুরু হয়েছে গৃহবিবাদ মেটানোর কাজও। দলের জেলা, মহানগর, থানা ও উপজেলার নেতাদের পাশাপাশি সম্ভাব্য সংসদ সদস্য প্রার্থীদের কেন্দ্রে ডেকে নিজেদের মধ্যকার বিরোধ মিটিয়ে দেয়া হয়েছে। অর্ন্তদ্বন্দ্ব, কলহ, বিবাদ এবং দূরত্ব ভুলে গিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার নির্দেশ দেন কেন্দ্রীয় নেতারা। পাশাপাশি সম্ভাব্য এমপি প্রার্থীদের দলীয় কার্যালয়ে ডেকে নির্বাচনী প্রস্তুতি নেয়ার নির্দেশও দেয়া হয়।
সিলেট জেলা যুবলীগ নেতা শামীম ইকবাল বলেন, মাদার অব হিউম্যানিটি প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সিলেট আগমণে সিলেটের মানুষ আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠছে। বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনা দেশকে উন্নয়নের দিকে এগিয়ে নিতে নিরলসভাবে কাজ করছেন। তাই ৩০ জানুয়ারি বিশ্বনেত্রীর আলিয়া মাদ্রাসা মাঠের জনসভাকে জনসমুদ্রে পরিণত করতে সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করে যাচ্ছি।
সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান ও জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর জন্য পুরো আয়োজন সম্পন্ন হয়েছে। তাকে স্বাগত জানাতে সিলেটবাসী প্রস্তুত।
আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ বলেন, আগামী ৩০ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিলেট সফরে ঐতিহাসিক আলিয়া মাদ্রাসা মাঠের জনসভায় জনসমুদ্র পরিণত করতে নেতাকর্মীদের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, আসন্ন সিটি কর্পোরেশন এবং জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জননেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার পুণ্যভূমি সিলেট আগমনে নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত হয়েছেন। তিনি বলেন, আগামি নির্বাচনে দলের বিজয় সুনিশ্চিত করতে প্রতিটি অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মীকে সকল ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে মাঠে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে পুনরায় আওয়ামীলীগকে নির্বাচিত করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর জনসভাটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিলেট সফর সফল করতে তিনি ইতিপূর্বে নেতাকর্মীদের মিছিল আর ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে জনসমাবেশস্থলে আশার আহবান করেছেন।
আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে মাথায় রেখে প্রথমই শুরু হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর সিলেটের এ কর্মসূচি। সফরের মূল লক্ষ্য জেলা-উপজেলায় কর্মী সভা, বর্ধিত সভা এবং জনসভার মাধ্যমে সরকারের উন্নয়নের চিত্র দেশবাসীর সামনে তুলে ধরা। পাশাপাশি বিএনপি-জামায়াতের ধ্বংসাত্মক কর্মকান্ড জনগণকে আবারও মনে করিয়ে দেয়া।
আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ বলেন, ২০১৮ সাল নির্বাচনী বছর। আমরা এরই মধ্যে কাজ শুরু করেছি। দলের সভাপতি নেতাকর্মীদের নিজ নিজ এলাকায় সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড তুলে ধরার পাশাপাশি জনগণের মন জয়ের নির্দেশ দিয়েছেন, যা কার্যত নির্বাচনী প্রচারণাই। যারা মনোনয়ন পেতে ইচ্ছুক, তারা এলাকায় ছোটাছুটি করছেন। চলতি মাসেই সিলেটে সাংগঠনিক সফর শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে নিজেদের মাঝে কোনো দূরত্ব থাকলে সেগুলো কমিয়ে আনতে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা কাজ শুরু করে যাচ্ছেন

সিলেটস্থ কমলগঞ্জ স্টুডেন্টস এসোসিয়েশনের কমিটি গঠন সম্পন্ন

সোহেল আহমদ, সিলেট:
images-1
সিলেটের বিভিন্ন প্রতিষ্টানে অধ্যয়নরত কমলগঞ্জ উপজেলার শিক্ষার্থীদের সংগঠন হিসেবে কার্যকরী কমিটি গঠন ও বিজয় দিবসে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পনের মাধ্যমে আত্নপ্রকাশ করলো সিলেটস্থ কমলগঞ্জ স্টুডেন্টস এসোসিয়েশন।
গত ১৫ ডিসেম্বর সিলেট নগরীর একটি অভিজাত রেস্টুরেন্টে সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি শিক্ষার্থী মতিউর রহমান ও মুরারিচাঁদ(এমসি) কলেজ শিক্ষার্থী মজিদ খানকে সাধারন সম্পাদক করে ২৭ সদস্য বিশিষ্ট এক বছর মেয়াদী কার্যকরী কমিটি গঠন করা হয়।
সিলেটস্থ কমলগঞ্জ স্টুডেন্টস এসোসিয়েশনের প্রতিষ্টাকালীন কার্যকরী কমিটির অন্যান্যরা হলেন সহ-সভাপতি সোহেল আহমদ (এমসি) ও দিপক কুমার সিনহা (এসআইইউ)।
যুগ্ন সাধারন সম্পাদক সোহেল খান(এমসি), সৌরভ কান্তি দে (সিকৃবি), খালেদ সাইফুল্লাহ (মেট্রোপলিটন), সাংগঠনিক সম্পাদক মহিউদ্দিন অাহমদ (পলিটেকনিক), তানভীর খালেদ (শাবিপ্রবি)।
কমিটির অন্যানদের মধ্যে অর্থ সম্পাদক শামছুর রহমান নাঈম(সরকারি অালিয়া), দপ্তর সম্পাদক সৌরভ আহমেদ (এমসি), প্রচার সম্পাদক মিছবাহুর রহমান(সরকারি অালিয়া), আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদ নোমান(এমসি), তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক ফয়সল আহমদ ইমন(মেট্রোপলিটন)।
সিলেটস্থ কমলগঞ্জ স্টুডেন্টস এসোসিয়েশনের ক্রীড়া সম্পাদক জামিল আহমেদ(এমসি), ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক সোহাইল আহমদ(সরকারি অালিয়া), আইন সম্পাদক গোলাম মোহাম্মদ রাব্বী(মেট্রোপলিটন), শিক্ষা সম্পাদক সুমন মিয়া(সিকৃবি), সাংস্কৃতিক সম্পাদক জাহিদ হাসান বাপ্পি(এমসি), ছাত্রী বিষয়ক সম্পাদক নিশাত জাহান(এসআইইউ), সমাজসেবা সম্পাদক শফিকুর রহমান(পলিটেকনিক)।
সংগঠনটির নির্বাহী সদস্যরা হলেন জাকির হোসাইন (লিডিং), সঞ্জিত সিনহা (ওসমানী মেডিকেল), সৌরভ দেব (সিকৃবি), রেশমা বেগম (এসআইইউ), মোহিতুর রহমান সোহাগ (বরকান্দি মাদ্রাসা) ও মোশারফ হোসেন মাছুম (আইএইচটি)।
উল্ল্যখ্য, কমলগঞ্জ স্টুডেন্টস এসোসিয়েশন, সিলেট গঠনের লক্ষে গত পহেলা ডিসেম্বর সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এক মিলনমেলায় মিলিত হন সিলেটস্থ বিভিন্ন প্রতিষ্টানে অধ্যয়নরত কমলগঞ্জ উপজেলার শিক্ষার্থীরা।

এমপি কেয়ার ওপর হামলার ঘটনায় ভাইস চেয়ারম্যানসহ গ্রেফতার ২

2017-12-07--00_33_07

হবিগঞ্জ :

হবিগঞ্জের বাহুবলে সংরক্ষিত নারী এমপি কেয়া চৌধুরীর ওপর হামলার ঘটনায় দায়ের মামলায় বাহুবল উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান তারা মিয়া ও জেলা পরিষদের সদস্য আলাউর রহমান শাহেদকে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ। মঙ্গলবার (৫ ডিসেম্বর) রাত ১১টার দিকে হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশ ও ঢাকা ডিবি পুলিশের যৌথ অভিযানে ঢাকার কদমতলী এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

বুধবার (৬ ডিসেম্বর) দুপুর তাদের আদালতে নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহ আলম ।

তিনি জানান-মোবাইল ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে তাদেরকে ঢাকার কদমতলী এলাকার একটি বাসা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

এ ব্যাপারে সংসদ সদস্য কেয়া চৌধুরী বলেন, ‘তাদেরকে গ্রেফতার করায় প্রশাসনসহ বাহুবল উপজেলাবাসীকে ধন্যবাদ জানাই।’

উল্লেখ, গত ১০ নভেম্বর বাহুবল উপজেলার মিরপুরে এমপি কেয়া চৌধুরীর একটি অনুষ্ঠানে হামলার ঘটনা ঘটে। হামলার ঘটনা তদন্ত করেন সিলেটের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মৃণাল কান্তি দে। ১৬ নভেম্বর হামলার ঘটনার প্রতিবাদে বাহুবল উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে অবস্থান ধর্মঘট করেন বিক্ষুদ্ধ জনতা। পরে গত ১৮ নভেম্বর এ ঘটনায় বাহুবল থানায় একটি মামলা দায়ের হয়।

মামলাটি করেন উপজেলার লামাতাসী ইউনিয়নের সদস্য ও মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী পারভিন আক্তার। ওই মামলায় ভাইস-চেয়ারম্যান যুবলীগ নেতা মো. তারা মিয়া, উপজেলা পরিষদের সদস্য আলাউর রহমান শাহেদ ও তারা মিয়ার গাড়ি চালক মো. জসিম উদ্দিনকে আসামি করা হয়। তাদেরকে গ্রেফতারের দাবিতে গত ২৬ নভেম্বর সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করা হয়। পরে প্রশাসনের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে অবরোধ প্রত্যাহার করা হয়।