সদ্য সংবাদ

বিভাগ: পতনউষার

কমলগঞ্জের পতনঊষারে সবুজ বাংলা যুব সংঘের বন্যার্তদের জন্য ফ্রি চিকিৎসা ও ঔষধ বিতরণ

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

Pic-1
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার পতনঊষার ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের ঐতিহ্যবাহী স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সবুজ বাংলা যুব সংঘের আয়োজনে বন্যার্তদের মধ্যে ফ্রি চিকিৎসা ঔষধ বিতরণ করা হয়েছে। শনিবার (২৩ জুন) দপুরে স্থানীয় পতনঊষার ইউনিয়নের মির্জাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মৌলভীবাজার সিভিল সার্জনের সহযোগীতায় ২৫০ এর অধিক রোগীদের ফ্রি চিকিৎসা ও ঔষধ বিতরণ করা হয়। এসময় চিকিৎসক হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ডা. অরূপ রাউত,  ডাঃ সত্যজিৎ দাস, ডা. স্বপন তালুকদার।

2

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আতাউর রহমান চৌধুরী, ছুফি মিয়া, সাজাদ চৌধুরী, টিপুল আলী, হারুন মিয়া মাষ্টার, তছবির আলী, তালুকদার আমিনুর রহমান, আব্দুল হান্নান, আব্দুল মুহিত হাসানী, লোকমান আহমদ, রকিব আহমদ, রফি চৌধুরী, সিরাজ খান, জয়নাল আবেদীন, রুহিন চৌধুরী, রাসেল চৌধুরী, তালুকদার আব্দুল মুমিন,আদনান চৌধুরী, আইনুল ইসলাম চৌধুরী, আব্দুল মুকিত হাসানী, শিপার আহমদ, কাওছার আহমদ, তানভীর খান, রাব্বী খান, জামাল আহমদ, বদরুল, শাহিন, রাজীব প্রমুখ।

বহুল আলোচিত বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন নির্বাচন ২৪ জুন শেষ মুহুর্তে প্রচারণা জমজমাট ॥ কমলগঞ্জের মনু-ধলই ভ্যালির সভাপতি কে হচ্ছেন ?

এম. কে পাল জয়

mmmm
বাংলাদেশ চা- শ্রমিক ইউনিয়ন নির্বাচন ২৪ জুন রোববার অনুষ্ঠিত হবে। আজ ২২ জুন শুক্রবার মধ্যরাত পর্যন্ত প্রচার প্রচারণা সমাপ্ত হবে। শেষ মহুর্তে প্রচারণায় জমজমাট মনু-ধলই ভ্যালির ২৩ টি চা- বাগান। মাঝে মধ্যে টাকার ছড়াছড়ি রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।  চায়ের কাপ থেকে শুরু করে কর্মক্ষেত্রে সব জায়গায় চলছে প্রার্থীদের নিয়ে আলোচনা সমালোচনা। মনু-ধলই ভ্যালিতে ৪ টি প্যানেল তাদের নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যস্ত রয়েছে। প্রতিশ্রুতির বুলি শোনাচ্ছেন অবিরত।
এবার সংগ্রাম কমিটিকে  সমর্থন করে ৩ টি প্যানেল।  শমশেরনগর ইউনিয়ন পরিষদের ২ বারের নির্বাচিত সদস্য ও কমলগঞ্জ আওয়ামীলীগ সদস্য মাসিক চা- মজদুর পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক সভাপতি পদে সীতারাম বীন সভাপতি ও ক্লীন ইমেইজের নেতা হিসেবে পরিচিত পাত্রখলা চা- বাগানের ২ বারের নির্বাচিত সাবেক ইউ পি সদস্য সাধারণ সম্পাদক পদে কুশল চাষা ও ধলই চা- বাগানের মহিলা নেত্রী সহসভাপতি আলোমণি রবিদাস কে নিয়ে “সীতারাম-কুশল-আলোমণি” প্যানেল (আম প্রতিক) ।  বর্তমান সভাপতি সংগ্রামী নেতা  মাধবপুর চা- বাগানের গোপাল নুনীয়া সভাপতি এবং কানিহাটি চা- বাগানের চা- শ্রমিক নেতা মোহনলাল রবিদাশ সম্পাদক ও মহিলা নেত্রী সহসভাপতি পদে কবিতা কর্মকার কে  নিয়ে গঠিত “গোপাল-মোহনলাল-কবিতা” প্যানেল (গোলাপফুল প্রতিক) এবং ১নং রহিমপুর ইউনিয়নের ২ বারের নির্বাচিত সদস্য মিরতিংগা চা-বাগানের ধনা বাউরী সভাপতি, ভ্যালীর বর্তমান সম্পাদক শমশেরনগর চা- বাগানের নির্মল পাইনকা ও বর্তমান সহ-সভাপতি ধলই চা- বাগানের গায়ত্রী ভর কে নিয়ে “ধনা-নির্মল-গায়েত্রী” প্যানেল (রিক্সা প্রতিক) নিয়ে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। অন্যদিকে ঐক্য পরিষদের সমর্থিত মদনমহনপুর চা বাগানের শ্রমিক নেতা প্রদ্বীপ কালোয়ার সভাপতি, চাম্পারায় চা- বাগানের ছাত্রলীগ নেতা সুজন মুন্ডা সম্পাদক ও মাধবপুর চা- বাগানের শ্যামলী বোনার্জী ( মালতি)  সহ-সভাপতি পদে  “ প্রদ্বীপ-সুজন-শ্যামলী” প্যানেল (কাঠাঁল প্রতিক) নিয়ে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন।
সংগ্রাম কমিটি  থেকে ৩টি প্যানেলে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করায় সংগ্রাম কমিটির সমর্থিত ভোটাররা নানা সমস্যায় রয়েছেন। এই সুযোগে ঐক্য পরিষদ সুবিধাজনক অবস্থায় রয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে।
সভাপতি প্রার্থী সীতারাম বীন কমলকুঁড়িকে বলেন, নির্বাচনে পাশ করার ব্যাপারে আমি শতভাগ আশাবাদী। মনু-ধলই ভ্যালীতে ২৩টি চা বাগান রয়েছে। ২৩টি চা বাগানে আমার বিচরণ রয়েছে। আমি সব সময় চা শ্রমিকদের সুখে দু:খে পাশে থেকেছি, আছি ও থাকবো। বিজয়ী হলে চা-শ্রমিকদের উন্নয়নে কাজ করে যাবো। বাংলাদেশের সব নির্যাতিত চা- শ্রমিকদের সমস্যা আমার নিজের সমস্যা মনে করি, আমি অনেক কষ্ঠকরে হলেও চা- শ্রমিকদের জীবন- জীবিকা নিয়ে মাসিক চা- মজদুর পত্রিকা নিয়মিত প্রকাশ করি। নির্বাচিত হলে চা শ্রমিকদের মুজুরী বৃদ্ধি সহ শিক্ষা,উন্নত চিকিৎসা,বাসস্থান এবং শ্রমিকের ন্যায্য অধিকার নিশ্চিত ও শিক্ষিত বেকার চা- শ্রমিক সন্তানের চাকুরী নিশ্চিতের লক্ষে  সবসময় নিজেকে নিবেদিত রাখবো।
বর্তমান সভাপতি গোপাল নুনীয়া জানান ” আমি মনু-ধলই ভ্যালীর সভাপতি হয়ে সব সময় চেষ্টা করেছি চা- শ্রমিকের পাশে থাকতে। তাদের সমস্যা সমাধান করতে। তবে সাংগঠনিক কারনে অনেক সময় তা সম্ভব হয়নি। এবার আমার প্যানেল পূন:গঠন করেছি   চা- শ্রমিকরা যদি সুযোগ দেন তবে শেষ বারের মতো তাদের সেবা করে যাবো “। সাধারণ সম্পাদক অন্য প্যানেলে গিয়ে নির্বাচন করতে দেখা যায়, এ ব্যাপারে আপনার মন্তব্য কি? রহস্যজনকভাবে অন্য প্যানেলে যুক্ত হয়েছেন এটি নিজস্ব ব্যাপার। তবে আমি অন্যায় কোন দিন মেনে নেই নাই হয়তো বা এটা একটা কারন হতে পারে।

সংগ্রাম কমিটি থেকে সভাপতি প্রার্থী ধনা বাউরির সাথে একাধিক বার সেল ফোনে (০১৭৭৪৭০৭০০০) যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে তাঁর সমর্থক একজন মূখ্য কর্মী জানান, ধনা বাউরি মিরতিংগা চা- বাগানকে একটি মডেল বাগান হিসেবে পরিচিত করেছেন এবং মনু-ধলই ভ্যালির সব বাগানকে মডেল বাগান তৈরী করবেন। তিনি নির্বাচিত হলে সব বাগানে পঞ্চায়েতদের বসার একটি কার্যালয় মালিক পক্ষ থেকে আদায় করবেন।
নাগরিক ঐক্য সমর্থিত সভাপতি প্রার্থী প্রদ্বীপ কালোয়ার জানান “চা- শ্রমিক আমাকে খুব ভালোবাসে আর তাদের ভালোবাসা নিয়ে সব সময় তাদের ন্যায্য অধিকার আদায়ের সংগ্রাম করে যাব এই প্রত্যাশা। আমি আগে ও চা- শ্রমিক ইউনিয়নের এডহক কমিটির সদস্য ছিলাম এবং চা- শ্রমিকের জন্য তখন থেকে এ পর্যন্ত কাজ করে যাচ্ছি।

সংগ্রাম কমিটি থেকে ৩ জন প্যানেল ও নাগরিক ঐক্য পরিষদ থেকে ১ প্যানেল।   শেষ মুহুর্তে কে হাসি হাসবে। এই নিয়ে ভোটাররা অপেক্ষায় আছেন।   #

কমলগঞ্জে ওয়ার্কার্স পার্টির ত্রাণ বিতরণ

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

10
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার বন্যা দুর্গত ২০০ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেছে ওয়ার্কার্স পার্টি মৌলভীবাজার জেলা কমিটি। শুক্রবার (২২ জুন) বিকাল সাড়ে ৫টায় পতনউষার ইউনিয়নের নয়াবাজার এলাকায় এসব ত্রাণ বিতরণ করা হয়। ওয়ার্কার্স পার্টি মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদব আব্দুল আহাদ (মিানর)-এর সভাপতিত্বে ত্রাণ বিতরণে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলে ওয়ার্কার্স পার্টি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড সিকন্দর আলী। অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলে কমলগঞ্জ উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা মো: বাদশাহ ফয়ছল, ওয়ার্কার্স পার্টি জেলা কমটির সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য সৈয়দ আমিরুজ্জামান, যুবমৈত্রী জেলা কমিটির আহ্বায়ক বুলবুল আহমদ, জেলা নারী মুক্তি সংসদের আহ্বায়ক শ্যামলী রানী সূত্রধর প্রমুখ। বন্যা দুর্গত ২০০ পরিবারের মাঝে ৩ কেজি করে চাল, ১ কেজি ডাল,১ লিটার তেল, ১ তেজি লবন ও ১ কেজি করে পিয়াজ বিতরণ করা হয়।

কমলো স্বর্ণের দাম

images-1

কমলকুঁড়ি ডেস্ক :

২২, ২১ ও ১৮ ক্যারেটের স্বর্ণের দাম ভরিতে এক হাজার ১৬৬ টাকা কমানো হয়েছে। তবে সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণতে পাল্টা একই পরিমাণের দাম বাড়ানো হয়েছে।
বৃহস্পতিবার (২১ জুন) থেকে নতুন দামে বিক্রি হবে অলংকার তৈরির এই ধাতু। তবে দীর্ঘদিন ধরে অপরিবর্তিত রয়েছে রূপার দাম।
বুধবার (২০ জনু) বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির (বাজুস) পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে স্বর্ণের দাম কমা এবং বাড়ানোর খবর জানানো হয়।
বাজুস নির্ধারিত নতুন দামের তালিকায় দেখা গেছে, ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৯ হাজার ৮০৫ টাকা। আগে ছিল ৫০ হাজার ৯৭১ টাকা।
একইভাবে ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরির দাম ধরা হয়েছে ৪৭ হাজার ৫৩১ টাকা। যা আগে ছিল ৪৮ হাজার ৯৯৭ টাকা।
এছাড়া ১৮ ক্যারেটের এক ভরি স্বর্ণ কেনা যাবে ৪২ হাজার ৪৫৭ টাকায়। যার আগে দাম ছিল ৪৩ হাজার ৬২৩ টাকা।
এ হিসেবে এই তিন ক্যাটাগরির স্বর্ণের দাম ভরিতে কমলো এক হাজার ১৬৬ টাকা। তবে ভরিতে একই পরিমাণের অর্থাৎ পাল্টা এক হাজার ১৬৬ টাকা বাড়ানো হয়েছে সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণতে।
সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণতে নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ২৭ হাজার ৫৮৫ টাকা। যা আগে ছিল ২৬ হাজার ৪১৯ টাকা।
এদিকে, স্বর্ণের দাম ওঠা-নামা করলেও অপরিবর্তিত রয়েছে রূপার দাম। ২১ ক্যাডমিয়ামের প্রতি ভরি রূপা বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ৫০ টাকায়।
এর আগে সর্বশেষ স্বর্ণের দাম কমেছিল চলতি বছরের ১৮ মার্চ। ওই সময় সব ক্যাটাগরির স্বর্ণের দাম কমলেও এবার সনাতন পদ্ধতির দাম ভরিতে ১১৬৬ টাকা বাড়ানো হলো

পতনঊষার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট, যুক্তরাজ্যের ত্রাণ বিতরণ

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

screenshot2018-06-22--09_59_12

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার পতনঊষার ইউনিয়নের শ্রীরামপুরবাজারে বৃহস্পতিবার বন্যাদূর্গদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে।

স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন পতনঊষার ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট, যুক্তরাজ্য  এর উদ্যাগে সংগঠনের সভাপতি আব্দুল মোতালিব লিটন ও সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান রোকন এর আর্থিক সহযোগিতায় ৫০ জন বন্যাদুর্গত মানুষের জন্য এসব ত্রাণ বিতরণ করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন পতনঊষার ইউনিয়ন যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক হেলাল আহমদ চৌধুরী, নবীন সেবা সংঘ মির্জাপুর সমাজ কল্যাণ সংস্থার সভাপতি জসিম আহমদ, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক জুনেদ খান, কমলগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিতুল খান প্রমুখ।

উল্লেখিত যে, সংগঠনের পক্ষ থেকে গত রমজান মাসে ৩০ হাজার টাকার ইফতার সামগ্রী বিতরণ করা হয় ।

কমলগঞ্জে ধলাই নদী থেকে অজ্ঞাত পরিচয়ের এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

1
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে বুধবার (২০ জুন) ধলাই নদী থেকে বেলা ১টায় ভাসমান অবস্থায় অজ্ঞাত পরিচয়ের এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
আদমপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় ও কমলগঞ্জ থানা সূত্রে জানা যায়, গ্রামবাসী সূত্রে খবর পেয়ে কমলগঞ্জ থানার পুলিশের একটি দল আদমপুর ইউনিয়নের বনগাঁও এলাকার ধলাই নদী থেকে অজ্ঞাত পরিচয়ের (৪০) এক ব্যক্তি ভাসমান লাশ উদ্ধার করে। লাশ উদ্ধারের পর গ্রামবাসীসহ আশপাশের গ্রাম ও চা বাগানের লোকজনদের দেখানোর পরও তার পরিচয় জানা যায়নি। ধারনা করা হচ্ছে অন্য কোন স্থান থেকে লাশটি ভেসে এসেছে।
কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: মোকতাদির হোসেন পিপিএম ধলাই নদী থেকে ভাসমান অবস্থায় অজ্ঞাত পরিচয়ের এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ময়না তদন্তের জন্য লাশ মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

কমলগঞ্জ পৌরসভায় বন্যার্তদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করলেন পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

screenshot2018-06-20--13_25_38 বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কমলগঞ্জ পৌর এলাকার জনসাধারনের মধ্যে চাল বিতরণ করেছেন পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের সচিব। ১৯ জুন মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬ টায় পৌরসভা প্রাঙ্গনে আনুষ্ঠানিক ভাবে ৩৫০ জন ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে এসব চাল বিতরন করা হয়। কমলগঞ্জ পৌর মেয়র মো. জুয়েল আহমেদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার। বিশেষ অতিথি ছিলেন মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক তোফায়েল ইসলাম, কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুল হক, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আছাদুজ্জামান।

মৌলভীবাজারে দূর্গত এলাকা পরিদর্শনে ত্রাণ মন্ত্রী

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
T
মৌলভীবাজারে আজ দূর্গত এলাকা পরিদর্শন করেছেন দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান  মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া। কুলাউড়া উপজেলা পরিদর্শনকালে  দুটি ইউনিয়নে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ তেরোশত মানুষের মধ্যে ত্রাণ বিতরন করেন তিনি। এসময়  মন্ত্রী তিনশ মেট্রিকটন চাল, ত্রিশ লক্ষ টাকা, এক হাজার বান্ডেল টিন এবং আশ্রয় কেন্দ্রের ২ হাজার অসহায় মানুষদের জন্য শুকনো খাবার বরাদ্ধের ঘোষনা করেন। সোমবার সকালে কুলাউড়া উপজেলার ব্রাম্মনবাজার ও ভূকশিমইল ইউনিয়নের দূর্গত এলাকা পরিদর্শন করেছেন দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান  মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য আব্দুল মতিন, ত্রান মন্ত্রনালয়ের সচিব শাহ কামাল, যুগ্ম সচিব মো. মহসীন, মহাপরিচালক রিয়াজ আহমদ সহ জেলার সরকারী কর্মকর্তা, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। পরিদর্শন শেষে দূর্গতদের মধ্যে ত্রাণ বিতরন করেন মন্ত্রী। ত্রাণ বিতরনকালে  মন্ত্রী বলেন দূযোগ শেষ না হওয়া পর্যন্ত ত্রাণ সহায়তা অব্যাহত থাকবে। এসময় মন্ত্রী আরো বলেন দূযোগের সময় আওয়ামীলীগ জনগণের পাশে দাড়ায় আর বিএনপি নেতৃবৃন্দ ঢাকায় বসে থেকে সরকারের দূর্নাম করে।

কমলগঞ্জের বন্যা পানিতে ৫ জনের লাশ উদ্ধার ॥ পানিবন্দি মানুষদের উদ্ধারে সেনাবাহিনীর তৎপরতা ॥ বিভিন্ন স্থানে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

1
ধলাই ও মনু নদীর একাধিক স্থানে বাঁধ ভেঙে গত পাঁচ দিনে ভয়াবহ বন্যায় মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। বন্যার পানিতে ডুবে শিশুসহ ৫ জন মারা গেছেন। সহ¯্রাধিক কাঁচা ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। পাঁচশতাধিক টিবওয়েল অকেজো হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়া প্রায় দেড় লক্ষাধিক মানুষ চরম মানবেতরভাবে জীবন ধারণ করছেন। বন্যায় আটকা পড়া লোকদের উদ্ধারে সর্বশেষ কয়েকটি স্থানে উদ্ধার অভিযানে অংশ নেয় সেনাবাহিনী। সরকারি ও বেসরকারি মৎস্য প্রদর্শনী খামারসহ দেড় হাজারেরও বেশি পুকুর তলিয়ে যাওয়ায় প্রায় সাড়ে ৪ কোটি টাকার মাছ ভেসে গেছে। ১৭টি আশ্রয় কেন্দ্রে ১২৫০ টি পরিবারের সদস্যদের আশ্রয় নেয়া প্রায় ছয় হাজার মানুষকে সরকারি ও বেসরকারিভাবে বিভিন্ন সংস্থা রান্নাবান্না করে ও শুকনো খাবার বিতরণ করছে।

2

পানিবন্দি মানুষদের উদ্ধার কার্যক্রমে রোববার থেকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদস্যরা তৎপরতা শুরু করেছেন। সোমবার (১৮ জুন) বন্যাক্রান্ত এলাকায় বিশুদ্ধ পানীয় জল, স্যানিটেশন এর যখেষ্ট অভাব রয়েছে। স্থানীয় সংসদ সদস্য, উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধিসহ সরকারি-বেসরকারিভাবে ত্রাণ কার্যক্রম চলছে।
স্থানীয় বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, ধলাই নদীর ৮টি স্থান দিয়ে ভাঙন দেখা দেয়ায় ভয়াবহ বন্যার সৃষ্টি হয়। বনায় কমলগঞ্জ পৌরসভা, রহিমপুর, পতনঊষার, মুন্সীবাজার, শমশেরনগর, কমলগঞ্জ সদর, আলীনগর, আদমপুর, মাধবপুর ও ইসলামপুর ইউনিয়নের অধিকাংশ এলাকায় বাড়িঘরে চার থেকে পাঁচ ফুট পরিমাণ পানিতে নিমজ্জিত হয়। এসব এলাকার প্রায় দেড় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েন।

3

চারদিনের বন্যার প্রবল ¯্রােতে কমলগঞ্জ উপজেলার কাঁঠালকান্দি গ্রামের আব্দুল ছত্তার (৫০) ও তার ছেলে আব্দুল করিম (২৫), আলীনগর বস্তির পরিবহন শ্রমিক সেলিম মিয়া (৩৮), শমশেরনগর ভাদাইরদেউলের প্রতিবন্ধি রমজান আলী (৪০) ও রহিমপুর ইউনিয়নের প্রতাপী গ্রামে মিছির মিয়ার দেড় বছর বয়সি শিশু সন্তান ছাদির মিয়া পানিতে ডুবে মারা যান। পানির ¯্রােতে ভারতের কৈলাশহরে যাতায়াতে শমশেরনগর-চাতলাপুর সড়কে কালভার্ট ব্রিজ ধ্বসে পড়ে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে পড়ে। শমশেরনগর-মৌলভীবাজার, শমশেরনগর-কুলাউড়া সড়ক যোগাযোগ তিনদিন বন্ধ ছিল। আদমপুর, পৌরসভা, মুন্সীবাজার, পতনঊষার সহ বিভিন্ন এলাকায় কাঁচা, আধাকাঁচা প্রায় সহ¯্রাধিক ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে।

6

শমশেরনগর, পতনঊষার ও মুন্সীবাজার ইউনিয়ন সহ উপজেলায় ১৭টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয় এবং এসব আশ্রয় কেন্দ্রে আসা লোকদের মধ্যে সরকারি, বেসরকারি, বিভিন্ন সংস্থা ও ব্যক্তি উদ্যোগে রান্না করা খাবার ও শুকনো খাবার বিতরণ অব্যাহত রয়েছে। বন্যার শুরু থেকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন এলাকায় শুকনো খাবার বিতরণ করা হচ্ছে। তবে নৌকা ও স্পিডবোট না থাকায় বেশ কিছু পরিবার বাড়িঘরে পানিতে আটকা পড়ায় উদ্বেগ-উৎকন্ঠা বৃদ্ধি পায়। শেষ পর্যন্ত প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বন্যায় আটকা পড়া লোকদের উদ্ধারে সর্বশেষ কয়েকটি স্থানে উদ্ধার অভিযানে অংশ নেয় সেনাবাহিনী টিম।

4
এদিকে স্থানীয় সংসদ সদস্য, সাবেক চিফ হুইপ উপাধ্যক্ষ ড. মো: আব্দুস শহীদ এমপি’র উদ্যোগে বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্রে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান কমলগঞ্জে বিভিন্ন বন্যা দুর্গত এলাকায় শুকনো খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রাখছেন। এছাড়া কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো: জুয়েল আহমদ ও ৯টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা দুর্গতদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন।

5

ঢাকার ব্যবসায়ী মুহিবুর রহমান, মুন্সীবাজারের ব্যবসায়ী সালাউদ্দিন, জেলা পরিষদ সদস্য অধ্যক্ষ হেলাল উদ্দীন, মুন্সীবাজার-রহিমপুর দরিদ্র কল্যাণ ট্রাষ্ট, কমলগঞ্জ সমাজ কল্যাণ পরিষদ, মীর্জাপুর নবীন সেবা সংঘ, মুন্সীবাজার কয়েকজন ব্যবসায়ী ও ক’জন ব্যক্তিগত উদ্যোগে অনেকেই পানিবন্দি গ্রামে গিয়ে ও আশ্রয় কেন্দ্রে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন। এদিকে উপজেলার নব্বই শতাংশ পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি মৎস্য প্রদর্শনী খামারসহ প্রায় ১,৫৫০টি পুকুর প্লাবিত হয়। ভেসে যাওয়া মাছ ও পোনার পরিমাণ প্রায় ৪৭০ মে.টন। খামারের অবকাঠামোগত ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৫০ লক্ষ টাকা  এবং মোট ক্ষতির পরিমাণ প্রায় চার কোটি বিশ লক্ষ টাকা বলে মৎস্য অফিস সূত্র নিশ্চিত করে। এছাড়া প্রায় তিন হাজার হেক্টর আউশ ক্ষেত ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

7
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক পানিতে ডুবে শিশুসহ পাঁচজনের মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ পর্যন্ত উপজেলায় সহ¯্রাধিক কাঁচা ঘর সম্পূর্ণ ও আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের ঘর মেরামতে সরকারিভাবে বরাদ্ধ প্রদান করা হবে। তিনি আরও বলেন, নিহত পরিবারদের ২০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। এছাড়া সবকটি আশ্রয় কেন্দ্র ও বন্যাপ্লাবিত লোকদের মধ্যে অব্যাহতভাবে শুকনো খাবার বিতরণ করা হচ্ছে। সার্বিকভাবে বন্যা পরিস্থিতি ও ক্ষতিগ্রস্তদের বিষয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নজরদারি করা হচ্ছে বলে তিনি দাবি করেন। তিনি আরো জানান, বন্যাক্রান্ত কমলগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের রোববার থেকে মেডিক্যাল টিম পাঠানো হয়েছে। তিনি আরও বলেন উজানে ভারতীয় অংশে বৃষ্টিপাত না হলে বন্যা পরিস্থিতির পর্যায়ক্রমে উন্নতি হবে।

8

কাল আসছেন মন্ত্রী: জেলা প্রশাসকের প্রেস ব্রিফিং বন্যায় ৪০ হাজার ২০০ পরিবার ক্ষতিগ্রস্থ

স্টাফ রিপোর্টার 

screenshot2018-06-18--08_05_48
মৌলভীবাজারের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে জেলা প্রশাসক আজ ১৭ জুন রবিবার বিকাল ৫টায় মৌলভীবাজার সার্কিট হাউসের মুন হলে এক জরুরী প্রেসব্রিফিং করেন। প্রেসব্রিফিংয়ে জেলা প্রশাসক মো. তোফায়েল ইসলাম জানিয়েছেন, জেলায় বন্যায় ৫ উপজেলার ৩০ টি ইউনিয়ন ও দুটি পৌরসভার মোট ৪০ হাজার ২০০ পরিবার ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।
প্রেসব্রিফিংয়ে জানানো হয়, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, সেনাবাহিনীর ২১ ইঞ্জিনিয়ার্স এর একটি ইউনিট, জেলা পুলিশ, ৪৯ বিজিবি ব্যাটালিয়ন, স্বাস্থ্যবিভাগ, ফায়ার সার্ভিস, বিএনসিসি, রেডক্রিসেন্টসহ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি সংস্থাও নিয়োজিত আছে। দুর্গত এলাকা থেকে জরুরী যোগাযোগের জন্য একটি (০১৭২৪৬৮৫৭৮৪) হটলাইন খোলা হয়েছে। বন্যাকবলিত এই জেলাকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে দেখছেন কর্তৃপক্ষ।
জেলায় স্মরণ কালের মনু ও ধলাই নদীর পানি বৃদ্ধির কারণে বন্যা প্রতিরক্ষা বাঁধের ২৫ স্থানে ভাঙন দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যে বন্যাকবলিত এই জেলায় ৫০ টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। ইতিমধ্যে ৫৩৯০ জনকে উদ্ধার করে আশ্রয় কেন্দ্রে নেয়া হয়েছে। বন্যায় আক্রান্তদের উদ্ধারে কাজ করছে, সেনাবাহিনী, বিজিবি ও পুলিশ।
মৌলভীবাজার সদরে ৬টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। এই আশ্রয় কেন্দ্রগুলোর মধ্যে আছে সরকারি কলেজ, সরকারি মহিলা কলেজ, টেকনিকেল স্কুল এন্ড কলেজ, পলিটেকনিক ইনসট্রিটিউট, পিটিআই। এছাড়াও বেসরকারি উদ্যোগে আরো কয়েকটি খোলা হয়েছে যেখানে বিএনসিসি, স্কাউটসহ বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবীদের মাধ্যমে খিচুরি রান্না করে বিতরণ করা হচ্ছে।
জেলা প্রশাসক জানান সেনা বাহিনীর ৪টি টিম বন্যা দূর্গত এলাকায় কাজ করছে। তারা পানি বন্দিদের উদ্ধারের কাজে ১৮টি স্পীডবোট ব্যবহার করছে। আরো সংগ্রহ করা হচ্ছে।
জেলা প্রশাসক প্রেস ব্রিফিংএ আরো জানান নগদ ৯ লাখ ৪০ হাজার টাকা, ৭শ ৪৩ মেট্রিক টন চাইল বরাদ্ধ করা হয়েছে। মজুদ আছে ১ হাজার ৩৭ মেট্রিক টন চাউল। আরো বরাদ্ধ হয়েছে ৫০০ মেট্রিক টন চাউল ও নগদ ১০ লক্ষ টাকা। ৩ হাজার শুকনো খাবারের প্যাকেট আশ্বাস মিলেছে।
শহরের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য বিজিবির ৪টি গাড়ি টহল দিচ্ছে। সিভিল সার্জনের নেতৃত্বে ৭৪ টি মেডিকেল টিম বন্যাকবলিত এলাকায় কাজ করছে।

জেলা প্রশাসক জানিয়েছেন আগামীকাল (সোমবার) মৌলভীবাজার আসবেন দূর্যোগ, ত্রাণ ও পূনর্বাসন মন্ত্রী মোফজ্জল হোসেন মায়া। তিনি ২/১ টি বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শন করবেন। আরো বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারাও আসছেন।