সদ্য সংবাদ

বিভাগ: মৌলভীবাজার

চা-বাগানে ম্যালেরিয়া ঝুঁকিতে ব্র্যাকের ১৫শ পরিবার

20-011-480x253

 

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার চা জনগুষ্টির নারী-পূরুষ ও শিশুরা দীর্ঘদিন থেকে ম্যালেরিয়া ঝুকিতে ছিল। শিক্ষা ও পরিবেশ সচেতনতার অভাবে এসব এলাকার মানুষজন প্রতিনিয়ত ম্যালেরিয়ার ঝুকি মোকাবেলা করছেন। এব্যাপারে সরকারের ম্যালেরিয়া নিয়ন্ত্রন কর্মসূচির আওতায় রাজনগর উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নে কাজ করছে এনজিও সংস্থা বাংলাদেশ ডেভলাপম্যন্ট সার্ভিস সেন্টার (বিডিএসসি)। গতকাল সোমবার দুপুরে উপজেলার দুটি চাবাগানে ম্যালেরিয়া ঝুকিতে থাকা একহাজারেরও বেশি পরিবারে দেড় হাজার কীটনাশক যুক্ত মশারি বিতরণ করা হয়েছে।

বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, রাজনগর উপজেলায় ফাঁড়ি বাগানসহ মোট ১৪টি চা বাগান রয়েছে। এসব চা বাগানে মোট জন সংখ্যা প্রায় ২৫ হাজার। দেশের ম্যালেরিয়া ঝুঁকি প্রবণ ১৩টি জেলার মধ্যে অন্যতম মৌলভীবাজার জেলা। বিশেষ করে পাহাড়ি অঞ্চলের চা জনগোষ্ঠি। ২০০৭ সাল থেকে বিডিএসসির ম্যালেরিয়া নিয়ন্ত্রণে কার্যক্রম শুরু করেছে। এ সংস্থার মাধ্যমে উপজেলার পাহাড়ি চা বাগান অধ্যুষিত ছাড়াও ম্যালেরিয়া ঝুঁকিপ্রবণ রাজনগর সদর, টেংরা, মুন্সিবাজার ও উত্তরভাগ ইউনিয়নে কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। ম্যালেরিয়া নিয়ন্ত্রণের জন্য এর আগেও চা বাগানগুলোর শ্রমিকদের মধ্যে দেড় হাজারেরও বেশি কীটনাশকযুক্ত মশারি বিতরণ করা হয়েছিল।

গতকাল সোমবার সকাল ১১ টার সময় এনজিও সংস্থা ব্র্যাক ও বিডিএসসি’র সহযোগিতায় ও উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের আয়োজনে মাথিউড়া ও উত্তরভাগ চা বাগানের ১০০৫টি পরিবারে ১৫শ’টি মশারি বিতরণ করা হয়েছে। এ উপলক্ষে মাথিউড়া চা বাগান প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মৌলভীবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দা সায়রা মহসিন।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বর্ণালী দাশের সভাপতিত্বে ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল সাম্মুর সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আছকির খান, রাজনগর থানার ওসি শ্যামল বণিক, টেংরা ইউপি চেয়ারম্যান টিপু খান, জেলা আওয়ামীলীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা রামলাল রাজভর, বিডিএসসি’র প্রজেক্ট ম্যানেজার আল আমিন, শ্রীমঙ্গলে কর্মরত ব্র্যাকের জেএসএস-ল্যাব খালেদা মনি, ইউপি সদস্য বিক্রম গৌড়, বাগান পঞ্চায়েত সভাপতি সুগ্রিম গৌড় প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামীলীগ নেতা ফজলু খান, উপজেলা যুবলীগের আহ্বয়াক আব্দুল কাদির ফৌজি, যুগ্ম আহ্বায়ক হারুন মিয়া, তাতীলীগের সদস্য সচিব শাহ তাজুল ইসলাম প্রমুখ।
এছাড়া একই সাথে উপজেলা উত্তরভাগ ইউনিয়নের চাঁনভাগ চা বাগানের ৪০৫টি খানায় ৫শ ৫৫টি কীটনাশকযুক্ত মশারি বিতরণ করা হয়েছে।

মৌলভীবাজার-৪ (২৩৮) সংসদীয় আসনে কমলগঞ্জ উপজেলার সবকটি ইউনিয়ন অন্তর্ভূক্ত

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

Snapshot2-e1521126352145

বাংলােদশ নির্বাচন কমিশন কর্তৃক প্রকাশিত পূর্ন বিন্যাসকৃত প্রাথমিক তালিকায় মৌলভীবাজার-৪ (২৩৮) সংসদীয় আসনে বাদ যাওয়া ইসলামপুর, আদমপুর, আলীনগর ও শমসেরনগর ৪টি ইউনিয়নকে মৌলভীবাজার-২ আসন হতে কেটে কমলগঞ্জ উপজেলার সাথে পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনা হয়। বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রাথমিক তালিকা অনুযায়ী ২৩৮ মৌলভীবাজার-৪ আসনে শ্রীমঙ্গল উপজেলা এবং কমলগঞ্জ উপজেলার সবকটি ইউনিয়ন অন্তভূক্ত করা হয়েছে।

এই সংবাদ জানতে পেয়ে কমলগঞ্জ উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের মানুষের মধ্যে আনন্দের জোয়ার দেখা দিয়েছে। তারা বলছেন অবশেষ “ছিটমহলের” মতো জীবন-যাপনের অবসান হলো। মৌলভীবাজার জেলার (মৌলভীবাজার-৪) কমলগঞ্জ-শ্রীমঙ্গল সংসদীয় আসনের কমলগঞ্জ উপজেলার একাংশ (শমসেরনগর, আলীনগর, আদমপুরও ইসলামপুর ইউনিয়ন) কেটে নিয়ে কুলাউড়া (মৌলভীবাজার-২) আসনের সাথে সম্পৃক্ত করা হয়েছিল।

এতে করে কমলগঞ্জ উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের মানুষদের কেটে প্রশাসনিক কার্যে কমলগঞ্জ উপজেলায় বাস করে ও পার্শ্ববর্তী উপজেলায় গিয়ে কার্য সম্পাদন করতে হতো। ফলে নাগরিকরা নানা দূর্ভোগের শিকার হতেন। এ ব্যাপারে আলীনগর ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ফজলুল হক বাদশা বলেন,আসন বিন্যাসের কারনে আমাদেরকে প্রশাসনিক ভাবে অন্য উপজেলায় কার্য সম্পাদন করতে হতো। এতে নানা দুর্ভোগের শিকার হতে হতো। এখন সেই দুর্ভোগের অবসান হবে। আমি এবং আমার ইউনিয়নবাসী খুবই আনন্দিত।

আদমপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবদাল হোসেনের সাথে আলাপ করলে তিনি বলেন,এই পূনবিন্যাসের তালিকায় আমাদের এলাকার নাম তাকায় খুবই আনন্দিত। আমরা দীর্ধদিন যাবৎ উন্নয়ন ও রাজনৈতিক ভাবে বি ত ছিলাম। এখন সেই সমস্যার অবসান হবে। ইসলামপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান বলেন,দীর্ঘ দিনের দাবী বাস্তবায়ন হলো পাশাপাশি “ছিঠমহলের” মতো বসবাসকারী বাসিন্দার জীবন যাপনের অবসান হলো। আশাকরি এই পূর্ণবিন্যাস বাস্তবায়ন হলে নাগরিক দূর্ভোগ লাগব হবে।

শমসেরনগর ইউপি চেয়ারম্যান জুয়েল আহমদ বলেন,আসন বিন্যাসের জন্য শমসেরনগর বাসী সৌচ্ছার ছিল। কারন আসন বিন্যাসের কারনে আমরা এক রকম দূর্ভোগ পোহাতে হয়েছিল। উন্নয়ন ও রাজনৈতিক ভাবে অসুবিধায় ছিলাম। এখন সেই দূর্ভোগ থেকে পরিত্রাণ পাবো।

কানিহাটি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯৩ ব্যাচের প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীদের প্রীতি সম্মেলন

ছয়ফুল আলম সাইফুল

10

মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার হাজিপুর ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী কানিহাটি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯৩ ব্যাচের প্রীতি সম্মেলন জমকালো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান গত ১০ মাচ (শনিবার) সকাল ১১ ঘটিকা হইতে দিন ব্যাপি নানা রকম কমসূচীর মধ্যে দিয়ে অনুষ্টিত হয়।
অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বের আলোচনা কানিহাটি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক মোঃ খুরশীদ উল্লাহ সভাপতিত্বে এবং দক্ষিণ কুলাউড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও প্রীতি সম্মেলন কমিটির আহবায়ক মোঃ মাহমুদুর রহমান কবির ও সরাজ ট্রাকটর ও কণফুলি গ্রুপ রিজিউনাল ম্যানেজার অত্র বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র মোঃ মনসুর আলীর পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পুলিশ অবসরপ্রাপ্ত এ.আই.জি সৈয়দ বজলুল করিম বি.পি.এম , সাপ্তাহিক কুলাউড়া ডাক পত্রিকার সম্পাদক ও শাহাজালাল আডিয়াল ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ এ, কে এম সফি আহমদ সলমান, ৪নং জয়চন্ডি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কমর উদ্দিন আহমদ কমরু। ১০ নং হাজীপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল বাছিত বাচ্চু, অত্র বিদ্যালয়ের সাবেক অবঃ ভারঃ প্রধান শিক্ষক মোঃ সিরাজুল হক। অত্র বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি মোঃ মাহমুদ আলী, অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফজল উদ্দিন আহমদ, অত্র বিদ্যালয়ের সাবেক পরিচালনা কমিটির সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আব্দুল গফুর, অত্র বিদ্যালয়ের সাবেক পরিচালনা কমিটির সদস্য আলহাজ্ব মফজ্জিল হোসেন কুতুব, অত্র বিদ্যালয়ের সাবেক পরিচালনা কমিটির সদস্য নুর আহমদ চৌধুরী বুলবুল, মৌলভীবাজার জেলা শ্রমিক লীগের যুগ্ন আহবায়ক ও হাজীপুর যুবলীগের সভাপতি এবং মোতাহের মেমোরিয়াল একাডেমির প্রিন্সিপাল এম,এ, মোহিত, কুলাউড়া ছাত্র লীগের সভাপতি নিয়াজুল তায়েফ, কুলাউড়া উপজেলা শ্রমিক লীগের সদস্য সচিব আহবাব রাসেল প্রমুখ ।

জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষাপদক ২০১৭ তে শ্রীমঙ্গল উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠদের মধ্যে সনদ বিতরণ

মামুন আহমদ, শ্রীমঙ্গল থেকে

10

জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষাপদক ২০১৭ তে শ্রীমঙ্গল উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠদের মধ্যে সনদ বিতরণ করা হয়েছে।  রবিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে এ সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. সাইফুল ইসলাম তালুদার। অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. জয়নাল আবেদিন টিটো।

২০১৭ সালের জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষাপদকে উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠরা হলেন শ্রেষ্ঠ সহকারি শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ আলী, শ্রেষ্ঠ বিদুোৎসাহী সমাজকর্মী ইসমাইল মাহমুদ (সভাপতি, এসএমসি, শ্রীমঙ্গল পৌরসভা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়), শ্রেষ্ঠ এসএমসি সভাপতি ডা. হরিপদ রায় (সভাপতি, এসএমসি, দেওয়ান শামসুল ইসলাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়), শ্রেষ্ঠ শিক্ষক জহর তরফদার (প্রধান শিক্ষক, চন্দ্রনাথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়), শ্রেষ্ঠ শিক্ষিকা কাঞ্চন রানী সরকার (প্রধান শিক্ষক, কামারগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়), শ্রেষ্ঠ কাব শিক্ষক দিনমনি দেবনাথ (সহকারী শিক্ষক, তিতপুর সরকারি প্রাথমিক বিগ্যালয়), শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় এবং ঝড়েপড়া রোধে শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় ভাড়াউড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

শ্রীমঙ্গলে সংবাদ কর্মী ও ব্যবসায়ী সমিতির সদস্য আমজাদ হোসেন বাচ্চুর উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

10

ঝলক দত্ত, শ্রীমঙ্গল থেকে

শ্রীমঙ্গল আইন সয়ায়তা কেন্দ্র (আসক) ফাউন্ডেশন শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক, সংবাদকর্মী ও শ্রীমঙ্গল ব্যবসায়ী সমিতির কার্যকরী পরিষদের সদস্য মোঃ আমজাদ হোসেন বাচ্চুর উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে জনসমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। রবিবার বেলা ১১টায় শ্রীমঙ্গল আসক ফাউন্ডেশন উদ্যোগে শ্রীমঙ্গল চৌমুহনায় প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। মানববন্ধন পরবর্তী প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন, অবিলম্বে আমজাদ হোসেন বাচ্চুর উপর যারা হামলা করেছে এবং পর্যটন নগরী শ্রীমঙ্গলের শান্ত শহরটিকে আতঙ্কের জনপদে রূপান্তরিত করেছে তাদের চিহ্নিত করে দ্রুত আইনের আওতায় আনার জোর দাবি জানান শ্রীমঙ্গল থানা প্রশাসনের প্রতি। আইন সহায়তা কেন্দ্র (আসক) এর সভাপতি হাফিজুর রহমানেরর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও শ্রীমঙ্গল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ কামাল হোসেন, শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সভাপতি বিশ্বজ্যোতি চৌধুরী, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এম ইদ্রিস আলী, লেখক ও কলামিস্ট সৈয়দ আমিরুজ্জামান, মাওলানা রহিম নোমানী, নিরাপদ সড়ক চাই এর সাধারণ সম্পাদক গোলাম রহমান মামুন প্রমুখ।

কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেল লাইন পরিদর্শনে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব

 10

আব্দুর রব, বড়লেখা::

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেল লাইন চালুর লক্ষ্যে গত রোববার রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোফাজ্জেল হোসেন দীর্ঘ প্রায় ১৬ বছর পরিত্যক্ত থাকা এ রেল লাইনের সার্বিক অবস্থা পরিদর্শন করেছেন। মন্ত্রণালয়ের এই উধ্বর্তন কর্মকর্তা বড়লেখা উপজেলার উত্তর শাহবাজপুর, বড়লেখা, দক্ষিণভাগ ও জুড়ী স্টেশনসহ রেলওয়ের বিভিন্ন স্থাপনা কি অবস্থায় আছে তা ঘুরে দেখেন।

পরিদর্শনকালে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোফাজ্জেল হোসেন ছাড়াও রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (পূর্ব) সৈয়দ ফারুক আহমদ, প্রধান প্রকশৌলী (পূর্ব) মো. আরিফুজ্জামান, রেলওয়ের কুলাউড়া-শাহবাজপুর সেকশনের পুনর্বাসন প্রকল্প পরিচালক এবং রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলীয় জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (পথ) মো. তানভিরুল ইসলাম, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক (মৌলভীবাজার) মো. রোকন উদ্দিন, বড়লেখার সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ শরীফ উদ্দিন, ভারতীয় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কলকাতা কালিন্দি (রেল নির্মাণ প্রতিষ্ঠান) রেলওয়ের সার্ভেয়ার রিপন শেখ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন ।

রেলওয়ে ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ১৮৮৫ সালে আসাম-বেঙ্গল রেলওয়ের অংশ হিসেবে কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেল লাইন চালু হয়েছিল। বড়লেখা উপজেলার লাতু সীমান্ত দিয়ে কুলাউড়া রেলওয়ে জংশন হয়ে আসাম রেলওয়ের ট্রেন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে আসা যাওয়া করতো। কুলাউড়া-শাহবাজপুর লাইনে চলাচলকারী ট্রেনটি এলাকাবাসীর কাছে ‘লাতুর ট্রেন’ নামে পরিচিত ছিল। প্রায় ৪৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই লাইনে রয়েছে বড়লেখা, কুলাউড়া ও জুড়ী উপজেলা। এ তিন উপজেলা ছাড়াও এ ট্রেনের অন্যতম উপকারভোগী ছিলেন পার্শবর্তী বিয়ানীবাজার উপজেলার দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলের লক্ষাধিক মানুষ। এই অঞ্চলের মানুষ কম খরচে পণ্য পরিবহন ও যাতায়াতের জন্য লাতুর ট্রেনের উপর নির্ভরশীল ছিলেন।

রেল লাইন ট্রেন চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়ায় রেল লাইন সংস্কার না করে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ ২০০২ সালের ৭ জুলাই পুর্ব ঘোষণা ছাড়াই লাইনটি বন্ধ করে দেয়। ট্রেন বন্ধ থাকায় নিস্তব্ধ হয়ে পড়ে জুড়ী, দক্ষিণভাগ, কাঁঠালতলি, বড়লেখা, মুড়াউল ও শাহবাজপুরসহ এই ছয়টি রেল স্টেশন। এদিকে ট্রেন চালুর দাবিতে ট্রেন লাইন বন্ধ হওয়ার পর থেকেই কুলাউড়া, জুড়ী ও বড়লেখার মানুষ সিলেট বিভাগ উন্নয়ন পরিষদসহ বিভিন্ন ব্যানারে সভা-সমাবেশ, মিছিল, মানববন্ধন, অবস্থান ধর্মঘট, গণসংযোগসহ নানা কর্মসূচির মাধ্যমে আন্দোলন করেন। ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মৌলভীবাজার-১ (বড়লেখা-জুড়ী) আসনে মহাজোটের প্রার্থী শাহাব উদ্দিন (বর্তমানে জাতীয় সংসদের হুইপ) অন্যতম প্রতিশ্রুতি ছিল বিজয়ী হলে কুলাউড়া-শাহবাজপুর ট্রেনলাইন চালু করবেন। পরে নির্বাচনে জয়লাভ করেন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট প্রার্থী শাহাব উদ্দিন। লাইনটি চালুর বিষয়ে তিনি অনেকবার সংসদে কথা বলেন। এছাড়া ২০১৩ সালের ৯ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনী সফরে এসেও জনসভায় এ রেল লাইনটি চালুর ঘোষণা দেন।

রেলওয়ে সূত্র জানিয়েছে, কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেল লাইন পুনর্বাসন ও চালুর লক্ষ্যে প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। ট্রেন লাইন পুনর্বাসনে খরচ হবে ৬৭৮ কোটি ৫১ লাখ টাকা। এরমধ্যে বাংলাদেশ সরকার দিবে ১২২ কোটি ৫২ লাখ টাকা এবং ভারত সরকার দিবে ৫৫৫ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। ৪৪ দশমিক ৭৭ কিলোমিটারের পুরোটাই দ্বৈত গেজ লাইনে পুনর্বাসন করা হবে। এরমধ্যে সাত দশমিক ৭৭ কিলোমিটার লুপ লাইনের কাজ হবে। ট্রেন লাইন পুনর্বাসনের পাশাপাশি ছয়টি স্টেশনের মধ্যে জুড়ী, দক্ষিণভাগ, বড়লেখা ও শাহবাজপুর ‘বি’ শ্রেণি এবং কাঁঠালতলি ও মুড়াউল স্টেশন ‘ডি’ শ্রেণিতে পুনসংস্কার করা হবে। ভারতীয় রেল নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান কালিন্দি রেলওয়ে পুনর্বাসনের কাজ করবে। এই রেললাইনটি চালু হলে কুলাউড়া থেকে শাহবাজপুর পর্যন্ত প্রতিদিন পাঁচটি ট্রেন চলাচল করবে। লোকাল ট্রেন ছাড়াও আন্তঃনগর ট্রেন চলবে। পরবর্তী সময়ে ভারতীয় ট্রেনও চলবে এ পথ দিয়ে। কাজ শুরুর পর ২৪ মাসের মধ্যে কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

পরিদর্শন শেষে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোফাজ্জেল হোসেন সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা এ রেল লাইনটি কি অবস্থায় আছে, তা দেখতে এসেছেন। রেল লাইনের সার্বিক অবস্থা দেখেছেন। ইতিমধ্যে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান যন্ত্রপাতি নিয়ে এসেছে। গত মাসে প্রাথমিক কাজ শুরু হলেও মুল কাজ আনুষ্ঠানিকভাবে আগামী মাসে শুরু হতে পারে। ভারতের সাথে আমাদের আরো কিছু প্রকল্প রয়েছে। এমনও হতে পারে এসবগুলো মিলিয়ে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এটা শুরু করবেন।’

শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশের অভিযানে ২ ইয়াবা ব্যবসায়ী আটক

ঝলক দত্ত, শ্রীমঙ্গল থেকে

10

শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশের অভিযানে ৩৫ পিচ ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।শ্রীমঙ্গল হবিগঞ্জ রোডস্থ সখিনা সি এন জি পাম্প সংলগ্ন ঢাকা সিলেট আঞ্চলিক মহা সড়ক থেকে ২০ পিচ ইয়াবা সহ ইমরান মিয়া (৩৫) ও ১৫ পিচ ইয়াবা সহ সোহেল মিয়া (৩০) কে গ্রেফতার করেন শ্রীমঙ্গল থানার এস আই রফিকুল ইসলাম ও তার সংগীয় ফোর্স ।

শ্রীমঙ্গল থানা সুত্র জানায় ১১ (মার্চ) রবিবার বিকাল ৪ঃ৩৫ মিনিটে সখিনা সি এন জি পাম্প সংলগ্ন মেইন রোডে এই দুই মাদক ব্যবসায়ী ইয়াবা নিয়ে অবস্থান করছিল।এমন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী ইমরান (৩৫) কে ২০ পিচ ইয়াবা ও সোহেল (৩০)কে ১৫পিচ ইয়াবা সহ গ্রেফতার করা হয়।

কুলাউড়ায় বিয়ের গাড়ি উল্টে বরের পিতার মৃত্যু

কুলাউড়া প্রতিনিধি॥

TEMPSCREENSHOTS0000-1

কুলাউড়ায় বরযাত্রীবাহী বাস উল্টে মন্টু রবিদাস (৬০) নামে এক চা শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। নিহত মন্টু রবিদাস কুলাউড়া উপজেলার কালিটি চা বাগানের চা শ্রমিক। এ ঘটনায় আরও ৪ জন গুরুতর আহত হয়েছেন।

৭ মার্চ বুধবার রাত ৮ টায় উপজেলার কুলাউড়া সদর ইউনিয়নের বনগাঁও-১ এলাকায় দুর্ঘটনাটি ঘটে। জানা যায়, ৬ মার্চ মঙ্গলবার নিহত মন্টু রবিদাসের বড় ছেলে শঙ্কর রবিদাসের বিয়ে শ্রীমঙ্গল উপজেলার মির্জাপুর চা বাগানে সম্পন্ন শেষে পুত্রবধুকে নিয়ে বুধবার বিকেলে বাড়ি ফেরার পথে কুলাউড়ার গাজীপুর সড়কের বনগাঁও এলাকায় বরযাত্রীবাহী বাসটি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে রাস্তার পূর্বপাশের খাদে পড়ে গেলে ঘটনাস্থলেই বরের পিতা মৃত্যুবরন করেন। এ ঘটনায় গোলাপ রবিদাস, পিচ্ছি রবিদাস, স্বপ্ন রবিদাস, নীল রবিদাস আহত হয়েছেন। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে কুলাউড়ার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক মন্টু রুবিদাসকে মৃত ঘোষনা করেন। কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বরত চিকিৎসক ফাহমিদা ফারহানা খান বলেন, মারাত্মক আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে ঘটনাস্থলেই মিন্টু রবিদাস মৃত্যুবরন করেন। আহতদের চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

ইউনস্কো স্বীকৃত ৭মার্চ এর ভাষণ উপলক্ষ্যে সৈয়ারপুর লক্ষ্মীবালা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী বইএর বিশেষ বিশেষ অংশ পাঠ, অভিভাবকদের মধ্যে বর্ষপঞ্জি বিতরণ ও আলোচনা সভা

মৌলভীবাজার সংবাদদাতা

DSCN8804

ইউনস্কো স্বীকৃত জাতির জনব বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের এর ঐতিহাসিক ৭ ই মার্চের ভাষন উপলক্ষ্যে ৮মার্চ সৈয়ারপুর লক্ষ্মীবালা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে  বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনীর বিশেষ বিশেষ অংশ পাঠ, অভিবাকদের মধ্যে বর্ষপঞ্জি বিতরণ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।  বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এড.পার্থ সারথী পাল এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন প্রেস ক্লাবের,মৌলভীবাজার এর  সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক  এস.এম উমেদ আলী, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধান শিক্ষক সৈয়দা সাফেকা বেগম, সমাজ সেবক ও ক্রীড়াবিদ মতিউর রহমান বাবুল, সহকারী শিক্ষিকা সুবর্ণা চক্রবর্ত্তীর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন সহকারী শিক্ষকা, দিপালী দাস, ইন্দুরেখা সরকার, সালমা আক্তার রিংকি, সুবর্ণা চক্রবর্তী, ফারেহা সুলতানা ওয়াহেদ,কামাল হোসেন  ও অভিবাবকরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান শেষে ছাত্র-ছাত্রীদের অভিভাবকদের মধ্যে বর্ষপঞ্জিকা বিতরণ করা হয়।

শ্রীমঙ্গলে বাংলাদেশ চা গবেষনা কেন্দ্রের ৫৩ তম টি কোর্সে শুভ উদ্বোধন

আর.কে. সোমেন
২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশের চায়ের উৎপাদন ১৪০ মিলিয়ন কেজিতে উত্তীর্ণ করতে  চা সংশ্লিষ্ট সবাইকে এক যোগে কাজ Pic= 3করতে হবে। চাহিদা মেটাতে উৎপাদন বাড়ানোর বিকল্প নেই। বিশ্ব জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলার দক্ষতা অর্জনসহ  প্রতিকুলতা মোকাবেলায় চায়ের নতুন নতুন জাত আবিস্কার করতে হবে।
শনিবার (৩ মার্চ)  দুপুরে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলস্থ বাংলাদেশ চা গবেষনা কেন্দ্রের ৫৩তম বার্ষিক টি কোর্স এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তবে বানিজ্য মন্ত্রনালয়ের যুগ্ন সচিব মো: ইরফান আলী উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
বাংলাদেশ চা গবেষনা কেন্দ্রের পরিচালক ড. মোহাম্মদ আলীর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশীয় চা সংসদের সিলেট ব্রান্স চেয়ারম্যান জিএম শিবলী। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রবীণ টি প্লান্টার এম আর খান চা বাগানের সত্ত্বাধিকারী সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী ও জেরিন টি এর ম্যানেজার মো. সেলিম রেজা প্রমূখ।
কোর্সে ৩৫ জন সহকারী ব্যবস্থাপক ছাড়াও বিভিন্ন চা বাগানের আরো প্রায় অর্ধশত সিনিয়র প্লান্টারস উপস্থিত ছিলেন।