সদ্য সংবাদ

বিভাগ: মাধবপুর

কমলগঞ্জে পৌর মেয়রের ব্যক্তিগত উদ্যোগে শিক্ষা উপকরণ ও মিড ডে মিল বিতরন

134 copy
কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার কামুদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে জেলার শ্রেষ্ট বিদ্যোৎসাহী সমাজকর্মী ও কমলগঞ্জ পৌর মেয়র মো. জুয়েল আহমেদ এর ব্যক্তিগত উদ্যোগে শিক্ষা উপকরণ ও মিড ডে মিল বিতরণ করা হয়েছে। বুধবার দুপুর ১২টায় বিদ্যালয় হলরুমে এসএমসি’র সহ-সভাপতি আব্দুল মন্নানের সভাপতিত্বে ও শিক্ষক ওবায়দুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্টানে প্রধান অতিথি ছিলেন কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মোঃ জুয়েল আহমেদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন সহকারি উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জয় কুমার হাজরা, কমলগঞ্জ প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহীন আহমেদ, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মো: মোস্তাফিজুর রহমান, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আইনুন্নাহার বেগম, কমলগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য জহিরুল ইসলাম, উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি হামিম মাহমুদ, স্থানীয় ইউপি সদস্য ইউসুফ হারিরী। অনুষ্টান শেষে বিদ্যালয়ের দেড় শতাধিক শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা উপকরণ ও  মিড ডে মিল বিতরণ করা হয়।

বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল অনুর্ধ্ব (১৭) শ্রীমঙ্গল উপজেলা চ্যাম্পিয়ন

ঝলক দত্ত

42474032_2189371291341240_2358185844369522688_n

মৌলভীবাজার জেলা স্টেডিয়ামে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে (অনুর্ধ-১৭) জেলা পর্যায়ে ফাইনাল খেলায় শ্রীমঙ্গল উপজেলা ট্রাইবেকারে ৪-২ গোলে কমলগঞ্জ উপজেলাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে। নির্ধারিত সময়ের খেলাটি ১-১ গোলে অমিমাংশিত ভাবে শেষ হয়।

খেলাটি পরিচালনা করেন মৌলভীবাজার জেলার অভিজ্ঞ রেফারি মোঃ মাহমুদুর রহমান, ওয়াহিদুজ্জামান দুলাল, মোঃ ফখরুল ইসলাম ও মুসা। সোমবার (২৪ সেপ্টেম্বর) বিকেলে সাড়ে ৩ ঘটিকার সময় মৌলভীবাজার জেলা স্টেডিয়ামে এ খেলা অনুষ্ঠিত হয়। শ্রীমঙ্গল উপজেলার রুনি হায়দার শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড় ও কমলগঞ্জ উপজেলার একজন খেলোয়াড় সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার লাভ করেন। খেলা শেষে চ্যাম্পিয়ন ও রানারআপ ও শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড় এবং সর্বোচ্চ গোলদাতাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক তোফায়েল আহমদ ও অতিথিরা।

মৌলভীবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ আশরাফুর রহমান এর সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সচিব হাসান আহমেদ সারোয়ার, মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নেছার আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক মিসবাহুর রহমান, জেলা আওয়ামীলীগের সাংঘটনিক সম্পাদক মনসুর ইকবাল। সাবেক জাতীয় ফুটবলার ইকরাম রানা, শ্রীমঙ্গল উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মিলন দাশ গুপ্ত, সাবেক ফুটবলার পিযুস দত্ত, ৩নং শ্রীমঙ্গল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ভানু লাল রায়। উপস্থিত ছিলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা রেফারি সমিতির সভাপতি কবির উদ্দিন সুইট, সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবুল কাশেম, কামরুল হাসান দুলন, শ্রীমঙ্গল উপজেলা যুবলীগের সাংঘটনিক সম্পাদক আবুতালেব বাদশা, শ্রীমঙ্গল পৌর যুবলীগ সভাপতি আকবর হোসেন শাহীন, শ্রীমঙ্গল উপজেলা যুবলীগের প্রচার সম্পাদক শের জাহান সেজু, মোঃ মিজানুর রহমান, এমাদুর রহমান, শ্রীমঙ্গলের ক্রিকেট কোচ তাপস দত্ত, গোলাম মোস্তফা।

কমলগঞ্জে প্রধান শিক্ষক ও সভাপতিদের নিয়ে পরীক্ষার মূল্যায়ন সভা অনুষ্ঠিত

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

???????????????????????????????
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে পরীক্ষার মূল্যায়ন সভা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতিদের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত হয়। মঙ্গলবার (২৫ সেপ্টেম্বর) বিকাল ৩টায় গুড নেইবারস বাংলাদেশ মৌলভীবাজার সিডিপির আদমপুরস্থ কার্যালয়ে ড্রিম স্কুল সেন্টারের আওতায় এ সভার আয়োজন করে। মৌলভীবাজার সিডিপির এ্যডুকেশন ও প্রটেকশন মর্নিংটন মৃ অফিসার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কমলগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো: মোশারফ হোসেন।
গুড নেইবারস বাংলাদেশের শিক্ষা কার্যক্রম দুটি বিষয় উপস্থিতি এবং পাশের হারের মূল্যায়ন করে। এই দুটি বিষয়ের উপর মূল্যায়ন করে সর্বোচ্চ উপস্থিতি হারের জন্য হকতিয়ারখোলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, জিকে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, মধ্যভাগ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং সর্বোচ্চ পাশের হারের জন্য নয়াপত্তন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, মধ্যভাগ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং তেতইগাঁও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়কে সম্মানা ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়।

মৌলভীবাজার-শমশেরনগর-চাতলা স্থলবন্দর সড়কের বেহাল অবস্থা ॥ ইট সলিং দিয়ে মেরামতের কাজ !

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

Pic-Road-2
সড়ক ও জনপথ বিভাগের মৌলভীবাজার- শমশেরনগর- চাতলা স্থলবন্দর সড়কের বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। খানাখন্দে ভরপুর রাস্তাটি যানবাহন চলাচল ও যাত্রীদের নানা ভোগান্তির সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে ভারতের সাথে আমদানী রপ্তানি বন্ধ রয়েছে। বর্তমানে আরএইচডি’র রাস্তা ইট সলিং দিয়ে মেরামতের কাজ চলছে।
সরজমিনে দেখা যায়, মৌলভীবাজার-শমশেরনগর-চাতলাপুর সড়কে করুণ দশা। দীর্ঘদিন ধরে সড়কে গর্ত, বড় বড় খানা-খন্দ ও পানি জমে যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে উঠেছে। গর্তে পড়ে যানবাহনসমূহের নানা দুর্ঘটনাও ঘটেছে প্রতিনিয়ত।এতে জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে। চাতলাপুর স্থলবন্দর থেকে শমশেরনগর হয়ে মৌলভীবাজার জেলা সদর পর্যন্ত রাস্তাটি প্রায় ৩৮ কিলোমিটার। জেলা সড়ক ও জনপথ বিভাগের সড়কটি যাতায়াত ও মালামাল পরিবহণে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি রুট। জেলা সদরের সাথে সংযোগ রক্ষাকারী অন্যতম এ সড়কটি বেহাল দশায় পরিণত হওয়ায় কয়েক লক্ষাধিক মানুষ অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। স্থানীয় বাসিন্দা অঞ্জন প্রসাদ রায় চৌধুরী, হিফজুর রহমান তুহিন, তানভীর আহমেদ ও হোসেন জুবায়ের বলেন, দীর্ঘদিন ধরে রাস্তার বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। বিশেষ করে রোগী ও গর্ভবর্তী মহিলাদের কষ্টের সীমা নেই। তাৎক্ষনিক রোগীকে মৌলভীবাজার সদরে প্রেরণ করতে হলে পথেই মৃত্যু অবধারিত।
চাতলা শুল্ক ও স্থলবন্দর হয়ে ভারতের উত্তর ত্রিপুরায় পণ্য ও মালামাল আমদানি-রপ্তানি ছাড়াও এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার শিক্ষার্থী, কর্মজীবী ও সাধারণ মানুষ চলাচল করে থাকেন। দীর্ঘদিন যাবত্ সড়কটি সংস্কার না করায় বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়ে যান চলাচলের অনুপোযোগি হয়ে পড়ছে। সম্প্রতি বন্যায় সড়কের শরীফপুর ইউনিয়নের কয়েকটি স্থানে বড় বড় ভাঙন দেখা দেয়। এছাড়াও কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর থেকে মৌলভীবাজার জেলা সদরের ২০ কিলোমিটার সড়কের শমশেরনগর মোকামবাজার, মরাজানেরপার, রাধানগর, রামপুর, মুন্সীবাজার, বাবুরবাজার, চৈত্রঘাট, জয়কালী মন্দির, শ্যামেরকোনা বাজার, লঙ্গুগুরপার, শিমুলতলাসহ সড়কের অধিকাংশই গভীর গর্ত ও খানা-খন্দে ভরপুর। সড়ক ও জনপথ বিভাগের এই সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল সম্পূর্ণ ঝুঁকিপূর্ণ।
মৌলভীবাজার জেলা সড়ক ও জনপথ বিভাগ কর্তৃপক্ষ আরএইচডি’র রাস্তা ইট সলিং দিয়ে মেরামতের কাজ করছে। পাকা রাস্তার মাঝে মাঝে ইট সলিং দিয়ে নির্মাণ করার ফলে সাধারণ জনগণের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে এবং এটি রাষ্ট্রীয় অপচয় বলে আখ্যায়িত করেন সাধারণ জনগণ। এব্যাপারে জেলা সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপসহকারি প্রকৌশলী মো: শরীফুল ইসলাম জানান, মৌলভীবাজার- শমশেরনগর- চাতলা স্থলবন্দর সড়কের টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন। আপাতত ভারতের সাথে বাংলাদেশের আমদানী রপ্তানী পূণ প্রতিষ্ঠাতার জন্য ইট দিয়ে সলিং করে মেরামতের কাজ চলছে। #

কমলগঞ্জের মিরতিংগা-ভৈরবগঞ্জ সড়কে ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল যাত্রী মহিলা নিহত : শিশুসহ আহত ২

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

Untitled-1 copy

 মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের মিরতিংগা- ভৈরবগঞ্জ সড়কের মাজিদিহি চা বাগান এলাকায় একটি মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় বালু ভর্তি ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহীর স্ত্রী তাসনিমা বেগম (২৬)নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছে মোটরসাইকেল আরোহী (চালক) ও শিশু পুত্র। নিহতের বাড়ী হবিগঞ্জের মীরপুরের চারিগ্রামে।

প্রত্যক্ষদর্শীসূত্রে জানা যায়, সোমবার (২৪ সেপ্টেম্বর)  সকালে শ্রীমঙ্গলের ভৈরববাজার-কমলগঞ্জের মুন্সিবাজার সড়ক এর মাজদিহি চা বাগানের সামনের রাস্তা দিয়ে  তাসনিমা বেগম তার স্বামী ও বাচ্চার সাথে মোটরসাইকেল এ যাচ্ছিলেন ৷ পথিমধ্যে একটি বালুভর্তি ট্রাক তাদের মোটরসাইকেল কে পিছন থেকে ধাক্কা দিলে  চালক ছিটকে পড়ে যান, এরপর ট্রাকটি তাসনিমা কে চাপা দিয়ে চলে যায়৷ ঘটনাস্থলেই তাসনিমার মৃত্যু হয় ৷ এঘটনায় চালক স্বামী শিপন মিয়া আহত হন। নিহতের অবুঝ শিশু আহত অবস্থায় হাউমাউ করে কাঁদছে। শিপন মিয়া স্থানীয় মুন্সীবাজার প্রাণ কোম্পানীর এসআর হিসাবে কর্মরত আছেন।

কমলগঞ্জের ৩টি ইউনিয়নের বিএনপির কমিটি অনুমোদন

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

Untitled-1 copy

জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির কমলগঞ্জ উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের যথাক্রমে আদমপুর (৭১), আলীনগর (৭১) ও কমলগঞ্জ সদর এর (৭১) সদস্য বিশিষ্ট কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সোমবার (২৪সেপ্টেম্বর) উপজেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব গোলাম কিবরিয়া শফি ও সাধারণ সম্পাদক আলম পারভেজ চৌঃ সোহেল স্বাক্ষরিত এক পত্রে এই কমিটি গুলোর অনুমোদন করেন । নবগঠিত কমিটি গুলোতে আদমপুরে সভাপতি মোঃ মছদ্দর আলী ও সাঃ সম্পাদক মোঃ আমীনুল ইসলাম,আলীনগরে সভাপতি মোঃ সিদ্দিকুর রহমান চৌঃ সাঃসম্পাদক মোঃ ইলিয়াছ আলী ও কমলগঞ্জ সদরে মোঃ হারিছ উর রহমান সভাপতি ও ডাঃ মনসুর আলম মঞ্জুকে সাঃ সম্পাদক করা হয়। সংগঠনের ভানুগাছ বাজারস্থ অস্হায়ী কার্যালয়ে উপজেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম কিবরিয়া শফি কমিটি গুলো হস্তান্তর করেন। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্হিত ছিলেন উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বাবু, উপজেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক জেহাদ আহমেদ চৌধুরী, ছাএ বিষয়ক সম্পাদক মেশকাত হোসেন শাহীন,সেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক ইয়াকুব আলী সিরাজী,পৌর বিএনপির সাধারন সম্পাদক মোঃ শফিকুর রহমান, সহ-প্রচার সম্পাদক মোঃ জাহাঙ্গীর আলমসহ উপজেলা ও ইউনিয়নের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

গোলাম আলহাজ্ব কিবরিয়া শফি বলেন জাতীয়বাদী দলকে তৃনমূল পর্যায়ে শক্তিশালী করার লক্ষে কমিটি গুলো প্রদান করা হলো। এই কমিটি ওয়ার্ড পর্যায়ে সংগঠনকে শক্তিশালী করতে কার্যকর ভূমিকা রাখবে।

কমলগঞ্জে ইউনিয়ন জাতীয় পাটির দ্বি বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্টিত

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

621
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়ন জাতীয় পাটির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন গত শনিবার সন্ধ্যা ৭ টায় কমলগঞ্জ পৌরসভা মিলনায়তনে অনুষ্টিত হয়। সম্মলনের আনুষ্টানিক উদ্বোধন করেন উপজেলা জাতীয় পাটির সভাপতি মো: দুরুদ আলী । সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টি মৌলভীবাজার জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো: কামাল হোসেন।
কমলগঞ্জ সদর ইউনিয়ন জাতীয় পাটির আহবায়ক মোঃ জমির আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্টিত উক্ত সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আসলম উদ্দিন,  উপজেলা জাতীয় পার্টির সহ-সভাপতি আব্দুল মতিন, সম্পাদক মোঃ রফিকুল আলম, পৌর জাতীয় পার্টির যুগ্ন আহবায়ক সাংবাদিক এম, এ, ওয়াহিদ রুলু ও সদস্য সচিব এম এ মুক্তাদির, উপজেলা যুব সংহতির সভাপতি মোঃ লুৎফুর রহমান প্রমুখ।
সম্মেলনে জমির আলীকে সভাপতি ও আব্দুল আজিজ আজিকে সম্পাদক করে ৫১ সদস্য বিশিষ্ট কলগঞ্জ সদর ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির কমিটি গঠন করা হয়।

মৌলভীবাজারে মেডিক্যাল কলেজ স্থাপনের দাবিতে কমলগঞ্জের শমশেরনগর বিএএফ শাহীন কলেজে স্পন্দনের উদ্যোগে গণস্বাক্ষর কর্মসূচী

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
Kamalgonj Pic Demand For Medical College 1
মৌলভীবাজারে সরকারি মেডিক্যাল কলেজ স্থাপনের দাবিতে কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর বিএএফ শাহীন কলেজ প্রধান ফটকের সামনে গণস্বাক্ষর কর্মসূচী পালণ করা হয়। রোববার স্পন্দন শাহীন কলেজ শাখার উদ্যোগে বেলা দেড়টা থেকে আড়াইটা পর্যন্ত এ কর্মসূচী পালন করা হয়।
মৌলভীবাজারে সরকারি মেডিক্যাল কলেজ স্থাপনের দাবিতে মৌলভীবাজার সরকারি মেডিক্যাল কলেজ চাই ওয়ার্ল্ড ওয়াইড হোয়ার্টসআপ গ্রুপ ও সম্মিলিত সামাজিক উন্নয়ন পরিষদের চলমান গণস্বাক্ষর কর্মসূচীর অংশ হিসাবে শমমেরনগর বিএএফ শাহীন কলেজ প্রধান ফটকের সামনে এ কর্মসূচী পালিত হয়। স্পন্দন বিএএফ শাহীন কলেজ শমশেরনগর শাখার সভাপতি মো: আয়নুল ইসলামের নেতৃত্বে এ কলেজের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক ও এলাকাবাসী স্বাক্ষর প্রদান করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন স্পন্দন শাহীন কলেজ শাখার সহ-সভাপতি শাকিল মিয়া, সাধারণ সম্পাদক রুমেল আহমদ, যুগ্ম সম্পাদক মাহফুজ আলম (নয়ন), আকরাম হোসাইন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শাহরিয়ার রশীদ, অর্থ সম্পাদক আরিয়ান সাগর ও প্রচার সম্পাদক তাজুল ইসলামসহ সংগঠনের সদস্যরা এং বিএনসিসি ও স্কাউট সদস্যরা।
বৃষ্টি ভেজা দিনেও এ কর্মসূচীতে ১১০০ জন স্বাক্ষর প্রদান করেন। স্বাক্ষর প্রদানকারী আব্দুল আজিজ, মাজহারুল ইসলাম, মাহিমা আক্তার, নাদিয়া আক্তার, পুষ্পিতাসহ অনেকেই প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, মৌলভীবাজার একটি গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন জেলা। এখানে একটি সরকারী মেডিক্যাল কলেজের খুবই প্রয়োজন। মৌলভীবাজারে মেডিক্যাল কলেজ স্থাপিত হলে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে এ জেলার ছাত্ররা এ মেডিক্যাল কলেজে পড়ার সুযোগ পাবে বলেও স্বাক্ষর প্রদানকারীরা জানান।

কমলগঞ্জে জমি জমার বিরোধ : আকস্মিক আগুনে এক বাড়ির বসত ঘর পুড়ে ছাই

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

02
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের ছনগাঁও গ্রামে দীর্ঘদিন ধরে দুই পক্ষের মাঝে জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলছিল। গত শনিবার (২২ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত ১টায় আগুনে বিরোধীয় এক পক্ষের বসত ঘর পুড়ে ছাই হয়ে যায়। আগুনে ১২ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করলেও এলাকাবাসী ঘটনাটিতে রহস্য জনক বলে মনে করেন। আগুনে এ গ্রামের মরহুম তোতা মিয়ার সৌদি প্রবাসী আব্দুস শহীদের বসতঘর পুড়ে যায়।
ক্ষতিগ্রস্ত প্রবাসী শহীদের চাচাতো ভাই রমিজ মিয়া বলেন, প্রতিপক্ষের দেয়া আগুনে মরহুম তোতা মিয়ার বসতঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। মধ্যরাতে আগুনের লেলিহান শিখা এত প্রখর ছিল যে স্থানীয় লোকজন আগুন নিভানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। এতে অনেক মূল্যবান জিনিসপত্র, আসবাবপত্র, অলঙ্কার, কাপড়ছোপড়,  দলিল দস্তাবেজ, গবাদি পশু, নগদ টাকাসহ পুড়ে প্রায় ১২ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে। এ ঘটনায় কমলগঞ্জ মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও তিনি জানান।
স্থানীয়ভাবে জানা যায়, মরহুম তোতা মিয়ার ছেলে সৌদি প্রবাসী আব্দুর সহিদের সাথে স্থানীয় একই এলাকার ইন্তাজ মিয়ার ছেলে মতলিব মিয়া (৪৫), তার ভাই মিলন মিয়া (৫৫), তোরন মিয়া (৫০), মস্তই মিয়া (৪২) ও ভানুবিল গ্রামের তরিক মিয়ার ছেলে শফিক মিয়ার (৫০) জায়গা সংক্রান্ত বিষয়ে দীর্ঘদিন থেকে মামলা বিরোধ চলে আসছিল। এই বিরোধেই প্রতিপক্ষ পরিকল্পিতভাবে আগুন দিয়েছে।
তবে মতলিব মিয়া প্রতিপক্ষের সাথে জমি নিয়ে দীর্ঘ বিরোধের ও মামলার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, মামলায় সুবিধা নিতেই নিজেরা আগে থেকেই মাটির দেয়ালে একটি বসত ঘরের সমূহ মালামাল সরিয়ে নিজেরাই আগুন লাগিয়েছে। তিনি আরও বলেন, এ গ্রামবাসীর কাছেও আগুনটি রহস্যজনক বলে মনে হচ্ছে।
আদমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদাল হোসেন ছনগাঁওনে একটি বসতঘরের আগুনের সত্যতা নিশ্চিত করেন। তবে তিনি বলেন, আসলেই এ আগুন রহস্যজনক। সরেজমিন জোর পুলিশি তদন্ত হলে আসল রহস্য বেরিয়ে আসবে বলেও তিনি মনে করেন।
কমলগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) সুধীন চন্দ্র দাস বলেন, মৌখিকভাবে অভিযোগ পেয়েছি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্তক্রমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মৌলভীবাজার জেলার সেরা কমলগঞ্জের কুমড়াকাপন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

01
মৌলভীবাজার জেলার শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় নির্বাচিত হয়েছে কমলগঞ্জ পৌরসভার কুমড়াকাপন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। সম্প্রতি মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যলয়ে প্রাথমিক শিক্ষা পদক-২০১৮ এ জেলা পর্যায়ে বাচাই প্রতিযোগিতায় এ জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে বিদ্যালয়টির নাম ঘোষণা করা হয়।
কমলগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র জানায়, একটি আদর্শ ও শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় নির্বাচনের ক্ষেত্রে প্রাক-প্রাথমিকে শ্রেণিকক্ষ সাজানো, বিদ্যালয়ের আঙিনায় বাগান সৃজন, শিক্ষকদের উন্নত পাঠদান, মিড ডে মিল কর্মসুচি, বন্ধু শিক্ষক পদ্ধতি চালু, শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির হার, নিয়মিত খেলাধুলা, শিক্ষকদের নৈমিত্তিক ছুটি ও ভালো ফলাফল বিবেচনায় নেওয়া হয়। এর আগে এই বিদ্যালয়ের এসএমসি পরপর দুইবার জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ এসএমসি নির্বাচিত হয়েছিল। সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার, মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসকসহ উর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তারা বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করেছেন। বিদ্যালয়টি উপজেলা, জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রযোগিতায় কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখেছে।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সালেহা মাহমুদ বলেন, ‘আমাদের বিদ্যালয়টি প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় গত কয়েক বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে শতভাগ পাস করে আসছে। শিক্ষকেরাও নৈমিত্তিক ছুটি ভোগ করেছেন কম। বিদ্যালয়ের পারিপার্শ্বিক পরিবেশও ভালো। আমরা ভবিষ্যতে এ স্বীকৃতি ধরে রাখতে চাই।’
সিলেট বিভাগের সাবেক শ্রেষ্ঠ এসএমসি সভাপতি মো: সানোয়ার হোসেন বলেন, মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার, উপজেলা শিক্ষা অফিসার, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, সাংবাদিক, সুশীল সমাজ, অভিভাবকসহ সকলের পরামর্শ ও সহযোগিতায় বিদ্যালয়টি এ পর্যায়ে এসেছে।
কমলগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো: মোশারফ হোসেন বলেন, বিদ্যালয়ের কর্মকান্ড বিবেচনা করে জেলার শ্রেষ্ঠ বিদ্যালয় ঘোষণা করা হয়েছে।