সদ্য সংবাদ

বিভাগ: মাধবপুর

মাধবপুরে রৌপ্যকাপ ক্রিকেট ফাইনালে এস পি কে নোয়াগাঁও চ্যাম্পিয়ন

Kamalgonj Pic Madhobpur Crik 1

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে রৌপ্যকাপ ক্রিকেট প্রতিযোগিতায় আর এস পি কে নোয়াগাঁও চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। শুক্রবার (৬ এপ্রিল) বিকাল ৪টায় উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের নোয়াগাঁও মাঠে ইর্য় স্টার যুব সংঘের আয়োজনে এ প্রতিযোগিতার ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়।
রৌপ্যকাপ ক্রিকেট প্রতিযোগিতা কমিটির সভাপতি তাজ উল্যার সভাপতিত্বে ও আনোয়ার হোসেনের সঞ্চালনায় সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত হয়ে চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ দলের মাঝে ক্রেষ্ট বিতরণ করেন কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা যুবলীগে আহ্বায়ক মো: জুয়েল আহমদ। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক আসাবুর ইসলাম, আব্দুল হান্নান, আরিফ মিয়া, আব্দুস শহীদ সায়েদ।
চুড়ান্ত খেলায় এস পি এস নোয়াগাঁও ২০ ওভারে ৪ উইকেট রান সংগ্রহ করে ১০৩। জবাবে স্বাগতিক ইয়ং স্টার মাধবপুর সব কয়টি উইকেট হারিয়ে রান সংগ্রহ করে মাত্র ৪৩। ফলে আর এস পি কে নোয়াগাঁও ৫৯ রানে জয় লাভ করে প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়। প্রতিযোগিতায় মোট ১৬টি দল অংশ গ্রহন করেছিল। খেলায় ম্যান অবদি ম্যাচ নির্বাচিত হয়েছে বিজয়ী দলের তৌকির আহমদ ও ম্যান অব দি সিরিজ হয়েছে একই দলের আমজাদ হোসেন।

পূর্ব বিরোধের জের ধরে- কমলগঞ্জের মাধবপুরে রিক্সাচালকের দায়ের কূপে বৃদ্ধা গৃহবধূ গুরুতরভাবে আহত

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট

Untitled-1 copy
পারিবারিক পূর্ব বিরোধের জের ধরে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নে এক রিক্সা চালকের দায়ের কূপে বৃদ্ধা গৃহবধূ  আফিয়া বেগম (৫০) গুরুরতরভাবে আহত হয়ে এখন মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) ভোর ৬টায় মাধবপুর ইউনিয়নের লঙ্গুরপার গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।
গ্রামবাসী সূত্রে জানা যায়, শ্বশুড় শ্বাশুড়ির অনুমতি ছাড়া প্রতিবেশী মাসুক মিয়ার বাড়িতে যাওয়া নিয়ে সোমবার সন্ধ্যায় লঙ্গুরপার গ্রামের মখলিছ মিয়ার স্ত্রী আফিয়া বেগমের(৫০) সাথে তার ছোট ছেলে শাহ আলমের স্ত্রীর তর্ক বিতর্ক হয়েছিল। এর জের ধরে মঙ্গলবার ভোর ৬টায় লঙ্গুরপুল (সেতু) এলাকায় একা পেয়ে প্রতিবেশী রিক্সা চালক মাসুক মিয়া (৫৫) দা দিয়ে অতর্কিতভাবে গৃহবধূ আফিয়া বেগমকে কূপিয়ে গুরুতরভাবে আহত করে পালিয়ে যায়। ঘটনার খবর পেয়ে আহত গৃহবধূর স্বামী মখলিছ মিয়াসহ গ্রামবাসীরা তাকে (গৃহবধূকে) উদ্ধার করে প্রথমে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। গৃহবধূর অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে তাকে দ্রুত মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।
আহত গৃহবধূর বড় ছেলে কামাল মিয়া, বলেন, বাড়ির পারিবারিক নিয়ম কানুন না মেনে তার ছোট ভাইর স্ত্রী প্রতিবেশী মাসুক মিয়ার বাড়িতে যাতায়াত করে। মুরব্বীদের মান্য করে না। এ নিয়ে সোমবার সন্ধ্যায় তার মা ( আফিয়া বেগম) আর ছোট ভাইর স্ত্রীর মাঝে তর্ক বিতর্ক হয়েছিল। এর জের ধরে প্রতিবেশী মাসুক মিয়া মঙ্গলবার ভোরে প্রাত ভ্রমনকালে একা পেয়ে মাকে (আফিয়া বেগমকে) দা দিয়ে কূপিয়ে আহত করে। মাসুক মিয়ার দায়ের কূপে তার মায়ের বাম  হাত ভেঙ্গে গেছে। তাছাড়া মাথাসহ দেহের বিভিন্ন স্থানে গুরুতর জখম আছে। এখন মাকে বাঁচানোর চিকিৎসায় ব্যস্ত আছেন দাবি করে কামাল মিয়া আরও বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা করবেন। কামাল মিয়া আরও জানান, রিক্সা চালক মাসুক মিয়া কমলগঞ্জ উপজেলা জামায়াতের একজন সক্রিয় সদস্য।
মাধবপুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড মো: মোতাহের আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তিনি সন্ধ্যায় মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে গিয়ে আহত গৃহবধূকে দেখে তার খোঁজ খবর নিবেন।
ঘটনার পর থেকে কিছুটা আত্মগোপনে থাকায় অভিযুক্ত রিক্সা চালক মাসুক মিয়াকে না পেলেও তার ছেলে আব্দুল হামিদ মুঠোফোনে এ প্রতিনিধিকে বলেন, আফিয়া বেগমের আচরণ ভাল নয়।  তিনি প্রায়ই ছোট পুত্রবধূকে মারধর করেন। এ নিয়ে কথা বললে আফিয়া বেগম তার বাবা মাসুক মিয়াকে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করেন। এ পূর্ব বিরোধের জের ধরে মঙ্গলবার সকালে তার বাবা মাসুক মিয়া একটি গাছের ডাল দিয়ে গৃহবধূ আফিয়া বেগমকে আঘাত করেছেন। তবে দা দিয়ে নয়।

মাধবপুরে সংখ্যালঘুর বাড়ীতে হামলা ও ভাংচুর ॥ আতংকে বাড়ীর মহিলারা ঘর ছাড়া

pic-2

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এক আওয়ামীলীগ নেতার ছেলে কর্তৃক সংখ্যালঘু পরিবারের বাড়ীতে হামলা ও ভাংচুর চালানো হয়। ভাংচুর করে তাদের প্রাণনাশের হুমকি দিলে তারা বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র চলে যায়। রোববার দুপুরে কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের ভান্ডারীগাঁও গ্রামের জিতেন মল্লিকের বাড়ীতে এ ঘটনা সংগঠিত হয়।
ভান্ডারীগাঁও গ্রামের জিতেন মল্লিক, তার ভাই স্বর্ণ ব্যবসায়ী নিতাই মল্লিক, মা ললিতা মল্লিক অভিযোগ করে বলেন, প্রতিবেশী দীপক মল্লিকের (৪৫) সাথে তাদের জমিসংক্রান্ত পূর্ব বিরোধের জের ধরে মাধবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি আসিদ আলীর ছেলে শাহ আলমের নেতৃত্বে ১০/১২জনের একটি সংঘবদ্ধ দল রোববার বেলা সাড়ে ১১টায় দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে তাদের পাকা বাথরুম ও টিনশেডের ঘর ভাংচুর করে।  এ সময় বাড়ীতে কোন পুরুষ ছিলো না। সন্ত্রাসী হামলার কারণে বাড়ীর মহিলারা প্রাণভয়ে বাড়ী ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নেয়। খবর পেয়ে কমলগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
মাধবপুর ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মোতাহের হোসেন ও এলাকাবাসীর সাথে আলাপ করে জানা যায়, বিষয়টি নিয়ে এলাকায় কয়েকবার সালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে, যা এখনো বিচারাধীন রয়েছে।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শাহ আলমের সাথে কথা বললে তিনি হামলা ও ভাংচুরের সাথে তার জড়িত থাকার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, দীপক মল্লিকের পরিবারের সদস্যরাই এ ঘটনা ঘটিয়েছে এবং এ সময় তিনি ঘটঁনাস্থলের অদুরে উপস্থিত ছিলেন।
কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) নজরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, তদন্তক্রমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

কমলগঞ্জে ঘোষনা ছাড়াই সিএনজি অটোরিক্সার ভাড়া বৃদ্ধি ॥ দুর্ভোগে যাত্রীরা

images-202x300
কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
প্রথমে ঈদ বোনাস ও পরবর্তীতে গ্যাসের বৃদ্ধির অজুহাতে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার সবকটি সড়কে সিএনজি অটোরিক্সার ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়েছে। কোন প্রকার পূর্ব ঘোষনা ছাড়াই এ ভাড়া বৃদ্ধিতে যাত্রীরা চরম দুর্ভোগে পড়ছেন। বর্ধিত ভাড়া নিয়ে প্রতিদিনই যাত্রীদের সাথে চালকদের ঝগড়া-বাকবিতন্ডা হচ্ছে। ছাত্র থেকে শুরু করে পেশাজীবী পর্যন্ত সবাই ভাড়া নিয়ে দূর্ভোগে পড়লেও প্রশাসন নিরব রয়েছে। ফলে ভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে কমলগঞ্জের সচেতন যুবসমাজ আন্দোলনে যাবার প্রস্তুতি নিচ্ছে। ভূক্তভোগী যাত্রীরা এ ব্যাপারে প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছেন।
জানা যায়, পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিন থেকে কমলগঞ্জের বিন্নি সড়কে সিএনজির চালকরা ঈদ বোনাস দাবী করে প্রথম ২/৩দিন যাত্রীদের কাছ থেকে জনপ্রতি ৫ থেকে ১০ টাকা ভাড়া আদায় করেছে। ঈদের এক সপ্তাহ পরও ভাড়া না কমায় যাত্রীরা প্রতিবাদ জানালে সিএনজি অটোরিক্সার চালকরা গ্যাস বৃদ্ধির অজুহাত দেখিয়ে ভাড়া বাড়ানো হয়েছে বলে দাবী করে। যাত্রীরা জানান, বৃদ্ধি করা ভাড়ায় এখন কমলগঞ্জ থেকে মৌলভীবাজার শহরের ভাড়া ৪৫ টাকা, শমশেরনগর থেকে শ্রীমঙ্গল শহরের ভাড়া ৫০ টাকা, মুন্সীবাজার থেকে শমশেরনগর ২০ টাকা, কমলগঞ্জ থেকে মুন্সীবাজার ২০, কমলগঞ্জ থেকে ইসলামপুর ৫০ টাকা, শমশেরনগর থেকে কমলগঞ্জ ২০ টাকা, মশেরনগর থেকে পতনঊষার ২০ টাকা। এককথায় প্রতিটি সড়কে ৫ থেকে ১০ টাকা জনপ্রতি ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়েছে। আলাপকালে ভূক্তভোগী যাত্রী বিকাশ রায়, কলেজ ছাত্র অঞ্জন দেবনাথ, শিক্ষিকা লাভলী বেগম, শমশেরনগর-মৌলভীবাজার, কমলগঞ্জ-মৌলভীবাজার সড়কে দীর্ঘদিন ধরে যাত্রীবাহী বাস না থাকায় সুযোগ বুঝে চালকরা দফায় দফায় ইচ্ছেমত ভাড়া বৃদ্ধি করছেন। যাত্রীরা প্রতিবাদ জানালে প্রায় সময় চালকদের হাতে নাজেহাল হতে হয়। ফলে যথারীতি পকেট কাটা যাচ্ছে যাত্রীদের। তাদের অভিযোগ- ঠিকমতো মনিটরিং না থাকায় এই নৈরাজ্য। অন্যদিকে চালক ও মালিকরা বলছেন, বার-বার একই পরিস্থিতির তৈরীর মূলে রয়েছে, সিএনজি অটোরিক্সার অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধি ও লাইসেন্স নিয়ে দুর্নীতি। সিএনজি চালকের সাথে দরদাম, এমন ঘটনা নিত্যদিনের।
ব্যাংকার প্রমোদ সিন্হা জানান, সিএনজি চালকরা নানা অজুহাতে কয়েকদিন পরপর দাম বাড়ানোর পায়তারা করে।। কখনও গ্যাসের দাম, অবরোধ, হরতাল, ঈদ, পূজা ইত্যাদি।। এভাবে আর কতদিন চলবে?
লেখক-গবেষক ও উন্নয়ন চিন্তক আহমদ সিরাজ বলেন, যৌক্তিক কোনো কারণ ছাড়াই কমলগঞ্জ এর প্রায় সর্বত্র যাত্রী পরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়েছে। কোনো পূর্বালোচনা ছাড়াই হঠাৎ এরকম ভাড়া বৃদ্ধিতে সাধারণ যাত্রীরা বিরাট অসুবিধায় পড়েছেন। এ ব্যাপারে তড়িৎ যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ করার জন্য প্রশাসনকে এগিয়ে আসতে হবে।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কমলগঞ্জ উপজেলা সিএনজি অটোরিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আলমাছ মিয়া বলেন, আমাদের সমিতির কোন সিদ্ধান্ত ছাড়াই বিভিন্ন রুটে ৫-১০ টাকা ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়েছে বলে আমরা খবর পেয়েছি। বিষয়টি আমরা দেখতেছি।
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাহমুদুল হক বলেন,  বিষয়টি অবশ্যই গুরুত্বসহকারে খতিয়ে দেখা হবে। প্রয়োজনে জেলা প্রশাসকের সাথে আলোচনা করে একটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।

কমলগঞ্জে অগ্নিকান্ডে লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি

Fire-1
কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে দুষ্ককৃতিকারীদের দেয়া আগুনে একটি মুদির দোকান পুড়ে লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবারে রাতে উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের পদ্মছড়া চা বাগানে।
জানা যায়, কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের পদ্মছড়া চা বাগানের মোড়া লাইনে বুধবার রাত ২টা দিকে রাহাত মিয়া (৩৬) এর মুদির দোকানে আগুন লেগে যায়। এতে প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়। আগুনের সূত্রপাত জানা না গেলের দোকানদার রাহাত মিয়া বলেন দুষ্ককৃতিকারীরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এব্যাপারে দুষ্ককৃতিকারীর নাম উল্লেখ করে থানায় অভিযোগ করা হবে বলে জানান। তবে এ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ফায়ার সার্ভিস অফিসে জানানো হয়নি।

কমলগঞ্জে নিজ গ্রামে সংবর্ধিত হলেন ডা: মধুসূদন পাল মিঠু

12

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের লঙ্গুরপার গ্রামের কৃতি সন্তান ডা: মধুসূদন পাল মিঠু এমবিবিএস ডিগ্রি অর্জন করায় গ্রামবাসীর পক্ষ থেকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। গত শুক্রবার (২১ এপ্রিল) বিকাল ৪টায় লঙ্গুরপার সার্বজনীন দূর্গাবাড়ি প্রাঙ্গনে আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো: ছিদ্দেক আলী।
লঙ্গুরপার দূর্গাবাড়ি পরিচালনা কমিটির সভাপতি শিক্ষক নিলু পালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কমলগঞ্জ উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক সাংবাদিক প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বাছিদ, স্থানীয় ইউপি সদস্য মোতাহির আলী, রাজনীতিবিদ আব্দুল মন্নাফ, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোতালেব, শিক্ষক মনজুর আহমদ আজাদ মান্না, শিক্ষক দেবাশীষ মল্ল্কি, ডা: মধুসূদন পাল মিঠুর গর্বিত পিতা মলয় পাল। শ্যামল পালের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক মহিলা সদস্যা সাধনা রানী পাল, সিটু পাল, দুলু পাল, সুজিত পাল, বলু চক্রবর্তী, নিরঞ্জন পাল প্রমুখ। অনুষ্ঠানে লঙ্গুরপার গ্রামের ১ম এমবিবিএস ডিগ্রি অর্জন করায় ডা: মধুসূদন পাল মিঠুকে গ্রামবাসীর পক্ষ থেকে ফুলের তোড়া ও ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়।
সংবর্ধনার জবাবে ডা: মধুসূদন পাল মিঠু পাল বলেন, মা-বাবা ও শিক্ষকমন্ডলীর অক্লান্ত প্রচেষ্টায় ও দারিদ্রতার সাথে লড়াই করে আমি আজ এ পর্যায়ে এসেছি। আমি যেখানেই থাকিনা কেনো এলাকার লোকদের বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করব।

কমলগঞ্জে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল থেকে বিভিন্ন পূজামন্ডপে অনুদানের চেক বিতরণ

pic-hkt-1

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট : 
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে দুর্গাপূজা উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল থেকে বিভিন্ন পূজামন্ডপে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রানালয়ের অধীন হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট কর্তৃক অনুদানের চেক বিতরণ করা হয়। গত শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় বাংলাদেশ মণিপুরী সমাজ কল্যাণ সমিতি কেন্দ্রীয় কমিটির আয়োজনে ও সিলেট জেলা শাখার সহযোগিতায় এই চেক বিতরণ অনুষ্ঠান মাধবপুর মণিপুরী ললিতকলা একাডেমিতে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্য্যনির্বাহী কমিটির সদস্য, কমলগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান, বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক মো. রফিকুর রহমান। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় কার্য্যনির্বাহী কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এড. মৃত্যুঞ্জয় ধর ভোলা।
বাংলাদেশ মণিপুরী সমাজ কল্যাণ সমিতির সভাপতি প্রতাপ চন্দ্র সিংহের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক কমলা কান্ত সিংহ ও সাংগঠনিক সম্পাদক দেবাশীষ সিংহের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সিলেট বিভাগীয় ট্রাস্টি চন্দন রায়, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. সিদ্দেক আলী, মৌলভীবাজার জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এড. রাধাপদ দেব সজল, রাজনগরের ফতেহপুর ইউপি চেয়ারম্যান নকুল দাশ, মণিপুরী ললিতকলা একাডেমির পরিচালক রামকান্ত সিংহ, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি মধু সূদন পাল, কমলগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সহ সভাপতি প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মো. সানোয়ার হোসেন। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মণিপুরী সমাজ কল্যাণ সমিতি সিলেট জেলা শাখার সভাপতি নির্মল কুমার সিংহ, ঢাকা জেলা শাখার সভাপতি বিশ্বজিত সিংহ, ডা: উচিত কুমার সিংহ প্রমুখ। আলোচনা সভা শেষে অতিথিরা দুর্গাপূজা উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল থেকে হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট এর মাধ্যমে কমলগঞ্জ উপজেলার ১২টি পূজামন্ডপে মোট ১ লক্ষ ২৩ হাজার টাকার অনুদানের চেক বিতরণ করেন।

কমলগঞ্জের মাধবপুর চা বাগানে বিদ্যুতায়িত হয়ে চা শ্রমিকের মৃত্যু

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ।।
imagesকমলগঞ্জের মাধবপুর চা বাগানে বিদ্যুতায়িত হয়ে জগদিশ রাজভর (৫৮) এক চা শ্রমিকের মুত্যৃ হয়েছে। রবিবার (১৬ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১১টায় মাধবপুর চা বাগানের দক্ষিণপাড়া শ্রমিক বস্তীতে এ ঘটনাটি ঘটে।
মাধবপুর চা বাগান সূত্রে জানা যায়, চা শ্রমিক জগদিশ রাজভর নিজের প্রয়োজনে বসত ঘরের পাশের একটি গাছ কাটতে গেলে গাছটি বৈদ্যুতিক তারের উপর পড়ে। পরে পড়ে থাকা তারের উপর থেকে গাছের ডালপালা কাটতে গেলে বৈদ্যুতিক তার জগদিশ রাজভরের হাতের কুনইয়ে লেগে বিদ্যুতায়িত হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। নিহত চা শ্রমিক জগদিশ রাজভর মাধবপুর চা বাগানের দক্ষিণপাড়া শ্রমিক বস্তির বাসিন্দা। সে দুই সন্তানের জনক।
মাধবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পুষ্প কমুার কানু ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক বলেন, ঘটনাটি তিনি জানেন না। তবে খোঁজ নিয়ে নিহতের পরিবারকে প্রয়োজনীয় সহায়তা করবেন।

মাধবপুরে খাদ্য সামগ্রী বিতরন

Pic- Madobpur
মাধবপুর সংবাদদাতা ॥
পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে প্রগতি সেবা সংঘের উদ্যোগে কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের ১০০শত জন গরীব অসহায় মানুষের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে প্রগতি সেবা সংঘের সভাপতি সাংবাদিক আসহাবুর রহমান শাওন এর সভাপতিত্বে শনিবার ২ জুলাই মাধবপুর ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক রফিকুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন কমলগঞ্জ পৌর মেয়র মো. জুয়েল আহমেদ, কমলগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ বদরুল হাসান, মাধবপুর ইউপি চেয়ারম্যান পুষ্প কুমার কানু, কমলগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি এম.এ.ওয়াহিদ রুলু, সাধারন সম্পাদক শাহীন আহমেদ।

মাধবপুর ইউপির ৩ নং ওয়ার্ডের সদস্য পদে মোহাম্মদ মোতাহের আলীর মনোনয়ন চূড়ান্ত

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট :

20160505_144711-1

কমলগঞ্জ উপজেলার ৮ নং মাধবপুর ইউপির ৩ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য প্রার্থী বর্তমান সদস্য মোহাম্মদ মোতাহের আলীর মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হয়েছে।  আজ ৫ মে উপজেলা রিটানিং অফিসার মো: ফরহাদ হোসেন তাঁর মমোনয়ন চূড়ান্ত করেন।

মোহাম্মদ মোতাহের আলী সকলের কাছে দোয়া ও আশীর্বাদ কামনা করছেন।