সদ্য সংবাদ

বিভাগ: জাতীয়

৬৪৯ ইউপিতে আওয়ামী লীগ ৪০৫ ও বিএনপি ৭০

   কমলকুঁড়ি ডেস্ক :

 

up-election20160508172721-300x166

চতুর্থ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে গতকাল রবিবার (৮ মে) পর্যন্ত ৬৪৯টি ইউপির ফলাফল সমন্বয় করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ৪০৫ জন ও বিএনপি’র ৭০ জন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে জয় পেয়েছেন।

তবে আওয়ামী লীগের ৩৫ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আগেই নির্বাচিত হয়েছেন।

চতুর্থ ধাপের ৭০৩টি ইউপিতে এক কোটি ১৫ লাখ ৫০ হাজার ৮৫৯ ভোটারের মধ্যে শনিবার (০৭ মে) ৮৯ লাখ ৪৭ হাজার ৭৪০ জন ভোট দিয়েছেন। যা মোট ভোটের ৭৭ দশমিক ৪৬ শতাংশ।

মাঠ পর্যায় থেকে পাঠানো তথ্য সমন্বয় করে নির্বাচন কমিশনের তৈরি প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, আওয়ামী লীগ, বিএনপির পর স্বতন্ত্র প্রার্থীরা সবচেয়ে সংখ্যক ইউপিতে জয় পেয়েছেন। তারা ১৬১টিতে জয়ী হয়েছেন।  এছাড়া জাতীয় পার্টি জয় পেয়েছে ১০টি ইউপিতে।

এ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ ৩৯ লাখ ৩৬ হাজার ৯৯৯টি ভোট পেয়েছে। যা প্রদত্ত ভোটের ৪৩ দশমিক ৭৬ শতাংশ। আর বিএনপি পেয়েছে ১৬ লাখ ৯৫ হাজার ভোট। যা প্রদত্ত ভোটের ১৮ দশমিক ৮৫ শতাংশ।

স্বতন্ত্র প্রার্থীরা পেয়েছেন ২৯ লাখ ৮৫ হাজার ৭১৫টি ভোট। যা প্রদত্ত ভোটের ৩৩ দশমিক ১৯ শতাংশ।

এদিকে ইসির জনসংযোগ পরিচালক এসএম আসাদুজ্জামান বলেন, এখনো সব ইউপির তথ্য আসেনি। তাই আনুষ্ঠানিক তথ্য দিতে আরো সময় লাগবে।

এবার দেশের প্রায় সাড়ে চার হাজার ইউপিতে ছয় ধাপে ভোটগ্রহণ করছে নির্বাচন কমিশন। আগামী ২৮ মে পঞ্চম ধাপের এবং ৪ জুন ষষ্ঠ ধাপের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৫তম জন্মবার্ষিকী আজ

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ।।

1457973779225

‘হে নূতন,/ দেখা দিক আর-বার/ জন্মের প্রথম শুভক্ষণ তোমার প্রকাশ হোক/ কুহেলিকা করি উদ্ঘাটন/ সূর্যের মতন।’

নিজের জন্মদিন পঁচিশে বৈশাখকে এভাবেই ডাক দিয়েছিলেন কবিগুরু। মহাকালের বিস্তীর্ণ পটভূমিতে এক ব্যতিক্রমী রবির কিরণে উজ্জ্বল পঁচিশে বৈশাখ। ১৮৬১ সালের এদিনে কলকাতার জোড়াসাঁকোয় মহর্ষী দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরের ঘর আলো করে জন্ম নিয়েছিলেন বাঙালির কবি – বাংলার কবি, বিশ্বকবি, কবিগুরু, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। আজ পঁচিশে বৈশাখ। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৫তম জন্মবার্ষিকী। ১৯৪১ খ্রিষ্টাব্দের বাংলা ২২ শ্রাবণ মৃত্যুবরণ করলেও বাংলা ভাষার প্রধানতম কবি হয়ে বাঙালির হূদয়ে চির আসন করে নিয়েছেন।

রবীন্দ্রনাথের ধর্মীয় ও দার্শনিক চেতনা ছিল- শুধু নিজের শান্তি বা নিজের আত্মার মুক্তির জন্য ধর্ম নয়। মানুষের কল্যাণের জন্য যে সাধনা তাই ছিল তার ধর্ম। তার দর্শন ছিল মানুষের মুক্তির দর্শন। মানবতাবাদী এই কবি বিশ্বাস করতেন বিশ্বমানবতায়। জীবনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত তার কবিতায়, গানে, গল্পে, বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে সেই দর্শনের অন্তেষণ করেছেন তিনি। তার কবিতা, গান, সাহিত্যের অন্যান্য শাখার লেখনী মানুষকে আজো সেই অন্তেষণের পথে, তার অন্বিষ্ট উপলব্ধির পথে আকর্ষণ করে। রবীন্দ্রনাথ বাঙালির মন-মানসিকতা গঠনের, চেতনার উন্মেষের অন্যতম প্রধান অবলম্বন। বাঙালির হাজার বছরের ঐতিহ্যলালিত দর্শন ও সাহিত্য, তার রচনার মধ্য দিয়ে বিশ্বসাহিত্যসভায় পরিচিতি পায়। ১৯১৩ সালে প্রথম বাঙালি এবং এশীয় হিসেবে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার অর্জন করেন। বাঙালির সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিশ্বজনীন হয়ে উঠেছে রবীন্দ্রনাথের মাধ্যমে। বাংলা সাহিত্যকে তিনি বিশ্বের দরবারে সম্মানের আসনে পৌঁছে দিয়েছেন। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বহুমুখী সৃজনশীলতা বাংলা সাহিত্য ও শিল্পের প্রায় সবক’টি শাখাকে স্পর্শ করেছে, সমৃদ্ধ করেছে। কবিতা দিয়ে তার সাহিত্য চর্চা শুরু। তার হাতেই বাংলা ভাষায় প্রথম সার্থক ছোটগল্পের সৃষ্টি হয়েছে। বাংলা উপন্যাসকে তিনি আধুনিক ও সার্থক উপন্যাসে তুলে এনেছেন। শুধু সৃজনশীল সাহিত্য রচনায় নয়, অর্থনীতি, সমাজ, রাষ্ট্র নিয়ে তার ভাবনাও তাকে অত্যন্ত উঁচু স্থানে নিয়ে গিয়েছে। তাঁর লেখা গান বাঙালির হূদয়ে প্রতিধ্বনিত হয় আজো। বাংলাদেশের মানুষের কাছে রবীন্দ্রনাথ প্রেরণাদায়ী পুরুষ। যে কোন রাজনৈতিক অস্থিরতায়, আন্দোলনে রবীন্দ্রনাথের কবিতা, গান আন্দোলনরত মানুষদের দেখায় পথের দিশা।

আজ বিশ্ব মা দিবস

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট :
Ma-chara-jibon-kamon-1-1
বিশ্ব মা দিবস ৮ মে (রবিবার)। পৃথিবীর সবচেয়ে মধুর শব্দের নাম ‘মা’। সন্তানের জন্য জগতের যা কিছু কল্যাণকর, নিঃস্বার্থ মমতা ও ভালোবাসার প্রতীক ‘মা’।সকল মায়ের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে ১৯১৪ সালের ৮ মে মার্কিন কংগ্রেস মে মাসের দ্বিতীয় রোববারকে ‘মা দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করে। এভাবেই শুরু হয় মা দিবসের যাত্রা। ভার্জিনিয়ার আনা জার্ভিসকে বলা হয় মা দিবসের প্রবর্তক। এরই ধারাবাহিকতায় আমেরিকার পাশাপাশি মা দিবস এখন বাংলাদেশসহ অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, কানাডা, চীন, রাশিয়া ও জার্মানসহ শতাধিক দেশে মর্যাদার সঙ্গে দিবসটি পালিত হচ্ছে।মা দিবসের মূল উদ্দেশ্য, মাকে যথাযথ সম্মান দেওয়া। যে মা জন্ম দিয়েছেন, লালন-পালন করেছেন, তাকে শ্রদ্ধা দেখানোর জন্য দিনটি পালন করা হয়। যদিও মাকে ভালোবাসা এবং শ্রদ্ধা জানানোর কোনো দিনক্ষণ ঠিক করে হয় না- তবুও গোটা বিশ্বে মাকে গভীর মমতায় স্মরণ করা হয় এ দিনে।কালে কালে একটি কথাই চিরায়ত সত্যিতে পরিণত হয়েছে, আর সেটি হচ্ছে- পৃথিবীতে ‘মা’ শব্দের চেয়ে অতি আপন শব্দ আর দ্বিতীয়টি নেই। সন্তানের কাছে সবচেয়ে আপন, সবচেয়ে প্রিয় হলেন মা।

মায়ের গর্ভে সন্তান যেমন রক্ত শুষে নিরাপদে ধীরে ধীরে বড় হয়, তেমনি জন্মের পর মা-ই তার নাড়ি ছেঁড়া ধনকে তিলে তিলে বড় করে তোলেন। মাকে ভালোবাসা আর তার প্রতি হৃদয় নিংড়ানো শ্রদ্ধার বিষয়টি পবিত্র ধর্মগ্রন্থগুলোতে অত্যধিক গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। ইসলাম ধর্মেও মায়ের পদতলে সন্তানের বেহেশতের কথা বলা হয়েছে। অন্যান্য ধর্মেও মাতৃভক্তি আর তার প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞান সবার ওপরে স্থান দেওয়া হয়েছে।

জীবনের চরম সংকটকালে পরম সান্ত্বনার স্থল হিসেবে যার কথা প্রথম মনে পড়ে তিনি মমতাময়ী মা। মা প্রথম পৃথিবীর রং, রূপ, শব্দ, গন্ধ, চেনান, দেখান, শেখান। যুগে যুগে কবি-সাহিত্যিকগণ মা বন্দনা করে কত ভালোবাসাই না ঝরিয়েছেন। আব্রাহাম লিংকন মাকে স্মরণে এনে বলেছিলেন, `আমি যা কিছু পেয়েছি, যা কিছু হয়েছি, অথবা যা হতে আশাকরি তার জন্য আমি আমার মার কাছে ঋণী`। ইংরেজ কবি রবার্ট ব্রাউনিং বলেছেন, `মাতৃত্বেই সকল মায়া-মমতা ও ভালোবাসার শুরু এবং শেষ।` সেই বিবেচনায় বাংলাদেশে এ দিবসটি ঘটা করে পালনের ইতিহাস খুব বেশি দিনের নয়। যদিও মাকে সম্মান, শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা দেখাতে নির্দিষ্ট দিনক্ষণ ঠিক করে নেওয়ার যুক্তি অনেকের কাছেই সেভাবে গ্রহণযোগ্য নয়। তবে অনেকেই মনে করেন মাকে সম্মান দেখাতে, তাকে গভীরভাবে স্মরণ করতে আন্তর্জাতিকভাবে পালিত বিশ্ব মা দিবসের গুরুত্ব রয়েছে। যে কারণে বিশেষত নাগরিক জীবনে দিনটি পালনের ক্ষেত্রে বেশি সাড়া মিলেছে কয়েক বছর ধরে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো আজ বাংলাদেশেও দিবসটি নানা আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে পালন করা হবে।

৮ মে রবিবারের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা পেছানো হয়েছে

কমলকুঁড়ি রিপোর্ট :

photo-1459662126

৮ মে রবিবারের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা পেছানো হয়েছে। জামায়াতের হরতালে পিছিয়েছে এইচএসসি পরীক্ষা ০৬ মে, ২০১৬ হরতালের কারণে তা পেছানো হয়েছে।  আট শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এ দিনের এইচএসসি পরীক্ষা ৯ মে সোমবার অনুষ্ঠিত হবে। তবে পরীক্ষার সময় পরিবর্তন করা হয়নি। ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মো. মাহবুবুর রহমান দ্য রিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘৮ মের এইচএসসি পরীক্ষা ৯ মে অনুষ্ঠিত হবে। তবে সময় পরিবর্তন করা হয়নি।’ অপরদিকে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক এ কে এম ছায়েফ উল্লাহ দ্য রিপোর্টকে জানান, মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে আলীমের ৮ মের পরীক্ষা আগামী ২২ মে অনুষ্ঠিত হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় উপসচিব সুবোধ চন্দ্র ঢালী দ্য রিপোর্টকে জানিয়েছেন, কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে চলমান এইচএসসি (বিএম) একাদশ শ্রেণির আগামী রবিবারের দুপুর ২টার পরীক্ষা সোমবার সকাল ১০টা থেকে অনুষ্ঠিত হবে। মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমির মতিউর রহমান নিজামীর রিভিউ (রায় পুনর্বিবেচনা) আবেদন বৃহস্পতিবার খারিজ করে দিয়েছেন আপিল বিভাগ। ফলে নিজামীর বিরুদ্ধে আপিল বিভাগের রায়ে দেওয়া মৃত্যুদণ্ডই বহাল রয়েছে। এ রায়ের প্রতিবাদে আগামী রবিবার ভোর ছয়টা থেকে দেশব্যাপী টানা ২৪ ঘণ্টা হরতালের ডাক দিয়েছে জামায়াত। রবিবার এইচএসসিতে বাংলা ভাষা ও সাহিত্য দ্বিতীয় পত্র, ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্য দ্বিতীয় পত্র, পদার্থ বিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) দ্বিতীয় পত্র, ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা দ্বিতীয় পত্র, ব্যবসায় নীতি ও প্রয়োগ দ্বিতীয়পত্র এবং ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা দ্বিতীয় পত্রের পরীক্ষা ছিল। এদিন আলীমে রসায়ন প্রথম পত্র (তত্ত্বীয়), অর্থনীতি প্রথম পত্র (অতিরিক্ত বিষয়), পৌরনীতি প্রথম পত্র (অতিরিক্ত বিষয়) এবং পৌরনীতি ও সুশাসন প্রথম পত্র (অতিরিক্ত বিষয়), উচ্চতর ইংরেজি প্রথম পত্র (অতিরিক্ত বিষয়), উর্দু প্রথম পত্র (অতিরিক্ত বিষয়), ফার্সি বিষয়ে পরীক্ষা ছিল। এ ছাড়া কারিগরি বোর্ডের অধীনে এইচএসসি ব্যবসায় ব্যবস্থাপনায় ব্যবসায় গণিত ও পরিসংখ্যান (নতুন সিলেবাস) এবং ব্যবসায় গণিত ও পরিসংখ্যান (পুরাতন সিলেবাস) পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। গত ৩ এপ্রিল এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়। এবার এ পরীক্ষায় ১২ লাখ ১৮ হাজার ৬২৮ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়েছে।

জামায়াতে ইসলামীর নেতা মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল: রোববার দেশব্যাপী হরতাল

  ডেস্ক রিপোর্ট:

স্বাধীনতা যুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াতে ইসলামীর নেতা মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল রেখে রায় পুন:বিবেচনার আবেদন খারিজ করে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের চার সদস্যের বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

এই রায়ের মধ্য দিয়ে নিজামীর বিরুদ্ধে এ মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হলো।

রায় পরবর্তী এক সংবাদ সম্মেলনে এ্যটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম জানিয়েছেন, আজ এ মামলার আইনগত প্রক্রিয়া শেষ হয়ে গেল।

এখন মামলার আদেশ কারা কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হবে।

আসামী পক্ষ চাইলে রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমাভিক্ষা চাইতে পারেন।

তবে ক্ষমা ভিক্ষা না চাইলে জেল কর্তৃপক্ষ দণ্ড কার্যকরের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। সেক্ষেত্রে দণ্ড কার্যকরের দিনক্ষণ সরকার ঠিক করবে।

এদিকে, এই রায়ের প্রতিবাদে রোববার সকাল ৬টা থেকে সোমবার সকাল ৬টা পর্যন্ত দেশব্যাপী হরতালসহ তিনদিনের কর্মসূচী ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী।

দলটির ভারপ্রাপ্ত আমীর মকবুল আহমাদ ও ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল শফিকুর রহমান এক যুক্ত বিবৃতিতে এ ঘোষণা জানিয়েছেন।

এদিকে, এই রায়ে আনন্দ প্রকাশ করেছে শাহবাগে গণজাগরণ মঞ্চের কর্মী ও সংগঠকেরা।

রায় প্রদানকে কেন্দ্র করে আদালত এলাকাসহ ঢাকার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়কে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

গত ২৯ শে মার্চ নিজামী রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন করেন।

এরপর ৩রা মে সেটির শুনানি সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে শেষ হয়।

হত্যা, গণহত্যা এবং বুদ্ধিজীবী হত্যার দায়ে ২০১৪ সালের অক্টোবরে নিজামীকে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

ঐ রায়ের বিরুদ্ধে নিজামী আপিল করার পর, গত ৬ই জানুয়ারি ট্রাইব্যুনালের দেয়া দণ্ড বহাল রাখে আপিল বিভাগ।

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়ার অভিযোগে করা একটি মামলায় ২০১০ সালের ২৯ জুন নিজামীকে গ্রেপ্তার করা হয়। (তথ্য সূত্রঃবিবিসি)

১১ মে এসএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ

কমলকঁড়ি রিপোর্ট :

২০১৬ সালের মাধ্যমিক (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফল আগামী ১১ মে প্রকাশ করা হবে। ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান মো. মাহবুবুর রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন।

নিয়ম অনুযায়ী, শিক্ষামন্ত্রী শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যানদের নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ফলাফল হস্তান্তর করবেন। এরপর শিক্ষামন্ত্রী সংবাদ সম্মেলন করে ফলাফলের বিস্তারিত তুলে ধরবেন।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, দুই মাসের মধ্যে পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়। এবারও তার ব্যতিক্রম হবে না। আগামী ১০ বা ১১ মে ফলাফল প্রকাশের জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছিল। প্রস্তাব অনুযায়ী ১১ মে ফলাফল প্রকাশের তারিখ নির্ধারিণ করা হয়েছে।

১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এসএসসির তত্ত্বীয় পরীক্ষা শেষ হয় ১০ মার্চ। তত্ত্বীয় পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৬০ দিনের মাথায় গত কয়েক বছর থেকে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করে আসছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

এবার মোট ১৬ লাখ ৫১ হাজার ৫২৩ শিক্ষার্থীর মধ্যে এসএসসিতে ১৩ লাখ ৪ হাজার ২৭৪ জন, মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে দাখিলে ২ লাখ ৪৮ হাজার ৮৬৫ এবং এসএসসি ভোকেশনালে (কারিগরি) ৯৮ হাজার ৩৮৪ শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়।

চট্টগ্রাম বন্দরের ট্রানজিট সুবিধা পেতে ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী উড়াল সেতু নির্মিত হবে

বিশেষ সংবাদদাতা:

চট্টগ্রাম_বন্দরের_ট্রানজিট_সুবিধা_পেতে ভারত-বাংলাদেশ_মৈত্রী_সেতু

বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে ”রামগড়-ত্রিপুরা” সীমান্ত ভাগ করেছে একটি নদী। স্রোতশ্বিনী এই নদীর নাম ‘‘ফেনী নদী”। এই নদীতে দু’পাড়ের মানুষ মাছ ধরে, কাপড় কাছে, গোসল করে। কিন্তু এপাড়-ওপাড় হতে পারেনা সীমান্ত আইন ও স্রোতের গতির কারণে।

 

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশের রামগড় ও ফটিকছড়ি সংলগ্ন ভারতের সীমান্তবর্তী এলাকা ত্রিপুরা রাজ্যের সাব্রুম মহকুমা। সাব্রুমের আনন্দ পাড়া থেকে রামগড় মহামুনি (রামগড় থানার পশ্চিম পাশ্বে) ৪১২ মিটার দৈর্ঘ্য ও ১৪.৮ মিটার প্রস্ত এই মৈত্রী উড়াল সেতু নির্মিত হবে। তবে ফেনী নদীর উপর হবে মুল সেতুর ১৫০ মিটার।

 

এজন্য ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার গত বুধবার ১২৫ কোটি ভারতীয় রুপি মঞ্জুর করেছে বলে ত্রিপুরার মুখ্য সচিব যশপাল সিং এর বরাত দিয়ে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম তা সংবাদ প্রকাশ করেছে।

 

এই সেতুর জন্য বাংলাদেশের রামগড় ও ফটিকছড়ির সোনাইকুল হয়ে হেঁয়াকো-চট্টগ্রাম সড়কের অবকাঠামো এবং ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সাব্রুম নবীন পাড়া-ঠাকুর পল্লী রাস্তা হয়ে সাব্রুম ফরেষ্ট অফিস সংলগ্ন জাতীয় মহা সড়ক পর্যন্ত অবকাঠামো উন্নয়ন হবে।

 

এ লক্ষ্যে ত্রিপুরা ও রামগড় থেকে বেশ কিছু জমি অধিগ্রহণ করতে ভারতের শিল্প ও বানিজ্য দপ্তর ৭ কোটি ২৫ লক্ষ রুপি অনুমোদন করেছে। গত মার্চে ভারতের পূর্ত, শিল্প ও বানিজ্য দপ্তরের যৌথ পরিদর্শক দল সীমান্ত এলাকা পরিদর্শন করেন। এর আগে বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ প্রতিনিধি ও পরিবেশ বিশেষজ্ঞ দল রামগড়ে সংশ্লিষ্ট স্থান পরিদর্শন করেছে। এখন শুধু ভারত সরকার সেতুর জন্য দরপত্র আহবান করার কাজ বাকি রয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে।

 

সূত্র জানায়, ২০১৫ সালের জুন মাসে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বাংলাদেশ সফরের সময় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকায় এই মৈত্রী সেতুর চুক্তি স্বাক্ষর করে এর প্রতিকী উদ্বোধন করেন।

 

এর আগে মৈত্রী সেতু নিয়ে ২০১০ সালে থেকে ভারতের সাবেক মন্ত্রী জীতেন্দ্র চৌধুরী ও বাংলাদেশের সাবেক পররাষ্ট্র মন্ত্রী দিপু মনি একাধিকবার বৈঠক করেছেন।

 

তখন তারা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ফেনী নদীতে মৈত্রী সেতু নির্মিত হলে ভারতের উত্তর-পুর্বাঞ্চল থেকে পণ্য দ্রব্য ও ভারী যন্ত্রপাতি সরাসরি চট্টগ্রাম বন্দরে আনা-নেওয়া এবং ব্যবসা-বাণিজ্য সম্প্রসারণ করা সম্ভব হবে। এতে চট্টগ্রাম বন্দরের ট্রানজিট সুবিধা পাবে ভারত। এজন্য পুরোপুরি প্রস্তুত করা হবে যোগাযোগ ব্যবস্থাও। এতে ভারত ও বাংলাদেশ দুই দেশ লাভবান হবে।

 

সাব্রুম মহকুমা প্রশাসক সুভাষ সাহা সাংবাদিকদের বলেন, ফেনী নদীর এই মৈত্রী সেতুর জন্য কেন্দ্রীয় সরকার সব করছে। এজন্য সাব্রুম-রামগড় দুই পাড়েই জমি অধিগ্রহণ করতে হবে। এজন্য কাজও চলছে।

 

রামগড়ের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ইকবাল হোসেন বলেন, ফেনী নদীতে মৈত্রী সেতু নির্মাণের জন্য দু’দেশের যৌথ পরিবেশ সার্ভে দলের সাথে আমিও ছিলাম। বাংলাদেশ ও ভারত সরকার এখানে সেতু নির্মাণের জন্য নীতিগত ঐক্যমত রয়েছে। তবে সব কাজ কবে ভারত সরকার। বাংলাদেশ সরকার পর্যাপ্ত সহায়তা দেবে। সম্ভবত এখন সেতুর দরপত্র আহবান করার প্রক্রিয়ায় রয়েছে।

 

ত্রিপুরার সাব্রুম প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রতাপ বর্ণিক মান্না মুঠোফোনে বলেন, ভারত-বাংলাদেশের এ অঞ্চলের মানুষের মাঝে দীর্ঘ্য দিনের সু-সম্পর্ক রয়েছে, জলবায়ু ও সংষ্কৃতিরও মিলও রয়েছে। সেই সঙ্গে বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সম্পর্কে উন্নয়নের জন্য ফেনী নদীতে এই মৈত্রী সেতু একটি মাইল ফলক হিসেবে কাজ করবে।

রামগড়ের প্রেসক্লাব সভাপতি নিজাম উদ্দিন লাভলু বলেন, পরিবেশ ও সংষ্কৃতির হুবহু মিল রয়েছে দুই পাড়ের মানুষের মধ্যে। প্রতি বছর বারুনী স্নানের দিন ফেনী নদীতে মানুষের বাঁধ ভাঙ্গা উচ্চাস দুই দেশের কোন প্রশাসন রোধ করতে পারেনা। এখানে মৈত্রী সেতু হলে এই উচ্চাস আইন সিদ্ধ মিলন মেলায় পরিনত হবে। ব্যবসা-বানিজ্য ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক উন্নয়ন হবে।

আজ পবিত্র শবে মিরাজ

কমলকুঁ ডেস্ক:

Marizআজ বুধবার পবিত্র শবে মিরাজ। 

 

বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) নবুওয়াত লাভের একাদশ বর্ষের রজব মাসের ২৬ তারিখ দিবাগত রাতে মহান আল্লাহর বিশেষ মেহমান হিসেবে আরশে আজিমে আরোহণ করেন।

 

মুসলিম জাহানের কাছে এ রাতের তাৎপর্য অপরিসীম। তাই বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশে পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত, মিলাদ মাহফিল, নফল রোজা রাখা ও নফল নামাজ আদায়ের মধ্য দিয়ে মুসলমানরা শবে মেরাজ পালন করেন। এ উপলক্ষে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ধর্মীয় কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

 

ইসলামিক ফাউন্ডেশন সূত্র জানায়, বাংলাদেশের আকাশে গত ৮ এপ্রিল শুক্রবার ১৪৩৭ হিজরি সনের পবিত্র রজব মাসের চাঁদ দেখা যায়। তাই গত ৯ এপ্রিল থেকে পবিত্র রজব মাস শুরু হয়।

 

জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক, ২৬ রজব ১৪৩৭ হিজরি, ২১ বৈশাখ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ, ৪ মে ২০১৬ খ্রিস্টাব্দ বুধবার দিবাগত রাতে সারাদেশে পবিত্র লাইলাতুল মিরাজ পালিত হবে।

আজ মে দিবস

কমলকুঁড়ি ডেস্ক:

me-dbs

আজ রবিবার পহেলা মে মহান মে দিবস । ১৮৮৬ সালের আজকের এই দিনে বুকের তাজা রক্ত দিয়ে শ্রমিকদের অধিকার আদায়ে আত্মত্যাগ করেন তৎকালীন সময়ে বঞ্চনার শিকার শ্রমিকেরা । সে দিন যুক্তরাষ্ট্রের ‘হে’ মার্কেটের সামনে আট ঘন্টা কাজের দাবিতে আন্দোলনে নামেন শ্রমিকেরা। আন্দোলনে পুলিশের গুলিতে নিহত ও আহত হন অনেক শ্রমিক । সেই থেকে ১ মে আন্তর্জাতিক শ্রম দিবস বা মে দিবস হিসেবে পালন করে আসছে বিশ্ববাসী।

১৯৭২ সাল থেকে বাংলাদেশও দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করে আসছে। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি এডঃ আব্দুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা,জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হোসেন মোহাম্মদ এরশাদ, বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া পৃথক বানী দেন।

এদিকে আজ সারা দেশে সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে । তবে প্রতি বছরের ন্যায় এবারেও দিবসটি রাষ্টীয় ভাবে উদযাপন করা হবে । এ উপলক্ষে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করেছে। সকাল সাড়ে ৭ টায় মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বর্ণাঢ্য র্যা্লির আয়োজন করা হবে। র্যা লিটি দৈনিক বাংলা থেকে শুরু হয়ে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে গিয়ে শেষ হবে।

এছাড়াও মে দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক এবং শ্রমিক সংগঠন। রাজধানী সহ সারা দেশে বর্ণাঢ্য র্যা লির মাধ্যমে এই দিবসের আয়োজন শুরু হবে। ট্রেড ইউনিয়ন সহ সকল শ্রমিক সংগঠন গুলো নিজ নিজ কার্যালয় ও রাজপথে আজ দিন ব্যাপী কর্মসূচির আয়োজন করেছে।

উল্লেখ, আঠারো শতকের শেষের দিকে আমেরিকা ও ইউরোপে শ্রমিকদের দিয়ে ১৪ থেকে ১৮ ঘন্টা কাজ করানো হতো।

ওভার টাইম বলে কোন শব্দ ছিলনা তখন। মালিক শ্রেনীর এক চেটিয়া শোষণ ও নির্যাতনের প্রতিবাদে আমেরিকার শিকাগুতে আন্দোলনের ডাক দেয় শ্রমিকরা । ঐ দিন পুলিশের গুলিতে বহু শ্রমিকের নির্মম মৃত্যুর পর শ্রমিক আন্দোলনের এ গৌরবময় অধ্যায়কে স্মরণীয় করে রাখার জন্য ১৮৯০ সাল থেকে পালিত হয়ে আসছে মহান মে দিবস। একই সাথে বিশ্বে বাস্তবায়ন হয়েছে “আট ঘন্টা, কর্ম ঘন্টা”।

সিম নিবন্ধনের সময় বাড়লো ১ মাস

কমলকুঁড়ি ডেস্ক:

1462037114

 বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে মোবাইল ফোনের সিম নিবন্ধনের সময়সীমা ১ মাস বাড়িয়েছে সরকার। নতুন সময়সীমা অনুযায়ী আগামী ৩১ মে রাত ১২টা পর্যন্ত সিম পুনঃনিবন্ধন করা যাবে। এরপর যেসব সিমের নিবন্ধন থাকবে না, সেগুলো বন্ধ করে দেয়া হবে। বিভিন্ন কারণে কয়েক কোটি সিম নিবন্ধিত না হওয়ায় বিভিন্ন মহলের দাবির প্রেক্ষাপটে আগে ঘোষিত সময়সীমার শেষ দিনে এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

অপরাধ কাজে সিমের ব্যবহার বন্ধের লক্ষ্যে গত ১৬ ডিসেম্বর থেকে আঙুলের ছাপ নিয়ে মোবাইল সিম পুনঃনিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু হয়, যার সময়সীমা গতকাল শনিবার শেষ হওয়ার ঘোষণা ছিল। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষের হাতে থাকা ১৩ কোটি মোবাইল সিমের মধ্যে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত ৮ কোটি ৩৮ লাখ বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে পুনঃনিবন্ধিত হয়।

এর বাইরে আঙুলের ছাপ না মেলাসহ বিভিন্ন কারণে সোয়া ১ কোটি গ্রাহক সিম নিবন্ধনের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হলে সময়সীমা বাড়ানোর দাবি ওঠে।

গতকাল শনিবার বিকেলে বিটিআরসিতে সংবাদ সম্মেলনে এসে তারানা হালিম বলেন, ৩১ মে রাত ১২টার পর কোনো সতর্ক সঙ্কেত ছাড়া সাময়িক নয়, আমরা সম্পূর্ণভাবে সিমটি ডি-অ্যাকটিভ করে দেব। এখনও যারা সিম নিবন্ধন করেননি, তাদের পুনঃনিবন্ধনের জন্য সতর্কবার্তাও দেয়া হবে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, তার আগে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে অনিবন্ধিত কিছু সিম ১ মে থেকে ৩১ মে পর্যন্ত সময়ের মধ্যে একবারের জন্য ৩ঘণ্টা বন্ধ রাখা হবে। তারানা জানান, ৩১ মে রাত ১২টার পর যে সিমগুলো বন্ধ হয়ে যাবে পরবর্তী ১৫ মাসের জন্য সেগুলোর বিক্রি স্থগিত থাকবে। এটা প্রধানত করা হয়েছে, বিদেশে বসবাসরত প্রবাসী নাগরিকদের জন্য, শান্তিরক্ষা মিশনে আমাদের যারা কর্মরত আছে তাদের সুবিধার্থে। এই নম্বরগুলো কোথাও বিক্রি করা হবে না। সিম নিবন্ধনে কারিগরি সমস্যার কথা স্বীকার করে প্রতিমন্ত্রী সকালেই এক অনুষ্ঠানে বলেন, প্রচ  গরমে এই কষ্ট স্বীকার করে যারা সিম নিবন্ধন করেছেন তাদের ধন্যবাদ জানাই।

৩০ এপ্রিল পর্যন্ত বেঁধে দেয়া সময় শেষ হওয়ার একদিন আগে শুক্রবার রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সিম নিবন্ধন কেন্দ্রগুলোতে ছিল গ্রাহকদের ভিড়। শনিবার সকাল থেকেও একই রকম ভিড় দেখা গেছে।